উত্তরবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

তিস্তা সিটি প্রকল্পের কাজে দেরি, দ্রুত সমস্যা মেটানোর নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর  

তিস্তা সিটি প্রকল্পের কাজে দেরি, দ্রুত সমস্যা মেটানোর নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর  

এস জে ডি এ বলছে নথি সমস্যায় কাজে দেরি

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: তিস্তা সিটি প্রকল্পের কাজ দ্রুত শুরু করতে চেয়ে এস জে ডি এ'র চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। তিস্তা সিটি প্রকল্পের কাজ কেন আটকে আছে তা নিয়ে প্রশাসনিক বৈঠকে প্রশ্ন তুলেছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী। প্রসঙ্গত, শিলিগুড়ির কাওয়াখালিতে এই তিস্তা সিটি প্রকল্প তৈরি হওয়ার কথা।

এস জে ডি এ চেয়ারম্যান বিজয় বর্মণ'কে ধমক দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী জানতে চেয়েছেন কেন কাজে ঢিলেমি হচ্ছে৷ বাম আমলে কাওয়াখালি উপনগরী তৈরির কাজ শুরু করার কথা হয়। তখন জমি আন্দোলন শুরু হয়। প্রকল্পের কাজ আটকে যায়। যদিও এস জে ডি এ জানিয়েছিল, ভূমিহারাদের উপযুক্ত ক্ষতিপূরন দেওয়ার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছিল৷ যদিও সেই কাজ শুরু করা যায়নি৷ পরে অনিচ্ছুক জমির মালিকদের জমি ফেরত দেওয়া হয়।

কাওয়াখালির প্রায় ৮৪ একর জায়গায় তিস্তা সিটি প্রকল্পের জন্য জমি নির্ধারিত হয়েছে। এই জায়গাতেই প্রকল্প গড়ে তুলতে চায় শিল্পপতি হর্ষ নেওটিয়া।তিস্তা সিটি প্রকল্পের কাজ দ্রুত শেষ হলে বদলে যাবে উত্তরবঙ্গের চেহারা। শিলিগুড়ি শহরের উন্নতিতে সেটা এক নতুন মাত্রা যোগ হবে। যদিও সেই কাজ আটকে থাকায় চিন্তিত প্রশাসন। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, "বিজয় বর্মণকে আমার একটা কথা বলার আছে। হর্ষ নেওটিয়া শিলিগুড়িতে একটা বড় তিস্তা সিটি প্রকল্প তৈরি করছে। সেখানে স্কুল কলেজ থেকে পার্ক সহ বিভিন্ন প্রকল্প করবে। তা আটকে আছে এস জে ডি এ'র কতগুলো কাজ বাকি আছে বলে। এগুলো চটপট করে দিন না। কেন ফেলে রেখে দিয়েছেন?" মুখ্যমন্ত্রীর এই নির্দেশের পরেই উঠে পড়ে লেগেছে এস জে ডি এ।

দ্রুত কাজ শুরু করতে চায় তারা। এস জে ডি এ'র চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, "যে সংস্থাকে জমি হস্তান্তর করা হয়েছে তাদের থেকে কিছু নথি পাওয়া বাকি আছে। সেই সব নথি পেয়ে গেলে আমরা ভেটিং করতে কলকাতায় পাঠাবো। সেই মতো অনুমতি আসবে।" যদিও প্রকল্প এলাকায় আলো, নিকাশি, রাস্তার প্রাথমিক কাজ এস জে ডি এ করে দেবে। মুখ্যমন্ত্রী অবশ্য উত্তর নিয়ে আশাবাদী। তিনি জানিয়েছেন, অনেকগুলো প্রকল্প রয়েছে। অথচ তা চালু হচ্ছে না। চালু হলে শিলিগুড়ি আরেকটা বড় ব্যাপার হবে। এমনিতেই উত্তরবঙ্গে কিছু ছিল না। এটা হলে কর্মসংস্থান হবে।"

ABIR GHOSHAL

Published by: Ananya Chakraborty
First published: September 30, 2020, 11:12 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर