'জয় শ্রীরাম শুনলে এত রাগ কেন দিদির?' রথযাত্রার দিনই সুর বাঁধলেন নাড্ডা

'জয় শ্রীরাম শুনলে এত রাগ কেন দিদির?' রথযাত্রার দিনই সুর বাঁধলেন নাড্ডা
সাহাপুরে জে পি নাড্ডা, ছবি: ANI

রাজ্য বিজেপি নাড্ডার 'সহভোজ' কর্মসূচিকে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়েই দেখছে। নীলবাড়ি দখলের লক্ষ্যে কৃষকমন জয় করতে 'কৃষক সুরক্ষা অভিযান' নামে রাজ্যে কর্মসূচি চলছে বিজেপির।

  • Share this:

#মালদা: নজিরবিহীনই বলা চলে।  ক্ষমতা দখলের লক্ষ্যে গোটা রাজ্যজুড়ে রথযাত্রা শুরু করতে চলল বিজেপি। আর সেই সূত্রেই শ্রী চৈতন্যের নবদ্বীপ থেকে প্রথম রথযাত্রার সূচনার আগে মালদার মাটিতে দাঁড়িয়েই গোটা কর্মসূচির অভিমুখ নির্ধারণ করে দিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা। পরিবর্তনের ডাকের পাশাপাশি 'জয় শ্রীরাম' ইস্যুও এই বেনজির কর্মসূচির 'থিম' হয়ে উঠতে পারে, সেটাই যেন স্পষ্ট করে দিলেন নাড্ডা। যদিও কৃষক আন্দোলন নিয়ে চাপে থাকা মোদী সরকারের অস্বস্তি ঢাকতে বাংলার কৃষকদের প্রতি মমতা সরকারের বঞ্চনার অভিযোগও তুলেছেন তিনি। মধ্যাহ্নভোজ সেরেছেন কৃষকদের পাশে বসে খিচুড়ি খেয়ে।

শনিবার মালদার সাহাপুরের মাঠে কৃষকদের সঙ্গে সহভোজে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা। সাহাপুরে কৃষকদের সঙ্গে খিচুড়ি খেয়ে মধ্যাহ্নভোজ সারলেন তিনি। তার আগে অবশ্য মঞ্চ থেকে তীব্র আক্রমণের সুরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে ফের একবার বাংলায় বিজেপির আসা শুধু যে সময়ের অপেক্ষা তা মনে করালেন নাড্ডা। সাহাপুরের মঞ্চ থেকে নাড্ডার তীব্র হুঙ্কার, এবারের বিধানসভা নির্বাচনে বাংলায় পদ্মফুল ফুটবেই। তাঁর সঙ্গে এদিন মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন দিলীপ ঘোষ, দেবশ্রী চৌধুরী-সহ একাধিক রাজ্য ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী।

এদিন বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি নাড্ডার বক্তব্যে উঠে এসেছে কী ভাবে পশ্চিমবঙ্গের কৃষকদের সঙ্গে মমতা সরকার বঞ্চনা করছে সে কথা। তাঁর দাবি, 'জেদ করে কেন্দ্রের কৃষক প্রকল্পের সুবিধা বাংলার কৃষকদের দেয়নি তৃণমূল কংগ্রেসের সরকার। এর ফলে প্রায় বাংলার ৭০ লক্ষ কৃষক সুবিধা পাননি। রাজ্যের কৃষকরা প্রধানমন্ত্রীর কিষাণ সম্মান নিধি যোজনার সুবিধা না পাওয়ায় কেন্দ্রের দ্বারস্থ হতেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের টনক নড়েছে। এই প্রকল্প বাংলায় চালু হলে বাংলার কৃষকদের এই দুরবস্থা থাকত না। বাংলার কৃষকদের সঙ্গে মমতার সরকার অন্যায় করেছে।'


এদিন জে পি নাড্ডা তাঁর বক্তব্যে ফের একবার জয় শ্রীরাম ধ্বনি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের 'রেগে' যাওয়ার প্রসঙ্গ টেনে আনেন। তিনি বলেন, 'যেখানেই যাচ্ছি সেখানেই জয় শ্রীরাম শুনতে পাচ্ছি। হেলিকপ্টারে আসার সময় যেদিকেন হাত নাড়ছি, শুধুই জয় শ্রীরাম শোনা গিয়েছে। মমতাজি জয় শ্রীরাম শুনলে এত রেগে যান কেন?' এর পাশাপাশি, 'পিসি-ভাইপো'-র যুগলবন্দিতে বাংলার মানুষ কতটা বিরক্ত সেই দাবিও করেন জে পে নাড্ডা। তাঁর কথায়, 'চারিদিকে শুধু পিসি-ভাইপোর হাতজোড় করা কাটআউট। বাংলার মানুষও এবার তাঁদের হাত জোড় করে বিদায় দেওয়ার অপেক্ষা করছেন।'

রাজ্য বিজেপি নাড্ডার 'সহভোজ' কর্মসূচিকে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়েই দেখছে। নীলবাড়ি দখলের লক্ষ্যে কৃষকমন জয় করতে 'কৃষক সুরক্ষা অভিযান' নামে রাজ্যে কর্মসূচি চলছে বিজেপির। গত ডিসেম্বরে বঙ্গসফরে এসে নাড্ডাই পাঁচটি বাড়িতে 'মুষ্টিভিক্ষা' করে সেই কর্মসূচির সূচনা করেছিলেন। তখনই ঠিক হয়েছিল, ভিক্ষায় সংগৃহীত চাল ও সবজি নিয়ে হবে গণভোজ। তারই প্রথমটি এদিন মালদায় শুরু হল।

Published by:Raima Chakraborty
First published: