Voter Cards Found: পুকুরের ধারে উদ্ধার ৬২টি ভোটার কার্ড! শুরু রাজনৈতিক তরজা

উদ্ধার হওয়া ভোটার কার্ড।

উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ ব্লকের তিন নম্বর ওয়ার্ডে বনকালী এলাকায় একটি পুকুরের ধার থেকে উদ্ধার প্রচুর ভোটার সচিত্র পরিচয়পত্র (Voter Cards Found)।

  • Share this:

#কালিয়াগঞ্জ: উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ ব্লকের তিন নম্বর ওয়ার্ডে বনকালী এলাকায় একটি পুকুরের ধার থেকে উদ্ধার প্রচুর ভোটার সচিত্র পরিচয়পত্র (Voter Cards Found)। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছায় কালিয়াগঞ্জ থানার পুলিশ। পুলিশ ভোটার সচিত্র পরিচয়পত্র উদ্ধার করে থানায় নিয়ে এসেছে। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক চাপানউতোর শুরু হয়েছে।

বিজেপির অভিযোগ, বিধানসভা ভোটে বিজেপি প্রার্থীকে পরাস্ত করতে জাল ভোটার কার্ড মজুত করেছিল শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী পরাজিত হবার পর এই সচিত্র পরিচয়পত্র কার্যকারিতা হারিয়ে ফেলেছে। তাই মজুত থাকা সচিত্র পরিচয়পত্র গুলো পুকুরের ধারে ফেলে দিয়ে গেছে। ঘটনার তদন্তের দাবি করেছে। বিজেপির অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূল কংগ্রেস নেতার অভিযোগ, বিজেপি অভিযোগ সর্বস্ব দল। তারা তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেই রাজনীতি করে। পরীক্ষায় পাশ করার জন্য চুরি করে। কালিয়াগঞ্জের বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপি চুরি করে জয়ী হয়েছেন বলে অভিযোগ।

আরও পড়ু: ঝোপের ভিতর উদ্ধার মহিলার কঙ্কাল! করোনায় মৃতকে পুড়িয়ে ফেলা?

সোমবার সকালে উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ ব্লকের বনকালী এলাকার একটি পুকুরে ধারে রাস্তার ধারে বেশ কিছু ভোটার সচিত্র পরিচয়পত্র এলাকার বাসিন্দারা পরে থাকতে দেখেন। প্লাষ্টিকের ক্যারিব্যাগে এই পরিচয়পত্রগুলো কেউ বা কারা সেখানে ফেলে রেখে যায়। কালিয়াগঞ্জ থানার পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয়। ফেলে দেওয়া ভোটার সচিত্র পরিচয়পত্র গুলো পুলিশ বাজেয়াপ্ত করে থানায় নিয়ে। কালিয়াগঞ্জ থানার আই সি জানিয়েছেন, ৬০ থেকে ৬২ টি কার্ড উদ্ধার হয়েছে। তদন্ত শুরু হয়েছে। কী ভাবে এই ভোটার সচিত্র পরিচয়পত্র গুলো এখানে এল তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

উদ্ধার হওয়া পরিচয়পত্রের অধিকাংশ কালিয়াগঞ্জ ব্লকের নয় নম্বর বরুনা অঞ্চলের বাসিন্দাদের। বিজেপির অভিযোগ, বিধানসভা নির্বাচনে কালিয়াগঞ্জের মানুষ বিজেপিকে সমর্থন করায় এ ধরনের ভুয়ো পরিচয়পত্রে কাজ করতে পারে শাসক তৃণমূল কংগ্রেস। পুলিশ ঘটনার তদন্ত করে অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবি করেছেন তাঁরা। তৃণমূল কংগ্রেস সমস্ত অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে।

Published by:Raima Chakraborty
First published: