অস্থায়ী শ্রমিকদের আন্দোলনে দীর্ঘ একমাস বন্ধ রায়গঞ্জ BSNL অফিস

অস্থায়ী শ্রমিকদের আন্দোলনে দীর্ঘ একমাস বন্ধ রায়গঞ্জ BSNL অফিস

বি এস এন এল কর্তাদের একগুয়োমি মনোভাবের কারনে গত ১১ নভেম্বর আবার দপ্তর অচল করে আন্দোলন শুরু করেছে।এই আন্দোলনের ফলে কোন কর্মি অফিসে ঢুকতে পারছে না।

  • Share this:

UTTAM PAUL

#উত্তর দিনাজপুর: অস্থায়ী শ্রমিকদের আন্দোলনে দীর্ঘ একমাস যাবত বন্ধ রায়গঞ্জ বি এস এন এল অফিস।আন্দোলনকারিরা কোন কর্মিকে দপ্তরে ঢুকতে না দেওয়া বন্ধ সমস্ত রকম পরিষেবা।আন্দোলনকারিদের যতক্ষন না তাদের দাবি মেনে নেওয়া হচ্ছে ততক্ষন তারা এই আন্দোলন চালিয়ে যাবেন।বিএস এন এলের ডিষ্ট্রিক্ট ম্যানেজার টেলিফোনে জানিয়েছেন,অস্থায়ী কর্মিরা তাদের অফিসে ঢুকতে দিচ্ছেন না।ফলে তারা গ্রহকদের পরিষেবা দিতে পারছেন না।শ্রমিকদের দাবির বিষয়টি আদালতে বিচারধীরাধীন।মামলা নিস্পত্তি না পর্যন্ত তারা এনিয়ে কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারছেন না।

উত্তর দক্ষিন দিনাজপুর জেলা নিয়ে বি এস এন এল দপ্তর।সদর দপ্তর রায়গঞ্জ কর্নজোড়ায়।এই দপ্তরে ১২২ জন অস্থায়ী শ্রমিক আছেন।যাদের আর ক্যাজুয়াল কর্মি হিসেবে মর্যদা দিতে রাজী নয় বি এস এন এল কর্ত্তৃপক্ষ।২০১৬ সালে অস্থায়ী কর্মিদের পূর্নবহালের দাবিতে রায়গঞ্জ এস এস এ শিল্প সহায়ক ইউনিয়ন আন্দোলন শুরু করে।দীর্ঘ প্রায় একবছর দপ্তর প্রায় অচল হয়ে পড়েছিল।পরবর্তীতে প্রশাসনিক হস্তক্ষেপে অচলাবস্থা কাটলেও আন্দোলন থেকে সরে যায় নি শ্রমিকরা।দীর্ঘ আন্দোলন অন্যদিকে আইনের সাহায্য নেওয়া দুটি একই সঙ্গে তারা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। উচ্চ আদালত শ্রমিকদের পক্ষে রায় দিলেও সেই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে বি এস এন এল। আজও সেই মামলার নিস্পত্তি হয় নি।

বি এস এন এল কর্তাদের একগুয়োমি মনোভাবের কারনে গত ১১ নভেম্বর আবার দপ্তর অচল করে আন্দোলন শুরু করেছে।এই আন্দোলনের ফলে কোন কর্মি অফিসে ঢুকতে পারছে না।অফিসের প্রতিদিনের কাজ কর্ম পুরোপুরি বন্ধ। টেলিফোন গ্রহকদের সমস্ত রকম পরিষেবা বন্ধ রয়েছে।সংগঠনের সম্পাদক জানিয়েছেন,কর্তৃপক্ষের একগুয়েমি মনোভাবের কারনে এই অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।যতদিন তাদের দাবি মানা না হচ্ছে তত তারা এই আন্দোলন চালিয়ে যাবেন।বি এস এন এলের ডিষ্ট্রিক্ট ম্যানেজার আবেদ আলী টেলিফোনে জানিয়েছেন,শ্রমিকদের আন্দোলনের কারনে তারা অফিস খুলতে পারছেন না।শ্রমিকদের দাবি আদালতে বিচারাধীন থাকায় তারা কোন পদক্ষেপ গ্রহন করতে পারছেন না।

First published: 03:56:38 PM Dec 11, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर