Show cause notice to 6 BJP leaders: প্রার্থী বদলের দাবিতে ভাঙচুর, উত্তর দিনাজপুরের ৬ দলীয় নেতাকে শো-কজ করল বিজেপি

Show cause notice to 6 BJP leaders: প্রার্থী বদলের দাবিতে ভাঙচুর, উত্তর দিনাজপুরের ৬ দলীয় নেতাকে শো-কজ করল বিজেপি

উত্তর দিনাজপুরের ৬ দলীয় নেতাকে শো-কজ করল বিজেপি

গত ১৮ মার্চ রাজ্যের পঞ্চম থেকে শেষ দফা পর্যন্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেছে বিজেপি নির্বাচনী কমিটি। উত্তর দিনাজপুর জেলার অধিকাংশ কেন্দ্রেই প্রার্থী পরিবর্তনের দাবিতে বিক্ষোভে নামেন বিজেপি কর্মীরা।

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: বিজেপি দলীয় কার্যালয় ভাঙচুরের ঘটনায় কর্মীদের চাপে রাখতে নতুন কৌশল নিল উত্তর দিনাজপুর জেলা বিজেপি। দলীয় কার্যলয়ের ভাঙচুরের ঘটনায় দলীয় কর্মীদের খুঁজে বের করার জন্য উত্তর দিনাজপুর জেলার ছয় বিজেপি নেতৃত্বকে শোকজ করা হয়। অভিযুক্ত বিজেপি নেতৃত্বের দাবি, সাংগঠনিক নিয়ম মেনে তাঁদের কাছে কারণ জানতে চাওয়া হয়েছে। দলীয় গোষ্ঠীদ্বন্দের কারণে কার্যালয়ে ভাঙচুর বলে দাবি করেছেন তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি।

গত ১৮ মার্চ রাজ্যের পঞ্চম থেকে শেষ দফা পর্যন্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেছে বিজেপি নির্বাচনী কমিটি। উত্তর দিনাজপুর জেলার অধিকাংশ কেন্দ্রেই প্রার্থী পরিবর্তনের দাবিতে বিক্ষোভে নামেন বিজেপি কর্মীরা। রায়গঞ্জে বিজেপি জেলা কার্যালয়-সহ অধিকাংশ কার্যালয়ে ভাঙচুর করা হয়। অবস্থা কিছুটা থিতু হওয়ায় এবার কর্মীদের উপর চাপ বাড়াল বিজেপি জেলা নেতৃত্ব। উত্তর দিনাজপুর জেলার ৬ জন বিজেপি আহ্বায়ককে শোকজ করল বিজেপি।

যে সমস্ত কনভেনরকে শোকজ করা হয়েছে তাঁরা হলেন কালিয়াগঞ্জে রাণা প্রতাপ ঘোষ, ইটাহারে দিলীপ ঋষি, চাকুলিয়ার শম্ভু মণ্ডল, ইসলামপুর শহর মণ্ডলের সন্দীপ ভট্টাচার্য, ইসলামপুর গ্রামীণের কালীদাস বিশ্বাস, করনদিঘির সুভাষ সিংহকে শোকজ করা হয়েছে। তিনদিনের মধ্যে শোকজের জবাব দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

দলীয় কার্যালয়ে যারা ভাঙচুরের সঙ্গে যুক্ত আছেন তাঁদের হাতে ভিডিও ফুটেজ তুলে দেওয়া হয়েছে। বিজেপি উত্তর দিনাজপুর জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী জানিয়েছেন, প্রার্থী নিয়ে অসন্তোষের কথা জানাতে কর্মীরা দলীয় কার্যালয়ে এসেছিলেন। কর্মীদের সঙ্গে কিছু বিরোধী দলের কর্মীরা ঢুকে পড়ে কার্যালয় ভাঙচুর চালান। যে সমস্ত কার্যালয় ভাঙচুর হয়েছে সেখানকার ছবি সংগ্রহ করা হয়েছে। যারা ভাঙচুর করছেন তারা কেউ দলীয় কর্মী সমর্থক নন বলে মনে করছেন।

দলীয় কর্মীরা যুক্ত থাকলে তাদের নামের তালিকা তুলে দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। কোনও কর্মী ভাঙচুরের ঘটনায় যুক্ত থাকলে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক নিয়ম মেনে ব্যবস্থা গঠন করা হবে। বিরোধী কর্মীরা ভাঙচুরের ঘটনায় যুক্ত থাকলে তাঁদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে বিশ্বজিৎবাবু জানিয়েছেন।

ইসলামপুর শহর মন্ডলের আহ্বায়ক সন্দীপ ভট্টাচার্য জানান, প্রার্থী ঘোষণার পরে কর্মিদের মনে অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছিল। সেই অসন্তোষের জেরে কার্যালয় ভাঙচুর হয়। ঘটনার দিন তিনি দলীয় সভায় যোগ দিতে রায়গঞ্জে ছিলেন। সাংগঠনিক নিয়ম মেনে তাদের কাছে কারণ জানতে চাওয়া হয়েছে। তিনি তাঁর উত্তর জেলা সভাপতির কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন। বিজেপি কার্যালয় ভাঙচুরের ঘটনায় বিরোধীরা কেউ যুক্ত নয় বলে দাবি তৃণমূলের। প্রার্থী নিয়ে অসন্তোষের জেরে বিজেপি কর্মীরা কার্যালয় ভাঙচুর করেছেন। দলীয় কার্যালয় ভাঙচুরের ঘটনাটি দলের পক্ষ থেকে আইনের সাহায্য কেন নিচ্ছেন না বিজেপি নেতৃত্ব প্রশ্ন তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়ালের।

Uttam Paul

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: