corona virus btn
corona virus btn
Loading

কীভাবে বানাবেন ভাঁপা পিঠে? রেসিপি শেখাচ্ছেন রায়গঞ্জের মহিলারা

কীভাবে বানাবেন ভাঁপা পিঠে? রেসিপি শেখাচ্ছেন রায়গঞ্জের মহিলারা

শীত মানেই ভালোমন্দ খাওয়া দাওয়া। শীতের খাওয়া বলতেই পিঠে পুলি।

  • Share this:

Uttam Paul

#রায়গঞ্জ: শীত মানেই ভালোমন্দ খাওয়া দাওয়া। শীতের খাওয়া বলতেই পিঠে পুলি। আর তা যদি রাস্তায় চলতে ফিরতেই হাতের সামনেই পাওয়া যায় তাহলে তো সোনায় সোহাগা। হ্যা রায়গঞ্জ শহরে রাস্তা ঘাটে, বাজারে চলাফেরার পথেই মানুষ হাতে পেয়ে যাচ্ছেন গরম গরম ভাঁপা পিঠে। ফুটন্ত জলের ভাঁপে চালের গুঁড়ো দিয়ে তৈরি এই পিঠে খেলে পেটও যেমন ভরে তেমনি শারীরিক কোনও সমস্যাও হয়না। তাই শীত পড়েতেই রায়গঞ্জ শহরের অলিতে গলিতে গ্রামের মহিলাদের হাতে তৈরি ভাঁপা পিঠে কিনতে ভীড় পরে যাচ্ছে খাদ্যরসিক বাঙালির।

উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ শহর সংলগ্ন গ্রামগুলিতে প্রচুর রাজবংশী সম্প্রদায়ের মানুষের বাস। তেল, চিনি ছাড়া খুবই স্বল্প ব্যায়ে সুস্বাদু ভাঁপা পিঠে তৈরি করে খান অপেক্ষাকৃত গরীব এই রাজবংশী মানুষেরা। সাম্প্রতিক কালে এদের মধ্যে বেশ কয়েকজন ভাঁপা পিঠে তৈরির উপকরণ ও সরঞ্জাম নিয়ে রায়গঞ্জের মোহনবাটি বাজারে বসে বিক্রি শুরু করেন। সারাদিনে বাড়িতে নিজেদের কাজকর্ম সেরে একটি উনুন, জ্বালানী হিসেবে খড়ি আর চালের গুঁড়ো নিয়ে চলে আসেন তারা। খুবই সহজ পদ্ধতিতে তৈরি করা হয় এই ভাঁপা পিঠে। উনুনে একটি হাঁড়িতে জল ফুটতে থাকে। সেই হাঁড়ির উপরে একটি ফুটো করা মাটির সড়া বসিয়ে দিতে হয়। এরপর বাটির মধ্যে চালের গুঁড়ো বসিয়ে পাতলা কাপড়ে পেঁচিয়ে সড়ার ফাঁকা জায়গায় বসিয়ে দেওয়া হয়। গরম জলের ভাঁপে তৈরি হয়ে যায় ভাঁপা পিঠে। সেই পিঠে ভেতরে অনেকেই দিয়ে দেন একটু আখের গুড় নয়তো নারকেলের গুঁড়ো। মাত্র পাঁচ টাকা দামের এই সুস্বাদু পিঠে খেতে রায়গঞ্জের রাস্তায় ভীড় জমাচ্ছেন ক্রেতারা।

দশ টাকা দিয়ে দুটো ভাঁপা কিনে খেলেই সকাল বা সন্ধের টিফিনটা খুব ভালোমতোই হয়ে যাচ্ছে। ভাঁপা পিঠে নির্মাতা রায়গঞ্জ শহর সংলগ্ন কমলাবাড়ি গ্রামপঞ্চায়েতের মিশনমোড় এলাকার বাসিন্দা মিনতী বর্মন বলেন, দিনের বেলায় বাড়ির ও মাঠের কাজ সেরে বিকেল হতেই কেজি দশেক চালের গুঁড়ো নিয়ে শহরে চলে আসছেন। রাত্রি নটার মধ্যেই বিকিয়ে যাচ্ছে সমস্ত চালের গুঁড়োর পিঠে। বাড়ি ফিরছেন শ তিনেক টাকা রোজগার করে। রায়গঞ্জ শহরের মিলনপাড়ার বাসিন্দা তৃপ্তি সাহা বলেন এত সুস্বাদু এবং কম খরচের পিঠে তারা বাড়িতে তৈরি করতে পারেন না। তাই শীত পড়লেই এই ভাঁপা পিঠে খাওয়ার জন্য উদগ্রীব হয়ে থাকেন তারা। এই ভাঁপা পিঠে তৈরি ও বিক্রি করতে রায়গঞ্জ শহর সংলগ্ন গ্রামগুলির রাজবংশী মহিলারা রায়গঞ্জ শহরের রাজপথের ধারে ও শহরের অলিতে গলিতে তাদের পসার সাজিয়ে বসছেন আর বেশ ভালো উপার্জন করে বাড়ি ফিরছেন।

Published by: Akash Misra
First published: December 25, 2019, 6:23 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर