corona virus btn
corona virus btn
Loading

খেলার ছলে পেনসিল ব্যাটারি গিলে ফেলল ৩ বছরের শিশু, মালদহ মেডিক্যাল কলেজে সফল অস্ত্রপচার

খেলার ছলে পেনসিল ব্যাটারি গিলে ফেলল ৩ বছরের শিশু, মালদহ মেডিক্যাল কলেজে সফল অস্ত্রপচার

অস্ত্রপচার অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ব্যাটারি বের করে আনা সম্ভব হয়েছে। আপাতত শিশুটি বিপদ মুক্ত।

  • Share this:

Sebak DebSarma

#মালদহ:  তিন বছরের শিশুর শরীর থেকে বের হল টিভির রিমোটের ব্যাটারি। সফল অস্ত্রপচার করলেন মালদহ মেডিক্যাল কলেজের চিকিৎসকেরা। শিশুর শ্বাসনালীর পাশে আটকে গিয়েছিল ব্যাটারিটি। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, আপাতত বিপদ মুক্ত শিশু। তবে রাখা হয়েছে পর্যবেক্ষণে।

মালদহের হবিবপুরের কেন্দুয়া এলাকার বাসিন্দা তিন বছরের শিশু অনীক সরকার। বাড়িতে খেলার ছলে হঠাৎই টিভির রিমোটের একটি পেনসিল ব্যাটারি গিলে ফেলে ওই শিশু। ব্যাটারি শরীরের ভিতরে ঢুকে শ্বাসনালীর পাশে আটকে যায়। মূহূর্তের মধ্যে চরম যন্ত্রণায় কাহিল হয়ে পড়ে একরত্তি শিশু। পেশায় স্কুল শিক্ষক বাবা এবং গৃহবধূ মা প্রায় সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে নিয়ে যায় বুলবুলচণ্ডী গ্রামীণ হাসপাতালে। সেখান থেকে চিকিৎসকরা তাঁকে মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করে দেন। এরপর মালদহ শহরের এক নামী বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় শিশুকে। কিন্তু তাঁরাও কার্যত হাত তুলে নেয়।

এরপর শিশুকে আনা হয় মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। চিকিৎসকেরাও প্রথমে এতটুকু শিশুর পক্ষে ব্যাটারি গিলে ফেলা সম্ভব কিনা তা নিয়ে ধন্দ্বে পড়েন। শেষে এক্স রে করে শিশুর শরীরে ব্যাটারি ঢুকে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হয়। এরপর তড়িঘড়ি মালদহ মেডিক্যাল কলেজের চিকিৎসক, হাউস স্টাফ, ইন্টার্নদের একটি বিশেষ দল ওই শিশুর অস্ত্রপচার শুরু করেন। শরীরের ভিতর থেকে আস্ত ব্যাটারি বের করে আনা হয়। অস্ত্রপচার দলের নেতৃত্বে থাকা চিকিৎসক পার্থ প্রতীম মণ্ডল বলেন, অস্ত্রপচার অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ব্যাটারি বের করে আনা সম্ভব হয়েছে। আপাতত শিশুটি বিপদ মুক্ত।

তবে  পুরোপুরি স্বাভাবিক হতে আরও একটু সময় প্রয়োজন। শিশুর বাবা সঞ্জিত সরকার বলেন, সরকারি হাসপাতালে এমন চিকিৎসা পেয়ে আমি অভিভূত। বেসরকারি হাসপাতাল যখন ফিরিয়ে দিয়েছিল তখন ভেঙে পড়েছিলাম। পড়ে মনে হল ডাক্তার যেন ভগবান।

Published by: Simli Raha
First published: August 25, 2020, 7:39 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर