Amit Shah in Darjeeling: নিঃস্তব্ধ প্রতিবাদে মমতা, 'দিদি'র হাত থেকে দার্জিলিং 'বাঁচাবেন' অমিত শাহ!

Amit Shah in Darjeeling: নিঃস্তব্ধ প্রতিবাদে মমতা, 'দিদি'র হাত থেকে দার্জিলিং 'বাঁচাবেন' অমিত শাহ!

পাহাড়ের উন্নয়নে সওয়াল অমিতের

এবারের পাহাড়ে বদলে গিয়েছে রাজনৈতিক সমীকরণ। বিজেপির বহুদিনের 'বন্ধু' বিমল গুরুঙ্গ বহুদিন পর পাহাড়ে ফিরেছেন ঠিকই, তবে তিনি এবার তৃণমূলকে জেতাতে পণ করেছেন।

  • Share this:

    #দার্জিলিং: প্রচারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন (Election Commission)। আর সেই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে একলা কলকাতার গান্ধীমূর্তির পাদদেশে ধর্নায় বসেছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। আর ঠিক সেই সময়ই দার্জিলিংয়ে গিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ (Amit Shah) দাবি করলেন, 'পাহাড়ের বর্তমান নষ্ট করে দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু বিজেপি ভবিষ্যৎ নষ্ট করতে দেবে না। শিক্ষা থেকে পাণীয় জল, কোনও কিছুতেই আর ভুগতে হবে না আমার গোর্খা ভাই-বোনদের।'

    শুধু তাই নয়, অমিতের সংযোজন, 'কেন্দ্র সরকারে বিজেপি, এবার বাংলায় BJP ক্ষমতায় এলেই গোর্খাদের আর কিছু নিয়ে ভাবতে হবে না। এতদিনের না মেটা সমস্ত সমস্যার সমাধান করা হবে। বিজেপির সঙ্গে গোর্খাদের সম্পর্ক অত্যন্ত পবিত্র। বিজেপি ক্ষমতায় আসা মাত্রই ১১ গোর্খা জনজাতিকে তফশিলি সম্প্রদায়ের তকমা দেওয়া হবে। গোর্খা ভাষাকে আমরা সরকারি ভাষার স্বীকৃতি দেব। এমনকী প্রসারভারতী, দূরদর্শনে নেপালি ভাষার অনুষ্ঠান সম্প্রচার করা হবে।'

    প্রসঙ্গত, এবারের পাহাড়ে বদলে গিয়েছে রাজনৈতিক সমীকরণ। বিজেপির বহুদিনের 'বন্ধু' বিমল গুরুঙ্গ বহুদিন পর পাহাড়ে ফিরেছেন ঠিকই, তবে তিনি এবার তৃণমূলকে জেতাতে পণ করেছেন। পাহাড়ের তিনটি আসনই গোর্খা জনমুক্তি মোর্চাকে ছেড়ে দিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই পরিস্থিতিতে পাহাড়ও আর 'নিরাপদ' নয় বিজেপির কাছে। তাই সোমবার প্রথমে কালিম্পং, আর মঙ্গলবার দার্জিলিংয়ে গিয়েও প্রতিশ্রুতির বন্যা বইয়ে দিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

    কংগ্রেস-বাম-তৃণমূলকে এক আসনে রেখে শাহ বলেন, 'গত ৭০ বছরে দার্জিলিঙের কোনও উন্নয়নই হয়নি। কংগ্রেস, বাম, দিদি সকলে দার্জিলিঙের উন্নয়নে ফুলস্টপ লাগিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু আর চিন্তার কিছু নেই। আগামী ২ মে দার্জিলিঙে অকাল দীপাবলি হবে। আর আগুন জ্বলবে না। কারণ বিজেপি দুশোরও বেশি আসনে জিততে চলেছে বাংলায়।'

    প্রসঙ্গত, এদিন বারবার উন্নয়নের কথা বললেও পৃথক গোর্খাল্যান্ডের দাবি নিয়ে স্পষ্ট করে কিছুই বলেননি অমিত শাহ। রাজনৈতিক মহলের মতে, গোর্খাল্যান্ডের বিষয়ে এখনই কোনও মন্তব্য করতে চাইছেন না বিজেপি নেতারা। তাতে ফল হিতে বিপরীত হতে পারে। তাই উন্নয়নের স্বপ্ন ফেরি করলেও গোর্খাল্যান্ড নিয়ে মুখ বন্ধই রাখলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

    Published by:Suman Biswas
    First published: