তৃণমূল কংগ্রেস অন্তর্জলি যাত্রার পথে চলছে, কটাক্ষ প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চোধুরীর

একেবারে রণংদেহী মূর্তিতে তৃণমূল কংগ্রেস ও দল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি তীব্র ক্ষোভ ধরা পড়ে কংগ্রেস সাংসদের গলায়৷

একেবারে রণংদেহী মূর্তিতে তৃণমূল কংগ্রেস ও দল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি তীব্র ক্ষোভ ধরা পড়ে কংগ্রেস সাংসদের গলায়৷

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: " মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল তৃণমূল কংগ্রেস অন্তর্জলি যাত্রার পথে চলেছে। প্রতিদিন তাদের দলেরই মন্ত্রী নেতারা এখন দলের বিরুদ্ধে  বিদ্রোহ, ক্ষোভ এবং রোষ উগরে দিচ্ছেন "। রায়গঞ্জে দলীয় এক কর্মসূচিতে যোগ দিতে এসে সাংবাদিক সম্মেলনে এমনই মন্তব্য করেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি তথা লোকসভার কংগ্রেসের দলনেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী।

এদিকে আজ, সোমবার, মেদিনীপুরের জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে তৃণমূল সুপ্রিমো তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় তৃণমূলকে রক্ষক, বিজেপিকে ভক্ষক এবং কংগ্রেস দলকে তক্ষক বলে অভিহিত করেন৷ এই প্রসঙ্গে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী বলেন, পশ্চিমবঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পুলিশ,  সিআইডির কঙ্কাল ঘটনার তদন্তের দায়িত্বে ছিলেন।  রাজ্য সরকার কেন সেই তদন্তে ব্যর্থ হল সেই প্রশ্নই উঠে এসেছে। আসলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল তৃণমূল কংগ্রেস এখন অন্তর্জলি যাত্রার পথে চলেছে।  তাঁর দলের নেতা মন্ত্রী বিধায়ক এখন বিক্ষোভ করছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উচিত অন্যের দিকে আঙুল না তুলে নিজের দিকেই আঙুল তুলে পর্যবেক্ষণ করার। বুদ্ধিমতিরর মতো কাজ করতেন যদি আত্মসমালোচনা করে মানুষের কাছে ক্ষমা চেয়ে ভোট চাইতেন৷ এমনই জানান অধীর চৌধুরী৷

প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী আরও গুরুতর অভিযোগ করে বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরেই রাজ্যে ঢুকেছে বিজেপি৷ অধীরের অভিযোগ যে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই নাকি লাল কার্পেট পেতে গেরুয়া শিবিরকে রাজ্যে নিয়ে এসেছেন৷ এমনকি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিজেপির দালাল বলেই তীব্র কটাক্ষ করেন অধীরবাবু৷ তাঁর আরও অভিযোগ যে ধর্মনিরপেক্ষ দল কংগ্রেস ও বামফ্রন্টকে কোণঠাসা করতে পুলিশের সাহায্য নিচ্ছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। অধীর রঞ্জন চৌধুরীর দাবি যে, দল ভাঙানোর খেলা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরেই শুরু হয়েছে৷ এদিন সাংবাদিক সম্মলনে একেবারে রণংদেহী মূর্তিতে তৃণমূল কংগ্রেস ও দল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি তীব্র ক্ষোভ ধরা পড়ে কংগ্রেস সাংসদের গলায়৷

Published by:Pooja Basu
First published: