• Home
  • »
  • News
  • »
  • north-bengal
  • »
  • রেকর্ড বৃষ্টিতে জলমগ্ন জলপাইগুড়ি, খোলা হল কন্ট্রোলরুম নম্বর

রেকর্ড বৃষ্টিতে জলমগ্ন জলপাইগুড়ি, খোলা হল কন্ট্রোলরুম নম্বর

নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব চিত্র

বর্ষার আগেই জলমগ্ন জলপাইগুড়ির বিস্তীর্ণ এলাকা। ক্ষতিগ্রস্ত ৩১ নম্বর জাতীয় সড়ক ৷ ডুয়ার্স থেকে নাগরাকাটা হয়ে শিলিগুড়ি যাওয়ার রাস্তা বন্ধ।

  • Share this:

    #জলপাইগুড়ি: বর্ষার আগেই জলমগ্ন জলপাইগুড়ির বিস্তীর্ণ এলাকা। ক্ষতিগ্রস্ত ৩১ নম্বর জাতীয় সড়ক ৷ ডুয়ার্স থেকে নাগরাকাটা হয়ে শিলিগুড়ি যাওয়ার রাস্তা বন্ধ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বর্ষার আগেই উত্তরবঙ্গে চালু হয়ে গেল কন্ট্রোল রুম । ১ মে-র বদলে আজ থেকেই জলপাইগুড়ি, শিলিগুড়ি, কোচবিহার, আলিপুরদুয়ারের নদীগুলির উপর নজর রাখা শুরু করছে সেচ দফতরের কন্ট্রোল রুম।

    গত বছর বর্ষায় বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল জলপাইগুড়ির অনেক এলাকায়। এক সপ্তাহর বেশি সময় ধরে জলমগ্ন ছিল নাগরাকাটা, বানারহাট, গাদং, ফালাকাটা-সহ বিভিন্ন এলাকা। মৃত্যু হয়েছিল কয়েকজনের। উদ্ধারে নামতে হয়েছিল প্রশাসনকে। এবার বর্ষার আগেই জলমগ্ন জলপাইগুড়ির বিস্তীর্ণ এলাকা। প্রায় পঁচিশটি ওয়ার্ডে জল দাঁড়িয়ে গেছে। বিঘ্নিত যান চলাচল । জলমগ্ন ধূপগুড়ির বিভিন্ন ওয়ার্ডও। রাত থেকে বিদ্যুৎহীন বেশ কয়েকটি এলাকা। ভুটান পাহাড়ে অনবরত বৃষ্টির জেরে হাতিনালায় বেড়েছে জলস্তর । নাগরাকাটা নন্দুমোড়ে ভেসে গেছে কালভার্ট। ক্ষতিগ্রস্থ ৩১ নম্বর জাতীয় সড়ক। ডুয়ার্স থেকে নাগরাকাটা হয়ে শিলিগুড়ি যাওয়ার রাস্তা বন্ধ। সুখানি নদীর জল বেড়ে বিপত্তি। হেলে পড়েছে মনমোহনধুরার শিশুশিক্ষা কেন্দ্র।

    এতেই সিঁদুরে মেঘ দেখছে সেচ দফতর। পরিস্থিতি খারাপের আশঙ্কায় পয়লা জুনের বদলে ২৪-শে মে থেকেই চালু হয়ে গেল সেচ দফতরের কন্ট্রোল রুম। বৃহস্পতিবার থেকেই উত্তরবঙ্গের চার জেলার নদীর উপর নজরদারি শুরু করল সেচ ও জলপথ বিভাগের উত্তর পূর্ব চিফ ইনজিনিয়ারের দফতর।

    গত বছর যে সব এলাকায় নদী ভাঙন ও বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল সেখানে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তিস্তা, তোর্ষা, সংকোশ-সহ বেশ কিছু নদীতে নতুন করে তৈরি হয়েছে বাঁধ। কমেছে বন্যার আশঙ্কা। নিয়মিত যোগাযোগ রাখা হচ্ছে সেন্ট্রাল ওয়াটর কমিশন, আবহাওয়া দফতর, এনএইচপিসি ও তিস্তা বারাজ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে। গতবছর থেকে শিক্ষা নিয়ে এবার আগাম তৎপর প্রশাসন।

    First published: