corona virus btn
corona virus btn
Loading

তীব্র জলস্রোতে ফাঁসিদেওয়ায় ভেসে গেল সেতু! গর্ভবতীদের নিয়ে দুশ্চিন্তায় কয়েকহাজার মানুষ

তীব্র জলস্রোতে ফাঁসিদেওয়ায় ভেসে গেল সেতু! গর্ভবতীদের নিয়ে দুশ্চিন্তায় কয়েকহাজার মানুষ
এই ব্রিজ ভাঙার পরেই গোটা গ্রাম বিচ্ছিন্ন হয়েছে।

যোগাযোগের মূল পথটিই বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ায় দুশ্চিন্তায় রয়েছেন গ্রামবাসীরা।

  • Share this:

ফাঁসিদেওয়া: অবিরাম বৃষ্টির জের। তীব্র জলস্রোতে এবার ভেসে গেল সেতু। বিপাকে কয়েক হাজার গ্রামবাসী। ঘটনাটি শিলিগুড়ি মহকুমার ফাঁসিদেওয়া ব্লকের বাওকালি ও তারবান্দা এলাকার।

গত বছরেই প্রবল বৃষ্টিতে আংশিক ক্ষতিগ্রস্থ হয় সেতুটি। সংস্কারের জন্যে বারংবার ফাঁসিদেওয়ার বিডিও সহ পঞ্চায়েত প্রতিনিধিদের কাছে জানানো হয়েছিল। কিন্তু প্রশাসন নড়েচড়ে বসেনি।

আজ সকালে ভেসে যায় সেতুটি বলে অভিযোগ গ্রামবাসীদের। যোগাযোগের মূল পথটিই বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ায় দুশ্চিন্তায় রয়েছেন গ্রামবাসীরা। গ্রামে বেশ কয়েকজন প্রসূতি রয়েছেন। যাদের দিন কয়েকের মধ্যে হাসপাতালে ভর্তি করানোর কথা।  তাদের কোন পথে উত্তরবঙ্গ মেডিকেলে ভর্তি করানো হবে, এই প্রশ্নই ভাবাচ্ছে গ্রামবাসীদের।

এমনকী সামান্য অসুস্থ হলেও স্বাস্থ্য কেন্দ্রে যাওয়ার বিকল্প পথ নেই। রাতবিরেতে ওষুদের প্রয়োজন হলেও উপায় দেখতে পারছেন না। নদীতে গলা পর্যন্ত জল। এলাকায় কিছু ছোটো চা বাগান রয়েছে। পাতা তুলে বটলিফ ফ্যাক্টরী পর্যন্ত পৌঁছনরও উপায় নেই। সব মিলিয়েই মহা বিপাকে বাওকালি, তারবান্দা এলাকার হাজার হাজার বাসিন্দা।

শনিবার রাতভর বৃষ্টির জেরে পাহাড়ী ঝোড়া আর বুড়ি বালাসন নদীর জলস্রোতে ভেসে যায় সেতুটি। বাওক্সলি এবং তারবান্দার মধ্যে একমাত্র সংযোগকারী সেতু এটি। এলাকাবাসী মনে করছেন, যুদ্ধকালীন তৎপরতায় সেতু সংস্কার না হলে সমস্যা আরও বাড়বে।

অন্য দিকে প্রবল বৃষ্টির জেরে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে জাতীয় সড়কের কালভার্টও। বাগডোগরা বিমানবন্দরের কাছে ভুট্টাবাড়িতে ৩১ নং জাতীয় সড়কের ওপর কালভার্ট ভেঙে পড়ায়  বন্ধ রাখতে হয়েছে জাতীয় সড়ক। ফলে আজ সারাদিনই যান চলাচল ব্যহত হয়।

শিলিগুড়ি ও কলকাতার মধ্যে ঘুর পথে চলছে দূরপাল্লার সরকারী এবং বেসরকারী বাস। বৃষ্টি কমলে কালভার্ট সংস্কার করা হবে বলে জানিয়েছেন এক পুলিশ কর্তা। আপাতত শিলিগুড়ি থেকে ফুলবাড়ি-ঘোষপুকুর এবং নকশালবাড়ি ছুঁয়ে খড়িবাড়ি হয়ে গাড়ি চলাচল করবে।

দ্রুত কালভার্ট সংস্কার করা হবে বলে পূর্ত দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে। ফোর লেনের কাজ চলছে সেখানে। গত সপ্তাহের ভারী বৃষ্টিতে আংশিক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল এই কালভার্টটি। কিন্তু লাগাতার বৃষ্টির জেরেই সংস্কারের কাজ শুরু করা সম্ভব হচ্ছে না।

Published by: Arka Deb
First published: July 12, 2020, 4:17 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर