লকডাউনের জেরে হকারদের খাবার জুটছে না ! সাহায্যের হাত বাড়ালেন চেকাররা !

লকডাউনের জেরে হকারদের খাবার জুটছে না ! সাহায্যের হাত বাড়ালেন চেকাররা !

ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকায় ঝাঁপ খুলছে না প্ল্যাটফর্মের দোকানগুলো।

ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকায় ঝাঁপ খুলছে না প্ল্যাটফর্মের দোকানগুলো।

  • Share this:

#জলপাইগুড়ি: করোনার দাপট অব্যাহত। দেশেও বেড়ে চলেছে মৃত্যুর সংখ্যা। আর তাই করোনার মোকাবিলায় দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। বন্ধ যোগাযোগ ব্যবস্থা। আগামী ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত বিমান পরিষেবা বন্ধ। বন্ধ থাকছে রেল পরিষেবাও। রাস্তাঘাটে দেখা নেই সরকারি, বেসরকারি বাস, ট্যাক্সি। ঘরেই বন্দি দেশবাসী। যে এন জে পি স্টেশন ভরা থাকে হাজার হাজার যাত্রীতে, আজ জন শূণ্য। খা খা করছে স্টেশন চত্বর। কিছু রেল কর্মী জরুরী কাজে স্টেশন যাচ্ছেন। অফিস করছেন। পণ্যবাহী ট্রেন চলাচল করছে। রয়েছে আর পি এফ এবং রেল পুলিশ কর্মীরা। প্ল্যাটফর্ম থেকে ওঠা নামার সিঁড়ি ধু ধু করছে। ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকায় ঝাঁপ খুলছে না প্ল্যাটফর্মের দোকানগুলো।

ফাস্ট ফুড থেকে কফি স্টল। সব বন্ধ। প্ল্যাটফর্মগুলোতে নেই কোনো কোলাহল। এক নিস্তব্ধতায় স্টেশন। লকডাউনের জেরে দুশ্চিন্তায় হকার এবং তাদের পরিবারের লোকেরা। দু'মুঠো খাবারের জন্য হাহাকার লেগে গিয়েছে। এমনই লাইসেন্স প্রাপ্ত হকারের সংখ্যা কম নয় এন জে পি স্টেশনে। ছেলে, মেয়েদের মুখে কী খাবার তুলে দেবেন তা ভাবতে গিয়ে ঘুম ছুটেছে তাদের। এবার এই লাইসেন্সধারী হকারদের পাশে দাঁড়ালেন এন জে পি'র টিকিট চেকিং স্টাফেরা। আজ এনজেপি স্টেশনে হকারদের ডেকে এনে তুলে দিলেন শুকনো খাবার। কি ছিল এই খাদ্য তালিকায়? ৫ কেজি আটা, ৩ কেজি চাল, ২ কেজি আলু, সরষের তেল, ১ কেজি মসুর ডাল, লবন। করোনা যেভাবে ছড়াচ্ছে, তাতে লকডাউনের মেয়াদ বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আগামী শনিবার এনিয়ে বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করবেন প্রধানমন্ত্রী। ওইদিনই লকডাউন নিয়ে সিদ্ধান্ত হবে। আর মেয়াদ বাড়লে সমস্যায় পড়বেন হকারেরাও। তৈরী হবে খাদ্য সংকট। আগামীদিনেও এই লাইসেন্সী হকারদের পাশে থাকবেন রেল কর্মীরা। কিছুটা হলেও দুশ্চিন্তার মেঘ কাটলো হকারদের।

PARTHA PRATIM SARKAR

Published by:Piya Banerjee
First published: