corona virus btn
corona virus btn
Loading

জটিল রোগে আক্রান্ত ছাত্রী, চিকিৎসার ব্যবস্থা করালেন মুখ্যমন্ত্রী

জটিল রোগে আক্রান্ত ছাত্রী, চিকিৎসার ব্যবস্থা করালেন মুখ্যমন্ত্রী

মুখ্যমন্ত্রী এই উদ্যোগ নেওয়ায় অভিভূত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক থেকে শুরু করে অসুস্থ ছাত্রীর পরিবার।

  • Share this:

#মালদহ: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের হস্তক্ষেপে কালিয়াগঞ্জ শেরপুর হাইস্কুলের নবম শ্রেনীর ছাত্রী ছবি দেবশর্মা অবশেষে চিকিৎসার সুযোগ পেল। মুখ্যমন্ত্রী এই উদ্যোগ নেওয়ায় অভিভূত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক থেকে শুরু করে অসুস্থ ছাত্রীর পরিবার।

৪ মার্চ কালিয়াগঞ্জে মুখ্যমন্ত্রীর সফরে দিনে সরকারি প্রকল্পের সুবিধা তুলে দেন।কালিয়াগঞ্জ শেরপুর হাইস্কুলের নবম শ্রেনীর ছাত্রী ছবি দেবশর্মা সবুজ সাথীর সাইকেল নিতে মঞ্চে উঠেছিলেন। সাইকেল নেওয়ার সময় মুখ্যমন্ত্রী দেখেন ছবির মুখ ফুলে আছে।তার কাছে ফোলার কারন জানতে চান।ছবি জানায় তার মুখে টিউমার হয়েছে।

চিকিৎসার বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন আর্থিক অনটনের কারনে তারা সেভাবে চিকিৎসা করাতে পারছেন না। পাঁচ বছর বয়স থেকে তার এই অসুখ।উন্নত চিকিৎসার অভাবে এই রোগ সারছে না।ক্রমশই মুখ বন্ধ হয়ে আসছে।মুখ্যমন্ত্রী শুনে খানিকটা আঁতকে ওঠেন। তার বাঁ দিকে দাঁড়িয়ে থাকা উত্তর দিনাজপুর জেলা শাসক অরবিন্দ কুমার মীনাকে সঙ্গে সঙ্গে নির্দেশ দেন দ্রুত তাকে কলকাতায় পাঠিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে।সরকার তার চিকিৎসার জন্য সমস্ত রকম সহযোগিতা করবে।

মুখ্যমন্ত্রীর সেই নির্দেশ পেয়েই জেলাশাসকের দফতর থেকে ছবির পরিবারের সাথে কথা বলে কলকাতার এস এস কে এম হাসপাতালে ছবির চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়। আগামী ১০ মার্চ অসুস্থ ছাত্রী ছবি দেবশর্মাকে রায়গঞ্জ থেকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে কলকাতার পিজি হাসপাতালে। মুখ্যমন্ত্রীর এই সাহায্য সহযোগিতা ও মানবিকতায় আপ্লুত ছবির পরিবার। দিনমজুর বাবা নিরেন দেবশর্মা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের উদ্যোগেই আজ আমার মেয়ে সুস্থ হয়ে ফিরতে পারবে।

উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ ব্লকের সুরসা গ্রামের বাসিন্দা দিনমজুর নিরেন দেবশর্মার ছোট মেয়ে ছবি দেবশর্মার পাঁচ বছর বয়স থেকেই গলায় ভয়ানক টিউমার রয়েছে। দিনমজুরি করে কোনওরকমে পেটের ভাতের জোগার করেন তিনি। এরইমধ্যে বড় মেয়ের বিয়েও দিয়েছেন। ছোট মেয়ের গলার টিউমারের জন্য বাইরে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করানোর মতো আর্থিক অবস্থা নেই তাঁর। পাঁচ বছর বয়স থেকেই এভাবেই গলায় বড় টিউমার নিয়েই সব বাধা বিপত্তি পার করে ছবি এখন শেরপুর হাইস্কুলের নবম শ্রেনীর ছাত্রী।

১০ মার্চ ছবির স্কুল শেরপুর হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষককে সাথে দিয়ে ছবি, ছবির মা ও তার বাবা নিরেন দেবশর্মাকে রায়গঞ্জ থেকে কলকাতার পিজিতে চিকিৎসা করানোর জন্য পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। কলকাতায় যাতায়াত থেকে শুরু করে তাদের থাকা খাওয়া ও চিকিৎসার সমস্ত ব্যয়ভার বহন করছে রাজ্যের সরকার মানবিক মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। পাঁচ বছর বয়স থেকে গলায় থাকা ভয়ানক বড় আকারের টিউমারের চিকিৎসা পেতে চলেছে ১৬ বছর বয়সী নবম শ্রেনীর ছাত্রী ছবি দেবশর্মা। খুশি ছবি বিদ্যালয়ের সহপাঠী থেকে শিক্ষক শিক্ষিকারা এবং অবশ্যই দিনমজুর নিরেন দেবশর্মা ও তার পরিবার।

Sebak Deb Sharma

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: March 9, 2020, 11:46 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर