corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা পজিটিভ ১২ বছরের কিশোরী, কন্টেইনমেন্ট জোন ঘোষণা করা হল আক্রান্তের বাড়ি

করোনা পজিটিভ ১২ বছরের কিশোরী, কন্টেইনমেন্ট জোন ঘোষণা করা হল আক্রান্তের বাড়ি

কলকাতায় চিকিৎসা করাতে গিয়ে রায়গঞ্জ সুর্দশনপুর এলাকার বাসিন্দা ১২ বছরের কিশোরীর শরীরে করোনা জীবানু ধরা পড়েছিল।

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: রায়গঞ্জে করোনায় আক্রান্ত ১২ বছরের কিশোরী ৷ করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসার পর তার বাড়ি কন্টেইনমেন্ট জোন ঘোষণা করল স্বাস্থ্য দফতর। এই পরিবারের সঙ্গে যাদের প্রত্যক্ষ যোগাযোগ ছিল তাদেরও হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দিল স্বাস্থ্য দফতর। কন্টেইনমেন্ট জোনের ভিতরে থাকার পরিবারের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেয় রায়গঞ্জ পৌরসভা।

কলকাতায় চিকিৎসা করাতে গিয়ে রায়গঞ্জ সুর্দশনপুর এলাকার বাসিন্দা ১২ বছরের কিশোরীর শরীরে করোনা জীবানু ধরা পড়েছিল।কিশোরীর পরিবার কলকাতা থেকে সোজা রায়গঞ্জ করোনা হাসপাতালে ভর্তি হন। মাকে সঙ্গে নিয়ে কিশোরী এখন রায়গঞ্জ কর্নজোড়ার করোনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এদিন ওই এলাকায় যান জেলা স্বাস্থ্য দফতর,রায়গঞ্জ পৌরসভার প্রতিনিধিরা এবং রায়গঞ্জ থানার পুলিশ প্রশাসন।

জেলা স্বাস্থ্য দফতরের নির্দেশে আক্রান্ত কিশোরীর বাড়ি কন্টেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষনা করেন পৌরসভার পৌরপতি সন্দীপ বিশ্বাস।বাড়িতে অসুস্থ ব্যক্তি থাকায় তাদের ওষুধপত্র সরবরাহের দায়িত্বভার তুলে নেয় রায়গঞ্জ পৌরসভা।এছাড়াও কন্টেইনমেন্ট জোনের আওতাধীন পরিবারের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়।আক্রান্ত কিশোরীর এলাকায় বাড়িতে বাড়িতে থার্মাল চেকিং করে পৌরসভার স্বাস্থ্য কর্মিরা।আক্রান্ত কিশোরীর বাবা এবং গাড়ির চালককে রায়গঞ্জ ষ্টেডিয়ামে রায়গঞ্জ পৌরসভার নিয়ন্ত্রনাধীন কয়োরেন্টাইন সেন্টারে আনা হয়েছে।

শনিবার তাদের লালারস সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।রায়গঞ্জ শহরে দুই নম্বর ওয়ার্ডে কিশোরীর শরীরে করোনা জীবানুর হদিস মেলার খবর ছড়িয়ে পড়তেই রায়গঞ্জ শহরের বাসিন্দাদের মধ্যে ব্যাপক আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে।পৌরপতি সন্দীপ বিশ্বাস জানিয়েছেন,আতঙ্কের কোন কারন নেই। সরকারি বিধি মেনে চলাফেরা করলে করোনার হাত থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।পৌর এলাকায় এক কিশোরীর শরীরে করোনা জীবানুর হদিশ পাওয়ার পর পৌরসভার পক্ষ থেকে গোটা এলাকা স্যানিটাইজ করা হয়েছে।পৌরসভা এই এলাকার মানুষদের প্রতি বিশেষ নজরদারি চালাবে।

Published by: Dolon Chattopadhyay
First published: June 7, 2020, 6:27 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर