Home /News /north-bengal /
ব্যাঙ্ক খুলতেই ঘাড়ের উপর লাইন দিয়ে টাকা তোলার হুড়োহুড়ি, শিকেই করোনা বিধিনিষেধ

ব্যাঙ্ক খুলতেই ঘাড়ের উপর লাইন দিয়ে টাকা তোলার হুড়োহুড়ি, শিকেই করোনা বিধিনিষেধ

  • Share this:
#রায়গঞ্জ: ব্যাঙ্ক খুলতেই ব্যাঙ্কের সামনে গ্রাহকদের লম্বা লাইন লাইন। কোথাও সামজিক দূরত্ব মেনে লাইন দাড়িয়েছে গ্রাহকরা কোথাও আবার সেই নির্দেশকে তোয়াক্কা না করে একে অন্যের ঘাড়ের উপর দাড়িয়েছে।গ্রাহকদের একাংশের দাবি সামাজিকদের দূরত্ব বজায় রেখে লাইনে দড়ানোর জন্য অনুরোধ করে হলেও অধিকাংশ গ্রাহকর তার কথায় কর্ণপাত করছেন না। কয়েকদিন ব্যাঙ্ক বন্ধ থাকার পর সোমবার সমস্ত ব্যাঙ্ক খুলছে।ব্যাঙ্কে ভিড় হবে এটা আগাম আন্দাজ করেই সকাল থেকেই ব্যাঙ্কের সামনে লম্বা লাইন পড়ে যায়।তার মধ্যে রায়গঞ্জ পৌরসভা বৃদ্ধ,বৃদ্ধাদের পেনশনের ভাতার টাকা ছেড়ে দেয়। সেই টাকা তুলতে বৃদ্ধ,বৃদ্ধারা ব্যাঙ্কের সামনে ভিড় জমান।রায়গঞ্জের বেশ কয়েকটি ব্যাঙ্ক ঘুরে দেখা গেল একমাত্র ইউনাইটেড ব্যাঙ্কেই সামজিক দূরত্ব মেনে লাইন হয়েছে বাকি এলাহাবাদ ব্যাঙ্ক এবং সেন্টাল কো অপারেটিভ ব্যাঙ্কে সেই সমস্ত সামাজিক দূরত্বের ধার ধারছেন না গ্রাহকরা। শহরের মধ্যে নিয়ম নীতি না মেনে বৃদ্ধবৃদ্ধারা রাস্তায় বের হওয়ায় নতুন করে সমস্যা দেখা দেবার আশঙ্কা থেকেই যায়।চৈতালী কুন্ডু নামে এক গ্রাহক জানালেন যেভাবে মানুষ ব্যাঙ্কের সামনে ভিড় করেছে এতে লকডাউন বিঘ্নিত হচ্ছে।তবে মানুষ প্রয়োজনে টাকা তুলছেন।তিনিও একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সঙ্গে যুক্ত আছেন।অসংগঠিত শ্রমিকদের হাতে টাকা দেবার জন্য সরকার তাদের নির্দেশ দিয়েছেন। তাই লকডাউনের মাঝে ঘর থেকে বের হয়ে ব্যাঙ্কের সামনে লাইনে দাড়িয়েছেন।এলাহাবাদ ব্যাঙ্কের গ্রাহক নারায়ণ ভট্টাচার্য জানিয়েছেন,  তিনি ব্যাঙ্কে এসেই দেখেন সামাজিক দূরত্ব ভঙ্গ করে গ্রাহকরা লাইনে দাড়িয়েছে।বিষয়টি তার নজরে আসতেই সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য আহ্বান করা হয়।কিন্তু কোন গ্রাহকই তার অনুরোধ মানেননি।রায়গঞ্জ পৌরসভার  পৌরপিতা সন্দীপ বিশ্বাসকে টেলিফোনে এব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানিয়েছেন,সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার দায়িত্ব ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের।তিনি বিষয়টি নিয়ে ব্যাঙ্ক কতৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলবেন। Uttam Paul
Published by:Elina Datta
First published:

Tags: Corona, Corona outbreak, Corona state lock down, Coronavirus, COVID-19

পরবর্তী খবর