Home /News /north-bengal /
Bangla news: কংগ্রেসের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ! মহকুমা পরিষদে বাম-কংগ্রেসের আসন রফা অথৈ জলে

Bangla news: কংগ্রেসের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ! মহকুমা পরিষদে বাম-কংগ্রেসের আসন রফা অথৈ জলে

কংগ্রেসের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ! মহকুমা পরিষদে বাম-কংগ্রেসের আসন রফা অথৈ জলে

কংগ্রেসের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ! মহকুমা পরিষদে বাম-কংগ্রেসের আসন রফা অথৈ জলে

Bangla news: গ্রাম পঞ্চায়েত এবং পঞ্চায়েত সমিতিতে আসন রফা হয়েছে, মহকুমা পরিষদ নিয়ে ফের আলোচনা হবে, দাবি দু'পক্ষেরই!

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: এ এন হয়েও হল না! আলোচনার পর আলোচনা, তবুও রফা জটমুক্ত হল না। আবার আশাও ছাড়ছে না দু'পক্ষ। মুখে রফার গুরুত্বের কথা স্বীকার করলেও কার্যক্ষেত্রে সংগঠনের কথা মাথায় রেখে পিছু হঠতে হচ্ছে। এখন মাঝে বাকি আর ১ দিন। শনিবার প্রত্যাহারের দিন। জট কি কাটবে? স্পষ্ট উত্তর নেই কারোর কাছেই। তাহলে কি পুরভোটের পর পঞ্চায়েতেও ধাক্কা খাবে "শিলিগুড়ি মডেল"?

শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের নির্বাচনেও বাম ও কংগ্রেসের আসন রফা হল না! বমেদের জন্যে ২টি আসন ছাড়লো কংগ্রেস। ৭টিতে লড়ছে কংগ্রেস। আজ চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করলো কংগ্রেস। বামেদের জন্যে নকশালবাড়ি এবং খড়িবাড়ি ছেড়েছে কংগ্রেস। অন্যদিকে কংগ্রেসের জন্যে ফাঁসিদেওয়ার ১টি আসন ছেড়ে ৮টিতে লড়ছে বামেরা। তবে গ্রাম পঞ্চায়েত এবং পঞ্চায়েত সমিতিতে আসন রফা হয়েছে বলে দাবি দু'পক্ষের।

আজ সাংবাদিক সম্মেলন করে জেলা কংগ্রেস সভাপতি শঙ্কর মালাকার জানান, "প্রকৃত আসন রফা হয়নি। আমরা ৩টি আসন চেয়েছিলাম। ১টি দিয়েছে বামেরা। আমরা ওদের ২টি আসন ছেড়েছি। আসন রফা হলে তৃণমূল এবং বিজেপিকে হারানো সম্ভব হত। কেননা এককভাবে বাম এবং কংগ্রেসের পক্ষে জিতে আসা সম্ভব নয়। ফের আলোচনায় বসে সমাধানের চেষ্টা চালানো হবে। দ্রুত দুই শিবিরের বৈঠক হবে। তবে আসন রফা করে লড়লে চাপে পড়তো তৃণমূল এবং বিজেপি।"

আরও পড়ুন- বাংলায় কড়া নাড়ছে বর্ষা! মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে প্রবল বৃষ্টির সম্ভাবনা উত্তরবঙ্গে, দক্ষিণে কবে স্বস্তির বৃষ্টি

অন্যদিকে বামেদের গলাতেও একই সুর। জেলা বাম আহ্বায়ক জীবেশ সরকার জানান, নির্বাচন মানে যুদ্ধ। তার কৌশল ঠিক করতে আলোচনা হয়েছে। ফের আলোচনা হবে। তারপরই চূড়ান্ত কৌশল নেওয়া হবে। আপাতত ৯টির মধ্যে ৩টি আসনে সমঝোতা হয়েছে। দুটিতে বামেরা এককভাবে এবং ১টিতে কংগ্রেস লড়বে।

মহকুমা পরিষদে ২০১৫-তে ৯টির মধ্যে ৬টি পায় বামেরা। তৃণমূল পায় ৩টি আসন। পরবর্তী এক বাম নির্বাচিত প্রতিনিধি যোগ দেয় তৃণমূলে। তবে বোর্ড দখল করতে পারেনি। তবে বাম এবং কংগ্রেসের দখলে থাকা একাধিক গ্রাম পঞ্চায়েত এবং পঞ্চায়েত সমিতি দল ভাঙিয়ে দখল নেয় তৃণমূল।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:

Tags: Congress

পরবর্তী খবর