‘গোর্খাল্যান্ড নিয়ে আলোচনা না হলে পাহাড়ে বনধ প্রত্যাহার করা হবে না’, সর্বদলের পরেও হুঁশিয়ারি গুরুঙের মুখে

‘গোর্খাল্যান্ড নিয়ে আলোচনা না হলে পাহাড়ে বনধ প্রত্যাহার করা হবে না’, সর্বদলের পরেও হুঁশিয়ারি গুরুঙের মুখে

‘গোর্খাল্যান্ড নিয়ে আলোচনা না হলে পাহাড়ে বনধ প্রত্যাহার করা হবে না’, সর্বদলের পরেও হুঁশিয়ারি গুরুঙের মুখে

  • Share this:

 #দার্জিলিং: মঙ্গলবারের সর্বদল বৈঠকের পর অবশেষে ৭৮ দিন পর পাহাড়ে অচলাবস্থা কাটার আশার আলো দেখা গেল ৷ তবুও সর্বদল বৈঠকের পরেও উল্টো সুর শোনা গেল মোর্চা সুপ্রিমো বিমল গুরুঙের মুখে ৷ বৈঠকের পরেও সুর চড়িয়ে গুরুঙের দাবি, গোর্খাল্যান্ড নিয়ে আলোচনা না হলে বনধ প্রত্যাহার করা হবে ৷

এদিন সর্বদল বৈঠকের পর নিজের প্রতিক্রিয়ায় মোর্চা প্রধান বিমল গুরুং বলেন-‘গোর্খাল্যান্ড নিয়ে আলোচনা না হলে বনধ চলবে ৷ পাহাড়ে বনধ প্রত্যাহারের প্রশ্নই নেই ৷’

একইসঙ্গে গোর্খাল্যান্ড ইস্যু যে রাজ্যের এক্তিয়ারে নয়, মুখ্যমন্ত্রীর এই বক্তব্যের বিরোধিতা করে গুরুং বলেন, ‘গোর্খাল্যান্ড রাজ্য সরকারের হাতে নেই ৷ লিখে দিক রাজ্য সরকার ৷ নো অবজেকশন দিক রাজ্য ৷ আমরা কেন্দ্রের সঙ্গে কথা বলব ৷ মুখ্যমন্ত্রী লিখিতভাবে অপারগতা গোর্খাল্যান্ড দিতে পারবেন না একথা জানান ৷’

ভবিষ্যতে রাজ্যের বিরুদ্ধে কোন নীতি নেবে মোর্চা সে সম্পর্কে গুরুং বলেন, ‘বৈঠকে যাঁরা গিয়েছিলেন ফিরে আসুক ৷ কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক করে পরবর্তী রণনীতি ঠিক হবে ৷’

অন্যদিকে, পাহাড়ে বিস্ফোরণের পিছনে কারা জানতে এনআইএ তদন্ত, আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে সব মামলা প্রত্যাহার - সর্বদল বৈঠকে এমনই পাঁচ দফা দাবি জানাল গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা। তবে একইসঙ্গে অচলাবস্থা কাটাতে তাঁরা যে উদ্যোগী হবে, সেকথাও জানান মোর্চা নেতা বিনয় তামাং।

First published: 07:37:51 PM Aug 29, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर