CoronaVirus: বিদেশী পর্যটকদের পাশে পর্যটন ব্যবসায়ীরা, চালু ২৪ ঘণ্টার হেল্পলাইন নম্বর

CoronaVirus: বিদেশী পর্যটকদের পাশে পর্যটন ব্যবসায়ীরা, চালু ২৪ ঘণ্টার হেল্পলাইন নম্বর
ফাইল ছবি

দেশীয় পর্যটকেরা অনায়াসেই বেড়াতে আসতে পারেন দার্জিলিং, সিকিম, ডুয়ার্সে।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: করোনার মোকাবিলায় দেশজুড়ে কড়া সতর্কতা জারি করা হয়েছে। যার প্রভাব পড়েছে পর্যটন শিল্পেও। সিকিম এবং ভুটানে বিদেশী পর্যটকদের ঘোরার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। গতকাল থেকে সিকিম এবং আজ থেকে ভুটানে বিদেশী পর্যটকদের বেড়ানোয় "না"। তার জেরে পর্যটন শিল্প বড়সড় ধাক্কায় টালমাটাল অবস্থায় দাঁড়িয়ে। উদ্বেগ বাড়ছে এই শিল্পের সঙ্গে জড়িতদের।  মোকাবিলায় এগিয়ে এল হিমালয়ান হসপিটালিটি অ্যাণ্ড ট্যুরিজম ডেভেলপমেন্ট নেটওয়ার্ক। চালু করল হেল্পলাইন নম্বর।

হিমালয়ান হসপিটালিটি অ্যান্ড ট্যুরিজম নেটওয়ার্কের নয়া হেল্পলাইন নম্বর: ৯৪৩৪০১৯৮৮০, ৯৭৩৩৫৩৩০০০, ৯৪৩৪৪৬৭২৩৬ এবং ৭৩৮৪০৪৯৭৭। ২৪ ঘন্টাই খোলা থাকবে নম্বরগুলো।

বিদেশী পর্যটকদের পাশে দাঁড়াতে উদ্যোগী তাঁরা। যাতে অযথা নাজেহাল হতে না হয় বিদেশীদের। কেন না শিলিগুড়িকে কেন্দ্র করেই গোটা উত্তর-পূর্ব ভারতের পর্যটন নির্ভরশীল। প্রতিদিনই প্রচুর পর্যটক আসছে ভিন দেশ থেকে। কিন্তু শিলিগুড়িতে নেমে এখন দিশেহারা অবস্থা বিদেশীদের। তবে এ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় কিছু পোস্টে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে। তা কাটাতেই উদ্যোগ এই সংগঠনের। দেশীয় পর্যটকদের কোনো বাধা নেই। নির্ভয়ে বেড়াতে আসুন উত্তরের পাহাড় এবং ডুয়ার্সে। শৈলশহর দার্জিলিং, কালিম্পং, সাদা অর্কিডের দেশ কার্শিয়ং, সিকিম এবং ডুয়ার্সের লাটাগুড়ি, জলদাপাড়া, রাজাভাতখাওয়ায় অনায়াসেই বেড়াতে আসুন ভারতীয় পর্যটকেরা। এই অঞ্চলে ভারতীয়দের কোনও বাধা নেই। আর্জি পর্যটন ব্যবসায়ী সংগঠনের।

তবে বিদেশী পর্যটকদের জন্য নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাঁদের দার্জিলিং, কালিম্পং এবং ডুয়ার্সে বিকল্প ডেস্টিনেশন হিসেবে দ্রুত ব্যবস্থা করে দেওয়া হচ্ছে। আর উত্তর সিকিমের লাচেন, লাচুং খোলা রয়েছে। উত্তর সিকিমের ছাঙ্গু লেক, বাবা মন্দিরও খোলা। পাশাপাশি দার্জিলিংয়ের মিরিক, লাভা, লোলেগাঁ সব পর্যটন কেন্দ্রগুলো খোলা। প্রচুর বুকিংও রয়েছে। সংগঠনের কো-অর্ডিনেটর তন্ময় গোস্বামী জানান, একটা আতঙ্ক ছড়িয়েছে। ভিন রাজ্যের পর্যটকদের ফোন আসছে প্রতিদিন। হোটেল বুকিংয়ের বাতিলের প্রবণতা বাড়ছে। অযথা আতঙ্কের কিছু নেই।

Partha Sarkar

First published: March 6, 2020, 8:35 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर