• Home
  • »
  • News
  • »
  • north-bengal
  • »
  • দার্জিলিং লাগোয়া নেপাল সীমান্তে চিনা ভাষায় পড়াশুনা, পাহাড়ের অশান্তিতে চিনা উসকানি, উদ্বিগ্ন মুখ্যমন্ত্রী

দার্জিলিং লাগোয়া নেপাল সীমান্তে চিনা ভাষায় পড়াশুনা, পাহাড়ের অশান্তিতে চিনা উসকানি, উদ্বিগ্ন মুখ্যমন্ত্রী

File Photo

File Photo

দার্জিলিং লাগোয়া নেপাল সীমান্তে চিনা ভাষায় পড়াশুনা, পাহাড়ের অশান্তিতে চিনা উসকানি, উদ্বিগ্ন মুখ্যমন্ত্রী

  • Share this:

     #কলকাতা: সুপার এমারজেন্সির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে দেশ। যুক্তরাষ্টীয় কাঠামো ভেঙে রাজ্যের অধিকারে বাধা দিচ্ছে বিজেপি সরকার। মোদি প্রশাসনের বিরুদ্ধে আবারও বিস্ফোরক অভিযোগ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য, জাতীয় নিরাপত্তার মতো ইস্যুতে রাজনীতি হচ্ছে। অশান্ত পাহাড়ের ইস্যুকে অবহেলা করার জন্য এদিন কেন্দ্রের বিরুদ্ধে ফের তোপ দাগেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷

    চিন সীমান্তে উত্তেজনার পরিস্থিতি তৈরি হওয়ার পর এখন বেশ উদ্বিগ্ন জম্মু-কাশ্মীর এবং পশ্চিমবঙ্গের মতো রাজ্যগুলিও ৷ কারণ কাশ্মীরের মুখ্যমন্ত্রীর মেহবুবা মুফতির মতো এরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও যথেষ্ট উদ্বিগ্ন চিন সীমান্তের পরিস্থিতি নিয়ে ৷ কারণ- সীমান্তে উত্তেজনা বাড়ার ফলে এই দুই রাজ্যের নিরাপত্তাও এখন বড়সড় প্রশ্নচিহ্নের মুখে ৷ এদিন মুখ্যমন্ত্রী অভিযোগ করেন, পশ্চিমবঙ্গের ‘চিকেন নেক’ শিলিগুড়িকে দুর্বল করতে ভারতের বাইরের শক্তিকে মদত দেওয়া হচ্ছে ৷ অন্যদিকে, তাঁর অভিযোগ কেন্দ্রীয় সরকারের ভুল নীতির কারণে চিনের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি ঘটেছে ৷ তাতে আশঙ্কা বাড়ছে বাংলারও ৷

    সিকিম, ভুটান, নেপালে যেভাবে চিনা সৈন্যদের সক্রিয়তা বাড়ছে , তার প্রভাব পড়েছে এরাজ্যের দার্জিলিংয়েও ৷ রাজ্যের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন প্রকাশ করে কেন্দ্রকে চিঠি দিয়েছে রাজ্য সরকারও ৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজনাথ সিং-কে চিঠি লিখে স্পষ্ট জানিয়েছেন, চিনের জন্য এখন বিপদে পশ্চিমবঙ্গে নিরাপত্তাও ৷

    অশান্ত পাহাড়ের ইস্যুকে কেন্দ্র তেমন গুরুত্ব না দেওয়ায় ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ ভৌগলিক অবস্থানের কারণে বিপজ্জনক শিলিগুড়ি ৷ নেপাল-ভুটান-বাংলাদেশ এই তিন দেশের সীমানা ছুঁয়ে রয়েছে বাংলার এই রাজ্য ৷ পাহাড়ের অশান্তিতে ক্রমশ উসকানি দিচ্ছে বিদেশি শক্তি বলে আশঙ্কা মুখ্যমন্ত্রীর ৷ রাজ্যের পেশ করা গোয়েন্দা রিপোর্টেও উল্লেখ রয়েছে সেই বিষয়ের ৷ নিরাপত্তা সংক্রান্ত এত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানার পরও পাহাড়ে বাড়তি নিরাপত্তা দিতে নারাজ কেন্দ্র বলে অভিযোগ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷

    সীমান্তে চিনের অতি সক্রিয়তার জন্য কেন্দ্রের বিদেশনীতিকেই অবশ্য দায়ী করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ কারণ ভারত সীমান্তে সেনা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়াতে এখন আরোই বেঁকে বসেছে চিন ৷ এর জন্য সমস্যায় পড়তে হচ্ছে পশ্চিমবঙ্গের মতো চিন সীমান্ত ঘেষা রাজ্যগুলির ৷ উত্তর-পূর্ব সীমান্তে চিন যাতে আরও বেশি প্রভাব বিস্তার না করতে পারে, তার জন্য কেন্দ্রকে আরও তৎপর হওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷

    চিন নিয়ে অবশ্য সুর নরম করতে ইতিমধ্যেই উদ্যোগী হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ৷ রাজ্য সরকারগুলির সঙ্গে এই নিয়ে আলোচনা করতেও রাজী কেন্দ্র ৷ দার্জিলিং-এ গণ্ডগোলের পিছনে চিনের ভূমিকা থাকতে পারে বলেই মনে করছে রাজ্যসরকার ৷ কারণ- আন্দোলনের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ এবং অস্ত্রশস্ত্র চিন থেকে আসছে বলেই মনে করছেন তৃণমূলের একাংশ ৷ এর জন্য কেন্দ্রীয় সরকারকে আরও উদ্যোগ নিয়ে সীমান্ত পরিস্থিতি দেখার জন্য রাজ্যের তরফ থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছে ৷ কারণ ভারত-চিন সীমান্তে দু’দেশের সেনাদের অতি সক্রিয়তার জন্য ভুগতে হচ্ছে সীমান্ত ঘেষা রাজ্যগুলিকেই ৷

    মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবি, চিনের কারণে অশান্ত সিকিম ৷ ডোকালায় মুখোমুখি চিন ও ভারতীয় সৈন্য ৷ সিকিম পেরিয়ে দার্জিলিঙেও প্রভাব বিস্তারে উদ্যোগী চিন ৷ দার্জিলিং লাগোয়া নেপাল সীমান্তে চিনা ভাষায় পড়ানো চলছে স্কুলে ৷ সীমান্তে যখন প্রতিবেশী দেশ উত্তেজনা ছড়ানোর চেষ্টা করছে তখন কি করছে সরকারি এজেন্সিগুলি সে প্রশ্ন তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷

    সিকিম নিয়ে চিনের সঙ্গে উত্তেজনা তুঙ্গে। বহুদিনের বন্ধু ভুটানকেও পাশে পাচ্ছে না ভারত। কেন্দ্রের নীতিগত ব্যর্থতাতেই এই পরিস্থিতি বলেও অভিযোগ মুখ্যমন্ত্রীর। বলেন, ‘বর্ডার এজেন্সিগুলোকে কাজে লাগাচ্ছে ৷ ইচ্ছাকৃত পরিস্থিতি উত্তপ্ত করা হচ্ছে ৷ প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ হচ্ছে ৷ কেন বিজেপির সংগঠন দুর্গা বাহিনী তৈরি করছে? বহিরাগতের সাহায্যেই এই কাজ হচ্ছে ৷ কেন্দ্রের কাজ কি বাহিনী তৈরি করা? বাংলায় এসব চলবে না ৷’

    First published: