Bimal Gurung: দ্রুত মামলা প্রত্যাহার হবে, আশাবাদী গুরুং! জনসমর্থন আদায়ে মিরিকে নয়া কৌশল! 

Bimal Gurung: দ্রুত মামলা প্রত্যাহার হবে, আশাবাদী গুরুং! জনসমর্থন আদায়ে মিরিকে নয়া কৌশল! 

একুশের কুরুক্ষেত্রের লড়াইয়ের আগে সেই বিমল গুরুং তৃণমূলের হাত ধরছেন৷

একুশের কুরুক্ষেত্রের লড়াইয়ের আগে সেই বিমল গুরুং তৃণমূলের হাত ধরছেন৷

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: মামলা প্রত্যাহারের বিষয়ে তাঁর কিছু জানা নেই। কোনও নথিও নেই। তাই এবিষয়ে কিছু বলবেন না। তবে তিনি আশাবাদী মামলা প্রত্যাহার হবে। মিরিকে এক জনসভায় যোগ দিয়ে একথা বললেন বিমল গুরুং। ২০১৭ সালে পৃথক রাজ্যের দাবিতে পাহাড়জুড়ে তাঁর নেতৃত্বেই চলে আন্দোলন। বহু সরকারি সম্পত্তি নষ্ট হয়। পুড়িয়ে দেওয়া হয় সরকারি অফিস, হেরিটেজ স্টেশন, পুলিশের গাড়ি। এক পুলিশ অফিসারকে খুন করার অভিযোগও রয়েছে। সব মিলিয়ে শতাধিক জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা রুজু করে রাজ্য পুলিশ। রয়েছে ইউএপিএ ধারায় মামলাও। অর্থাৎ রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা।

একুশের কুরুক্ষেত্রের লড়াইয়ের আগে সেই বিমল গুরুং তৃণমূলের হাত ধরছেন৷ উঠছে তাঁর বিরুদ্ধে করা শতাধিক মামলা৷ ইতিমধ্যেই রাজ্যের আইন দফতর এবিষয়ে প্রক্রিয়া শুরু করেছে। যা নিয়ে বিরোধীদের তোপের মুখে রাজ্য প্রশাসন। আজ, রবিবার, এনিয়ে গুরুংয়ের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি সাবলীলভাবে বলেন, তিনি কিছুই জানেন না। তবে মামলা প্রত্যাহারের দিকে তাকিয়ে রয়েছেন। রবিবার, মিরিকে দলীয় জনসভায় যোগ দিয়ে জনসমর্থন আদায়ে বেশ কিছু কৌশল নেন। কখোনও মঞ্চ ছেড়ে নিজেই চলে আসেন সমর্থকদের মাঝে। নিজেই পড়ান খাদা, আবার কখোনও ফল তুলে দেন কর্মী, সমর্থকদের হাতে।

সামনেই নির্বাচন। তাঁর কাছে এবারে বড় পরীক্ষা। কেননা মাঝে সাড়ে তিন বছর তিনি ছিলেন পাহাড় ছাড়া। সেই সুযোগে পাহাড়ে নতুন নেতা হয়ে ওঠন বিনয় তামাং, অনীত থাপারা। পাহাড়ে ফিরে স্পষ্ট জানিয়ে দেন, বিনয়দের সঙ্গে আপোস করে চলবেন না। আবারও বলেন, ওরা গোর্খাদের জাতিসত্ত্বা বিক্রি করে দিয়েছেন। তিনিই পাহাড়ের অবিংসবাদী নেতা। তা প্রমাণ করতেই মঞ্চ থেকে একাধীক ইস্যুতে আক্রমণ করেন বিনয়, অনীতদের।

আরও পড়ুন Bengal Elections: প্রার্থী হতে চান তৃণমূল কংগ্রেসের? বায়োডেটা জমা করুন তৃণমূল ভবনে

সোমবার থেকে পাহাড়ে চড়বে বিজেপির রথ। এদিন তিনি পাহাড়ে বিজেপির পরিবর্তন উপ রথযাত্রা এবং জনসভা প্রসঙ্গে বলেন, ওদের কর্মসূচী ওরা করবে। তবে বিজেপি যে পাহাড়বাসীকে ধোঁকা দিয়েছে, তা নির্বাচনেই টের পাবে। ২-১ জন নেতা তাঁর সঙ্গ ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিলেও লাভ হবে না। পাহাড়, তরাই এবং ডুয়ার্সে তৃণমূলই ভালো ফল করবে। ফের তাঁর দাবী, বিনয়, অনীত কোনো ফ্যাক্টরই নয়। মিরিকের জনসভা মঞ্চ থেকে এক সুরে আক্রমণ করেন বিজেপি এবং বিনয়পন্থীদের।

Published by:Pooja Basu
First published: