পাহাড়ের রাজনীতিতে মোড় বদল-বিনয়দের দলে টেনে গুরুংয়ের পাল্টা প্যাচ দেবে বিজেপি ?

পাহাড়ের রাজনীতিতে মোড় বদল-বিনয়দের দলে টেনে গুরুংয়ের পাল্টা প্যাচ দেবে বিজেপি ?

বিনয়পন্থী মোর্চা শিবিরের কেন্দ্রীয় কমিটির অবশ্য দাবি, বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখানো হচ্ছে, বিনয়পন্থী মোর্চা নেতারা বিজেপির সঙ্গে হাত মেলাচ্ছেন। এই খবর ভিত্তিহীন ও ভুয়ো। এই খবরের সত্যতা নেই।

বিনয়পন্থী মোর্চা শিবিরের কেন্দ্রীয় কমিটির অবশ্য দাবি, বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখানো হচ্ছে, বিনয়পন্থী মোর্চা নেতারা বিজেপির সঙ্গে হাত মেলাচ্ছেন। এই খবর ভিত্তিহীন ও ভুয়ো। এই খবরের সত্যতা নেই।

  • Share this:

    #দার্জিলিং: পাহাড়ের রাজনীতির হাওয়া বদলে গিয়েছে। বিজেপিকে ছেড়ে তৃণমূলের হাত ধরেছেন বিমল গুরুং। সূত্রের খবর, তারপর থেকেই বিনয় তামাংরা নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন পদ্মশিবিরের সঙ্গে। বিজেপিতে তাঁদের নাম লেখানো নাকি শুধু সময়ের অপেক্ষা। রাজনৈতিক মহলে প্রশ্ন, তাহলে কি বিনয় তামাং-ও যোগ দিচ্ছেন বিজেপিতে? তবে বিনয়পন্থী মোর্চা শিবিরের কেন্দ্রীয় কমিটির দাবি, এই খবরের কোনও সত্যতা নেই।

    পাহাড়ের রাজনৈতিক সমীকরণ হঠাৎ বদলে গিয়েছে। আড়ি ছেড়ে এখন তৃণমূলের সঙ্গে ভাব বিমল গুরুং-রোশন গিরিদের। তারপরে মঙ্গলবার জলপাইগুড়িতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভা। মঙ্গলবার বিনয়পন্থী মোর্চা নেতা অনীত থাপা ফেসবুকে পোস্ট করেন,গোর্খাদের সমস্যা বোঝেন মমতা। উন্নয়নের পথে এগোচ্ছে পাহাড়। পাহাড়ে শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষাই প্রধান লক্ষ্য।

    কিন্তু সূত্রের খবর, বিনয় শিবির ঘুরছে। ঘাসফুল ছেড়ে পদ্মশিবিরের সঙ্গে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে তারা। মঙ্গলবার রাত থেকে কলকাতায় বিনয় তামাং। বিনয়ের অনুগামীদের সঙ্গে বিজেপি নেতৃত্বের নিয়মিত যোগাযোগ হচ্ছে। মুকুল রায়ের উপস্থিতিতেই বিনয় অনুগামী কয়েকজনের বিজেপিতে যোগ দেওয়ার কথা থাকলেও তা পিছিয়ে গিয়েছে।

    পিছিয়ে গিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে সুভাষ ঘিসিংয়ের তৈরি জিএনএলএফের বৈঠকও। সূত্রের খবর, বুধবার দিল্লিতে শাহ-জিএনএলএফ বৈঠক হয়নি ৷ অমিত শাহ সময় দিতে না পারায় বৈঠক হয়নি ৷  সূত্রের খবর, পশ্চিমবঙ্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত এক বিজেপি নেতারও ওই বৈঠকে থাকার কথা ছিল ৷  তিনিও সময়ে পৌঁছতে না পারায় দিল্লির বৈঠক হয়নি ৷

    সূত্রের খবর, পাহাড়ের রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে এখনও ধোঁয়াশা থাকাতেই ওই বৈঠক পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। তথ্য বলছে,  ২০০৯, ২০১৪ ও ২০১৯ তিন লোকসভা ভোটেই বিজেপি সাংসদ পেয়েছে পাহাড় ৷ ২০১৯ সালে বিধানসভা উপনির্বাচনে জেতেন বিজেপি প্রার্থী ৷ লোকসভা ভোটের নিরিখে পাহাড়ে ৩ বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপি-ই এগিয়ে ছিল ৷

    আবার পাহাড়ে বিমল গুরুং। ইতিমধ্যেই পাহাড়ে সভা করেছেন রোশন গিরি। একই দিনে পালটা সভা করেন অনীত থাপাও। গুরুং শিলিগুড়ির সভার পরে ২০ ডিসেম্বর সভা করবেন পাহাড়ে। তার আগেই কি পাহাড়ের রাজনীতির মোড় বদল হয়ে যাবে? তবে, বিনয়পন্থী মোর্চা শিবিরের কেন্দ্রীয় কমিটির দাবি, বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখানো হচ্ছে, বিনয়পন্থী মোর্চা নেতারা বিজেপির সঙ্গে হাত মেলাচ্ছেন। এই খবর ভিত্তিহীন ও ভুয়ো। এই খবরের সত্যতা নেই। কেশবরাজ পোখরেল, মুখপাত্র, বিনয়পন্থী মোর্চা শিবিরের কেন্দ্রীয় কমিটি ৷ শীতের পাহাড়ের নিস্তব্ধতা রাজনৈতিক শোরগোলে খানখান।

    Published by:Siddhartha Sarkar
    First published: