উত্তরবঙ্গ

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

গঙ্গা গিলে খেয়েছে আস্ত দোতলা বাড়ি, প্লাস্টিকের ছাউনির নীচে দিন কাটাচ্ছে অসহায় পরিবার

গঙ্গা গিলে খেয়েছে আস্ত দোতলা বাড়ি, প্লাস্টিকের ছাউনির নীচে দিন কাটাচ্ছে অসহায় পরিবার

চারটে বাঁশের ওপর বেঁধে রাখা একটা প্লাস্টিকের ছাউনি। ত্রিপলটুকুও জোটেনি শেখ পরিবারের কপালে। রান্না-বান্না, ঘর-কন্যা সবই চলছে প্লাস্টিকের আচ্ছাদনের নীচে।

  • Share this:

#মালদা: ঠিকানা বলতে খোলা আকাশের নীচে একটা ফিনফিনে পাতলা প্লাস্টিকের ছাউনি। মালদার বৈষ্ণবনগরের চিনাবাজার গ্রামের ইমানি শেখের সংসার বলতে এখন ওটাই। চারটে বাঁশের ওপর বেঁধে রাখা একটা প্লাস্টিকের ছাউনি। ত্রিপলটুকুও জোটেনি শেখ পরিবারের কপালে। রান্না-বান্না, ঘর-কন্যা সবই চলছে প্লাস্টিকের আচ্ছাদনের নীচে।

অথচ এমনটা হওয়ার কথা ছিল না। মালদার বৈষ্ণবনগরের কালিয়াচক ব্লকের চিনাবাজারে দোতলা পাকা বাড়ি ছিল ইমানি শেখদের। নদী ভাঙ্গনে সেই বাড়ি আজ গঙ্গার গ্রাসে। এক রাতেই ভিটে মাটি হারিয়েছেন মালদার কাঠ ব্যবসায়ী ইমানি শেখ। গভীর রাতে শুরু হয়েছিল নদী ভাঙ্গন। ৫০০ মিটার দূরে থাকা গঙ্গা হুড়মুড়িয়ে এগোতে শুরু করে হঠাৎ করেই। ধসিয়ে দেয় একের পর এক পাকা রাস্তা, বিদ্যুতের খুঁটি। হেলতে শুরু করে দোতলা পাকা বাড়ি।

প্রাণের ভয়ে কোলের সন্তানকে নিয়ে বেরিয়ে আসতে পেরেছিলেন ইমানি শেখ ও তার স্ত্রী মনজুরা বিবি। টাকা-পয়সা, আসবাবপত্র সব ছিল বাড়িতেই। চোখের সামনে গঙ্গা কেড়ে নিয়েছে সব। ভেজা চোখে দূরে দাঁড়িয়ে সারা জীবনের উপার্জনে খাড়া করা বাড়িটা ডুবতে দেখা ছাড়া উপায় ছিল না। প্রাণটুকু নিয়ে পরিবার সমেত আজ খোলা আকাশের নিচে প্লাস্টিকের আচ্ছাদনের আড়ালে মাথা গুঁজেছেন ইমানি ও মনজুরাদের মতো অনেকেই। ভবিষ্যৎ অন্ধকার! কী করবেন আর কী করবেন না, কিছুই বুঝে উঠতে পারছেন না!

নদী এক পাড় ভাঙ্গে, অন‍্য পাড় গড়ে। ইমানি শেখদের সব কুল গিয়েছে। ভিটে, জমি হারিয়ে ইমানিরা আজ নিঃস্ব। বৈষ্ণবনগরের চিনাবাজার গ্রামে এমন ছবি ঘরে ঘরে। নদীভাঙ্গনে সব হারিয়ে আজ ওরা সর্বস্বান্ত। দু'চোখে একরাশ শূণ‍্যতা। ভবিষ্যৎ আরও ঘোলা।

PARADIP GHOSH 

Published by: Shubhagata Dey
First published: September 20, 2020, 3:31 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर