উত্তরবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

ভিখারিনী মায়ের মৃতদেহ চার দিন আগলে রাখল ছেলে! রবিনসন স্ট্রিটের পুনরাবৃত্তি বাংলায়

ভিখারিনী মায়ের মৃতদেহ চার দিন আগলে রাখল ছেলে! রবিনসন স্ট্রিটের পুনরাবৃত্তি বাংলায়
দুগন্ধেই একে একে জমা হন এলাকাবাসীরা।

দুর্গন্ধে এলাকার মানুষ ওই বাড়িতে পৌছলে বিষয়টি জানাজানি হয়।

  • Share this:

#চোপড়া: পার্কস্ট্রিট কাণ্ডের ছায়া এবার চোপড়ায়। মায়ের মৃতদেহ  চারদিন ঘরের মধ্যে রাখলেন উত্তর দিনাজপুর জেলার চোপড়া থানার সুভাষনগর গ্রামে। দুর্গন্ধে এলাকার মানুষ ওই বাড়িতে পৌছলে বিষয়টি জানাজানি হয়।

পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে ইসলামপুর হাসপাতাল মর্গে নিয়ে গেছে।মৃতার ছেলের দাবি, মৃত্যুর পর প্রতিবেশী একজনকে জানানো হয়েছিল। সে তার কথায় আমল না দেওয়ায় দেহ ঘরেই রেখে দিয়েছিলেন।

জানা গিয়েছে, চোপড়া ব্লকের সুভাষনগরের বাসিন্দা কুসুম চক্রবর্তী। এক ছেলে রামকৃষ্ণ চক্রবর্তী। মা ভিক্ষাবৃত্তি করে এনে ছেলেকে খাওয়াত। ছেলে রামকৃষ্ণ চক্রবর্তী মানসিক ভারসাম্যহীন। প্রতিবেশীর সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন না মা ছেলে কেউই।

দিন চারেক আগে  অশতিপর বৃদ্ধা কুসুমদেবীর মৃত্যু হয়। প্রতিবেশীদের সঙ্গে তার যোগাযোগ না থাকায় রামকৃষ্ণবাবু মায়ের মৃত্যুর খবর কাউকে জানায়নি। এলাকার এক বাসিন্দাকে ঘটনাটি জানালেও সে তার কথায় আমল দেয় নি বলে অভিযোগ। প্রতিবেশীদের কাছ থেকে সাহায্য না পেয়ে মায়ের দেহ ঘরেই রেখে দিয়েছেন।আজ এলাকায় পচা দুর্ঘন্ধ পেয়ে এলাকার বাসিন্দারা রামকৃষ্ণের কাছে এসে মায়ের খোঁজ নেন। তখনই ঘটনাটি জানাজানি হয়।এলাকার মানুষ চোপড়া থানার পুলিশকে খবর দেয়।

স্থানীয় বাসিন্দা নিখিল মন্ডল জানান, বৃদ্ধা ভিক্ষাবৃত্তি করে দিন যাপন করতেন। প্রতিবেশীদের সঙ্গে খুব বেশী তাদের যোগাযোগ নেই। বেশ কয়েকদিন যাবদ বৃদ্ধাকে দেখাও যাচ্ছে না। আজ এলাকায় দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়তেই প্রতিবেশী বৃদ্ধার ছেলেকে গিয়ে জিজ্ঞাসা করতেই আসল ঘটনাটি জানা যায়।মৃতার ছেলে রামকৃষ্ণ চক্রবর্তী জানান, প্রতিবেশীরা তার কথায় গুরুত্ব না দেওয়াতেই মৃতদেহ ঘরেই রেখে দিয়েছিলেন।পচা দুর্গন্ধ ছড়ালেও তাতে তার কোন সমস্যা হয় নি। পুলিশ এসে পচাগলা দেহ উদ্ধার করে।

পুলিশ দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ইসলামপুর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে চোপড়া থানার পুলিশইসলামপুর পুলিশ সুপার শচীন মক্কার জানিয়েছেন, ঘটনার খবর পেয়েই চোপড়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছায়। দেহ পুরোপুরি পচে গেছে। প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে অশতিপর বৃদ্ধার স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ মৃত্যুর কারন নিশ্চিত হতে দেহ ময়নাতদন্তের জন্য ইসলামপুর মর্গে পাঠিয়েছেন। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে আসার পর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

Published by: Arka Deb
First published: January 10, 2021, 6:26 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर