Home /News /north-bengal /
Malda News || গঙ্গাভাঙন ঠেকাতে বরাদ্দ ১৭ কোটি, মালদহের মানিকচকে ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শনে প্রশাসনিক কর্তারা

Malda News || গঙ্গাভাঙন ঠেকাতে বরাদ্দ ১৭ কোটি, মালদহের মানিকচকে ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শনে প্রশাসনিক কর্তারা

Malda News || নারায়ণপুর এলাকায় ভাঙন ঠেকাতে জরুরি ভিত্তিতে ৫০ লক্ষ টাকার কাজের সূচনাও করা হয়।

  • Share this:

    #সেবক দেবশর্মা, মালদহ: মালদহের মানিকচকে গঙ্গাভাঙন ঠেকাতে ১৭ কোটি টাকা বরাদ্দ করল রাজ্য। আগামী ডিসেম্বর মাস থেকে স্থায়ীভাবে ভাঙনরোধের কাজ হবে মানিকচকের নারায়ণপুর ও বালুটোলা এলাকায়। তার আগে বর্ষার মরসুমে হঠাৎ শুরু হওয়া ভাঙনের প্রকোপ ঠেকাতে জরুরি ভিত্তিতে ৫০ লক্ষ টাকার কাজ শুরু করা হল। মানিকচকের ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করে এমনটাই জানিয়েছেন রাজ্যের সেচ প্রতিমন্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন।

    বর্ষার মরসুমে গঙ্গা নদীর জল বাড়তেই গত কয়েকদিন ধরে ভাঙন দেখা দিয়েছে মানিকচকের বিস্তীর্ণ এলাকায়। নারায়ণপুর এলাকায় গঙ্গানদীর ভাঙনে তলিয়ে গিয়েছে বছর দশেক আগে তৈরি হওয়া বোল্ডারের গার্ডওয়াল। ফলে লোকালয়ের দিকে এগোচ্ছে গঙ্গা। একইভাবে ভাঙন সমস্যায় জেরবার বালুটোলা এলাকাও। রবিবার বিকালে ভাঙন কবলিত এলাকা লঞ্চে ও পায়ে হেঁটে পরিদর্শন করেন রাজ্যের সেচ প্রতিমন্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন, মালদহের জেলাশাসক, পুলিশ সুপার, মানিকচকের বিধায়ক ও প্রশাসনিক কর্তারা। ভাঙন কবলিত এলাকার মানুষজনের সঙ্গেও কথা বলেন মন্ত্রী ও প্রশাসনিক কর্তারা। নারায়ণপুর এলাকায় ভাঙন ঠেকাতে জরুরি ভিত্তিতে ৫০ লক্ষ টাকার কাজের সূচনাও করা হয়। আপাতত নদীপাড়ে বালির বস্তা ফেলে ভাঙনের তীব্রতা কমানোর চেষ্টা হবে নারায়ণপুরে।

    ভাঙন কবলিত এলাকার মানুষ স্থায়ী সমাধানের দাবি তোলেন। মন্ত্রী জানান, ইতিমধ্যেই ১৭ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। বালুটোলায় ১০ কোটি টাকা এবং নারায়ণপুরের জন্য ৭ কোটি বরাদ্দ। বর্ষা মিটলেই আগামী ডিসেম্বর থেকে নারায়ণপুর ও বালুটোলা এলাকায় ভাঙনরোধের স্থায়ী কাজ শুরু করা হবে।

    আরও পড়ুন : মহারাষ্ট্র, ওড়িশা, কর্নাটক, রাজস্থানের বিস্তীর্ণ অংশে ভারী বৃষ্টি, জারি লাল ও কমলা সতর্কতা

    আরও পড়ুন :  ব্যাপক উত্তাল সমুদ্র, আবহাওয়ায় ব্যাপক রদবদল, বাংলার উপকূলে লাল সতর্কতা জারি

    ভাঙনরোধের কাজে বরাবরই ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে।  জেলাশাসক নীতিন সিংহানিয়া গ্রামবাসীদের আশ্বস্ত করে জানান, ভাঙনরোধের কাজে কোনওরকম দুর্নীতি বরদাস্ত করা হবে না। কাজের সময়সূচি গ্রামবাসীদের আগাম বুঝিয়ে দেবে ব্লক প্রশাসন। বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে নিয়ে কাজের গুণমান খতিয়ে দেখবেন বিডিও। পাশাপাশি স্থানীয় গ্রামবাসীরাও কাজের গুণমানের উপর নজর রাখতে পারবেন। কোথাও নিম্নমানের কাজ হলে প্রশাসন তৎক্ষণাৎ পদক্ষেপ করবে। ভাঙন ঠেকাতে প্রশাসন সক্রিয় হওয়ায় খুশি মানিকচকের নদীপাড়ের বাসিন্দারা। তবে তাঁদের দাবি, অবিলম্বে স্থায়ী কাজ করে সমস্যার দীর্ঘমেয়াদী সমাধান করা হোক।
    Published by:Rachana Majumder
    First published:

    Tags: Malda, Maldah news

    পরবর্তী খবর