উত্তরবঙ্গ

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

আত্মীয়ের বাড়িতে জায়গা নেই, নদীর তীরে নৌকা বেঁধে কোয়ারেন্টাইনে কীর্তনিয়া বৃদ্ধ

আত্মীয়ের বাড়িতে জায়গা নেই, নদীর তীরে নৌকা বেঁধে কোয়ারেন্টাইনে কীর্তনিয়া বৃদ্ধ

নৌকার ছাউনিতে সাত দিন কাটিয়েও ফেলেছেন তিনি।

  • Share this:

#হবিবপুরঃ হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে পরামর্শ দিয়েছিলেন চিকিৎসক। কিন্তু আলাদা করে থাকার জায়গা নেই বাড়িতে, বাধ্য হয়েই স্নান-খাওয়া থেকে শুরু করে রাত্রিবাস- সবই চলছে টাঙন নদীর তীরে বাধা নৌকায়। মারণ ভাইরাসের  মোকাবিলায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে নৌকাতেই দিন কাটাচ্ছেন নদিয়ার বাসিন্দা, পেশায় কীর্তনিয়া নিরঞ্জন হালদার। আত্মীয়স্বজন ও স্থানীয় যুবকেরা নৌকায় নিয়মিত পৌঁছে দিচ্ছেন খাদ্য সামগ্রী। ইতিমধ্যে নৌকার ছাউনিতে সাত দিন কাটিয়েও ফেলেছেন তিনি।

এক সপ্তাহ আগে নবদ্বীপ থেকে মালদহের বুলবুলচন্ডী গ্রামে ভাগ্নির বাড়িতে এসেছিলেন বৃদ্ধ । সেখানে এলাকায় গান গেয়ে বেশ কিছু টাকা রোজগার করেন। এর মধ্যেই রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় লোক ডাউন ঘোষণা হয়। ফলে পুলিশি নিরাপত্তা পেরিয়ে তিনি আর বাড়িতে ফিরতে পারেননি। পাশাপাশি, অন্যান্য জেলা থেকে গ্রামে ফেরা গ্রামবাসীদের দাবি মতো স্বাস্থ্যপরীক্ষা করান নিরাঞ্জন। স্বাস্থ্য দফতরের কর্মীরা হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেন। কিন্তু আত্মীয়ের বাড়িতে বাড়তি ঘর না থাকায় শুরু হয় সমস্যা। এরপর এলাকারই বাসিন্দা তপন বিশ্বাস নামে এক ব্যাক্তির সাহায্যে একটি নৌকা মেলে। সেখানেই তারপর থাকতে শুরু করেন তিনি।

হবিবপুর ব্লকের বুলবুলচণ্ডী গ্রাম পঞ্চায়েতের ডুবাপাড়া গ্রামের শ্মশানের পাশ দিয়ে বয়ে গিয়েছে টাঙন নদী। এখন নদীতে স্রোত কম। সেখানে ঘাটে বাঁধা নৌকাই এখন নিরঞ্জনের আস্তানা। তিনি বলেন, ‘‘ভাগ্নির বাড়িতে থাকার জায়গা নেই। আমি সেখানে থাকলে ছেলেমেয়েকে নিয়ে ওদের বাইরে থাকতে হত। তাই নৌকায় বসবাস শুরু করেছি।” বিষয়টি খতিয়ে দেখে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন হবিবপুর ব্লকের বিডিও শুভজিৎ জানা। তিনি বলেন, “হোম কোয়রান্টিনের জন্য বিভিন্ন স্কুল বেছে নেওয়া হচ্ছে। সেখানেই ওই ব্যক্তিকে রাখা হবে।”

Published by: Shubhagata Dey
First published: April 3, 2020, 4:28 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर