Home /News /north-bengal /
খালি পা, সঙ্গে ছোট বাচ্চা ! হেঁটে হরিয়ানা থেকে কালিয়াগঞ্জে ফিরলেন ২০ জন শ্রমিক !

খালি পা, সঙ্গে ছোট বাচ্চা ! হেঁটে হরিয়ানা থেকে কালিয়াগঞ্জে ফিরলেন ২০ জন শ্রমিক !

কারখানার মালিক তাঁদের আর সেখানে থাকতে দিচ্ছিলেন না। বাধ্য হয়েই হাঁটা শুরু করেন তাঁরা।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: প্রখর রৌদ্রে পায়ে হেঁটে বাড়ি ফিরলেন কালিয়াগঞ্জের পরিযায়ী শ্রমিকরা। গরমের রাস্তায় খালি পায়ে হেঁটে বাড়ি ফিরছেন উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ ব্লকের ২০ জন শ্রমিক। পরিযায়ী শ্রমিকদের দাবি লকডাউনের পর থেকে তাদের চরম কষ্টে দিন কাটছিল। নিরুপায় হয়েই  নিজেদের উদ্যোগে তাঁরা বাড়ি ফিরছেন।

উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ ব্লকের বাকচা, কুনোর, ডালিমগাঁও গ্রামের প্রায় ৩০ জন বাসিন্দা  হরিয়ানার যমুনানগরে প্লাইউডের কারখানায় শ্রমিকের কাজ করতে যান। তাঁদের মধ্যে ছিলেন বাকচা গ্রামের বাসিন্দা মুন্না রায়। গ্রামবাসিদের কাছ থেকে টাকা ধার করে মেয়ের বিয়ে দিয়েছিলেন। দিন আনা দিন খাওয়া পরিবার এলাকায় শ্রমিকের কাজ করে সেই টাকা শোধ করতে পারছিলেন না। পাওনাদাররাও টাকা শোধের জন্য তাকে নিয়মিত চাপ সৃষ্টি দিতে থাকে। বাধ্য হয়েই ভিন রাজ্যে গিয়ে কাজ করার পরিকল্পনা নেন মুন্না রায়। মাস সাতেক আগে গ্রামের  কয়েকজনের সঙ্গে হরিয়ানার দূর্গানগরে প্লাইউডের কারখানায় কাজ করতে যান। পরিকল্পনা অনুযায়ী সব ঠিকঠাক ছিল।সেখানে কাজ করে নিজের খরচ চালিয়ে বাড়িতেও ভাল টাকা পাঠাচ্ছিলেন।আচমকাই দেশে শুরু হয় লকডাউন।বন্ধ হয়ে যায় প্লাইউড কারখানা।কর্মহীন হয়ে পড়েন এই, কারখানার যুক্ত শ্রমিকরা।

লকডাউনের পর বেশ কিছুদিন নিজের উপার্জনের টাকা খরচ করার পর হাতে আর টাকা ছিল না।কারখানার মালিক তাঁদের আর সেখানে থাকতে দিচ্ছিলেন না।কালিয়াগঞ্জ ব্লকের প্রায় ৩০ জন শ্রমিকের মধ্যে ২০ জনের মত সেখান বাড়ি ফেরার সিদ্ধান্ত নেন। চার দিন আগে দূর্গানগর থেকে তাঁরা পায়ে হেঁটে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হন। তাদের দেখে বেশ কিছু জায়গায় পুলিশ তাঁদের গাড়িতে তুলে দেয়।  এভাবেই কোথাও গাড়ি কোথাও পায়ে হেঁটে তাঁরা আসছেন।রায়গঞ্জ শিলিগুড়ি মোড় থেকে পায়ে হেঁটেই কালিয়াগঞ্জে পৌছেছেন।রাস্তায় বেশ কিছু সংস্থার পক্ষ থেকে তাঁদের ভাত,খিচুড়ি,রুটি খাওয়ার ব্যবস্থা করেছিল।সেই খেয়েই তাঁরা বাড়ির কাছাকাছি পৌঁছেছেন।জীবনের এই করুণ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন মিঠু রায় এবং বিপ্লব। সন্তানকে কখনও কোলে কখন হাঁটিয়ে নিয়ে আসছেন।

UTTAM PAUL 

Published by:Piya Banerjee
First published:

Tags: Coronavirus, Lockdown, Migrant workers, North Bengal

পরবর্তী খবর