• Home
  • »
  • News
  • »
  • north-bengal
  • »
  • ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কে ৩০০ গ্রাম সোনা উদ্ধার

৩১ নম্বর জাতীয় সড়কে ৩০০ গ্রাম সোনা উদ্ধার

দুটো নাগাদ একটি  নম্বরবিহীন নতুন অটো রিক্সা সেই পথ দিয়ে যাচ্ছিল।কর্তব্যরত পুলিশ কর্মীরা সেই গাড়ি তল্লাশি চালাতেই ৫০ পিস সোনার বাট উদ্ধার হয়।

দুটো নাগাদ একটি নম্বরবিহীন নতুন অটো রিক্সা সেই পথ দিয়ে যাচ্ছিল।কর্তব্যরত পুলিশ কর্মীরা সেই গাড়ি তল্লাশি চালাতেই ৫০ পিস সোনার বাট উদ্ধার হয়।

দুটো নাগাদ একটি নম্বরবিহীন নতুন অটো রিক্সা সেই পথ দিয়ে যাচ্ছিল।কর্তব্যরত পুলিশ কর্মীরা সেই গাড়ি তল্লাশি চালাতেই ৫০ পিস সোনার বাট উদ্ধার হয়।

  • Share this:

#ইসলামপুর:  বড়সড় সাফল্য পেল উত্তর দিনাজপুর জেলার ইসলামপুর পুলিশ। ইসলামপুর থানার রামগঞ্জ এলাকায় একটি নম্বরবিহীন অটো রিক্সা থেকে উদ্ধার হল আট কেজি ৩০০ গ্রাম সোনা! গ্রেফতার হল মহারাষ্ট্রের দুই বাসিন্দা সহ তিনজন। উদ্ধার হওয়া সোনার বাজার মূল্য প্রায় চার কোটি টাকা বলে হিসেব বলছে! ধৃত তিনজনকেই বুধবার ইসলামপুর আদালতে হাজির করলে বিচারক দশদিনের পুলিশ হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন।

জানা গিয়েছে, অন্য দিনের মত মঙ্গলবার রাতে ইসলামপুর থানার রামগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ি থেকে ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কে নাকা চেকিং করা হচ্ছিল। রাত দুটো নাগাদ একটি  নম্বরবিহীন নতুন অটো রিক্সা সেই পথ দিয়ে যাচ্ছিল।কর্তব্যরত পুলিশ কর্মীরা সেই গাড়ি তল্লাশি চালাতেই ৫০ পিস সোনার বাট উদ্ধার হয়। এই বিপুল পরিমান সোনার বৈধ কাগজপত্র দেখাতে না পারায় পুলিশ অটো চালক সহ তিনজনকে গ্রেফতার করে। জেলার পুলিশ সুপার শচিন মক্কার জানিয়েছেন, সোনাগুলি আলিপুরদুয়ার থেকে বিহারের মজফরপুরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল বলে পুলিশ প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছে। ধৃত দু’জনের বাড়ি মহারাষ্ট্রে। ধৃতদের একজন হলেন হরিদাস ধনাওয়াদ অন্যজন অতুল রমেশ বাবর। ধৃত অটোচালকের নাম রুজেল আলি। অটো চালকের বাড়ি জলপাইগুড়ি জেলার ভক্তিনগর এলাকায়।

ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১৪ দিনের পুলিশ হেফাজতের আবেদন জানিয়ে ইসলামপুর মহকুমা আদালতে হাজির করালে বিচারক ১০ দিনের পুলিশ হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। এই বিপুল পরিমাণ সোনা কীভাবে তাদের কাছে এল, কারা এই চক্রে যুক্ত, সব খতিয়ে দেখছে পুলিশ।পুলিশের তদন্ত শুরু হয়েছে বলে পুলিশ সুপার জানিয়েছেন।

Published by:Pooja Basu
First published: