মালদহে তৃণমূলে যোগ বিজেপির পঞ্চায়েত সদস্যের, কংগ্রেস পরিচালিত পঞ্চায়েত দখলের দাবি তৃণমূলের

ভিঙ্গল গ্রাম- পঞ্চায়েতে মোট ১৩ জন সদস্য রয়েছে। তার মধ্যে ৯ জন সদস্য কংগ্রেসের, ৩ জন সদস্য তৃণমূলের, একজন বিজেপির। বিজেপির একজন তৃণমূলে যোগ দেওয়াতে তৃণমূলের সদস্য সংখ্যা হল ৪।

ভিঙ্গল গ্রাম- পঞ্চায়েতে মোট ১৩ জন সদস্য রয়েছে। তার মধ্যে ৯ জন সদস্য কংগ্রেসের, ৩ জন সদস্য তৃণমূলের, একজন বিজেপির। বিজেপির একজন তৃণমূলে যোগ দেওয়াতে তৃণমূলের সদস্য সংখ্যা হল ৪।

  • Share this:

#মালদহ: ভাঙন ধরল মালদহের হরিশ্চন্দ্রপুর বিজেপিতে। হরিশ্চন্দ্রপুরের ভিঙ্গল গ্রামপঞ্চায়েতের বিজেপির সদস্য যোগদান করলেন তৃণমূলে। একইসঙ্গে কংগ্রেস পরিচালিত ভিঙ্গল গ্রাম পঞ্চায়েত দখলের দাবি তৃণমূল নেতৃত্বের। যদিও তৃণমূলের এই দাবিকে কটাক্ষ করেছেন ভিঙ্গল গ্রাম পঞ্চায়েতের কংগ্রেসের প্রধান বিমানবিহারী বসাক।

ভিঙ্গল গ্রাম- পঞ্চায়েতে মোট ১৩ জন সদস্য রয়েছে। তার মধ্যে ৯ জন সদস্য কংগ্রেসের, ৩ জন সদস্য তৃণমূলের, একজন বিজেপির। বিজেপির একজন তৃণমূলে যোগ দেওয়াতে তৃণমূলের সদস্য সংখ্যা হল ৪। পঞ্চায়েত দখলের দাবি করছে তৃণমূল নেতৃত্ব। হরিশ্চন্দ্রপুরে তৃণমূল কংগ্রেসের দলীয় কার্যালয়ে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান করেন ভিঙ্গল গ্রাম পঞ্চায়েতের বিজেপি সদস্য অমলচন্দ্র সাহা। এই যোগদান কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন হরিশ্চন্দ্রপুরের ব্লক তৃণমূল নেতৃত্ব। তৃণমূলে যোগ দেওয়া বিজেপির পঞ্চায়েত সদস্য অমলচন্দ্র  সাহা বলেন," তৃণমূলে যোগদান করতে পেরে খুব ভাল লাগছে। এই দল মা মাটি মানুষের দল। মানুষের জন্য কাজ করে। বিজেপি শুধু ভেদাভেদের রাজনীতি করে। ওখানে থাকতে পারছিলাম না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আদর্শে তৃণমূল একনিষ্ঠ কর্মী হয়ে কাজ করব। নিজের দায়িত্ব পালন করব।"

তৃণমূলের দাবি, অতি শীঘ্রই কংগ্রেস পরিচালিত এই পঞ্চায়েত দখলে আসবে। কারণ, কিছুদিন আগে এই পঞ্চায়েতের প্রধান ত্রাণ বন্টন নিয়ে দলবাজি করেছিলেন, এমন অভিযোগ ওঠে। যা নিয়ে ওই পঞ্চায়েতের অনেক সদস্য ক্ষুব্ধ। তাঁরা প্রধান বদল করতে চাইছেন। সমস্ত আইনি প্রক্রিয়া মেনেই এই পঞ্চায়েতের ক্ষমতা বদল হবে।যদিও তৃণমূল নেতার এই প্রতিক্রিয়াকে তীব্র কটাক্ষ করেছেন ভিঙ্গল গ্রাম পঞ্চায়েতের কংগ্রেস প্রধান বিমান বিহারী বসাক। তিনি পাল্টা বলেন, কংগ্রেস সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে পঞ্চায়েত গঠন করেছে। তখনও তৃণমূল পঞ্চায়েতের দখলের কথা বলেছিল। কিন্তু সফল হয়নি। এখন বিধানসভা ভোট শেষ হতেই আবার বলছে। এ সব প্রোপাগান্ডা। আর বিজেপির সদস্য কোথায় গেল তা নিয়ে আমাদের মাথা ব্যাথা নেই। পঞ্চায়েত সদস্যের দলবদলকে গুরুত্ব দিতে নারাজ বিজেপি । বিজেপি নেতৃত্বের দাবি স্বার্থান্বেষী কেউ দলবদল করলে তাতে বিজেপির কোনও ক্ষতি হবে না।

Published by:Pooja Basu
First published: