ভোটারদের মনোবল বাড়াতে রায়গঞ্জ থানায় রারিয়ায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর রুটমার্চ

কেন্দ্রীয় বাহিনী ও রায়গঞ্জ থানার পুলিশ আধিকারিকেরা গ্রামের বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলেন। কেউ কোনওরকম হুমকি বা অশান্তি সৃষ্টি করছে কিনা, ভয় দেখাচ্ছে কিনা তা গ্রামবাসীদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন৷

কেন্দ্রীয় বাহিনী ও রায়গঞ্জ থানার পুলিশ আধিকারিকেরা গ্রামের বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলেন। কেউ কোনওরকম হুমকি বা অশান্তি সৃষ্টি করছে কিনা, ভয় দেখাচ্ছে কিনা তা গ্রামবাসীদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন৷

  • Share this:

#রায়গঞ্জ:  কেন্দ্রীয় বাহিনীকে সাথে নিয়ে গ্রামে গঞ্জে ভোটারদের অভয় বার্তা পৌঁছে দিচ্ছেন পুলিশ আধিকারিকেরা। রায়গঞ্জ ব্লকের বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর রুটমার্চের পাশাপাশি কথা বলছেন সাধারন মানুষদের সাথে। সুষ্ঠুভাবে নির্বাচনে ভোট প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে সর্বতভাবে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ। পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনীর এই ভূমিকায় সন্তুষ্ট রায়গঞ্জের ভোটাররা।

গত পঞ্চায়েত নির্বাচনের আতঙ্ক কাটেনি রায়গঞ্জ ব্লকের রারিয়া গ্রামে। নির্বাচনের দিন কিছু যুবক ছাপ্পা ভোট দিতে গ্রামবাসীদের হাতে ধরা পড়ে।গনপ্রহারে এক যুবকের মৃত্যু হয়। আহত হয়েছিলেন বেশ কয়েকজন। বেশ কয়েকটি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল। আজও সেই আতঙ্ক তারা করে বেড়াচ্ছে।আজ কেন্দ্রীয় বাহিনী ওই এলাকা রুট মার্চ করেন। কেন্দ্রীয় বাহিনীকে দেখে কিছুটা আশ্বস্ত হলেন এলাকার বাসিন্দারা।

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার ভোটের নির্ঘণ্ট প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশন।  কিন্তু তার আগেই ২৫ তারিখেই উত্তর দিনাজপুর জেলায় ঢুকে যায় ভোট পরিচালনা ও নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কেন্দ্রীয় বাহিনী। স্থানীয় থানার পুলিশ আধিকারিকদের সাহায্য ও সহযোগিতা নিয়ে কেন্দ্রীয় বাহিনী শহর থেকে গ্রাম রুটমার্চ শুরু করেছে। সোমবার রায়গঞ্জ থানার পুলিশ আধিকারিকেরা কেন্দ্রীয় বাহিনীকে নিয়ে বরুয়া গ্রামপঞ্চায়েতের রারিয়া গ্রামে রুটমার্চে যায়। কেন্দ্রীয় বাহিনী ও রায়গঞ্জ থানার পুলিশ আধিকারিকেরা গ্রামের বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলেন। কেউ কোনওরকম হুমকি বা অশান্তি সৃষ্টি করছে কিনা, ভয় দেখাচ্ছে কিনা তা গ্রামবাসীদের জিজ্ঞাসাবাদ করার পাশাপাশি তাদের নির্ভয়ে ভোটদান করার জন্য আশ্বস্ত করেন। পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনীর এই ভূমিকায় খুশি প্রত্যন্ত গ্রামের ভোটাররা। তবে এলাকায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর রুটমার্চের ফলে তাঁরা নিশ্চিত বলেই মনে করছেন। কেন্দ্রীয় বাহিনীর সাথে সাথে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ আধিকারিকেরা কোনও সমস্যা হলে থানায় বা প্রশাসনকে জানানোর আবেদন করেন। রারিয়া গ্রামের বাদিন্দা মাধবী মোদক  বলেন পঞ্চায়েত ভোটে অশান্তি হলেও বিধানসভা ভোটে আগে কোনওদিনই গন্ডগোল হয়নি। ভোটে দিন ঘোষনা হলেও নির্বাচনের উত্তাপ এখনও উঠে নি। ভোটের দিন আগে আরা নির্ভয়ে ভোট দিতে পারছেন কি না সেদিকেই তারা তাকিয়ে আছেন।বীরেন সরকার নামে এক বাসিন্দা জানালেন, গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে এই এলাকায় ভোট লুঠ হয়েছে। বিধানসভা নির্বাচনে তার পুনরাবৃত্তি না হয় নির্বাচন কমিশনের কাছে এই দাবি জানাবেন। কেন্দ্রীয় বাহিনী তাদের কাছে এসে ভোটে ভয় না করার আবেদন জানালেন।কেউ তাদের ভয় দেখাতে এলে পুলিশকে জানানোর অনুরোধ করেছেন।কেন্দ্রীয় বাহিনীর এই আবেদনে তারা আশ্বস্ত হয়েছেন৷

Uttam Paul

Published by:Debalina Datta
First published: