• Home
  • »
  • News
  • »
  • north-bengal
  • »
  • লকডাউনের মধ্যেও শুরু পুকুর খননের কাজ, ১০০ দিনের প্রকল্পের ছাড়পত্র দেওয়ায় খুশি গ্রামীন এলাকার মানুষ

লকডাউনের মধ্যেও শুরু পুকুর খননের কাজ, ১০০ দিনের প্রকল্পের ছাড়পত্র দেওয়ায় খুশি গ্রামীন এলাকার মানুষ

লকডাউনের মধ্যেও রাজ্য সরকার  ১০০ দিনের প্রকল্পের ছাড়পত্র দেওয়ায় খুশি গ্রামীন এলাকার মানুষ।

লকডাউনের মধ্যেও রাজ্য সরকার ১০০ দিনের প্রকল্পের ছাড়পত্র দেওয়ায় খুশি গ্রামীন এলাকার মানুষ।

লকডাউনের মধ্যেও রাজ্য সরকার ১০০ দিনের প্রকল্পের ছাড়পত্র দেওয়ায় খুশি গ্রামীন এলাকার মানুষ।

  • Share this:

    #কালিয়াগঞ্জ: লকডাউনের মধ্যেও রাজ্য সরকার  ১০০ দিনের প্রকল্পের ছাড়পত্র দেওয়ায় খুশি গ্রামীন এলাকার মানুষ। কালিয়াগঞ্জ ব্লকের অনন্তপুর গ্রামের দাসিয়া পাড়ায় পুকুর খননের কাজ শুরু হয়েছে। গ্রামের ২০ জন দিন মজুর কাজ পাওয়ায় তাদের মুখে হাসি ফুটেছে। সারা দেশে করোনা ভাইরাসের থাবা বসানোয় দেশ জুড়ে লকডাউন চলছে। দীর্ঘ দেড়মাস লকডাউন চলাকালীন গ্রামের দিনমজুর মানুষের চরম আর্থিক সঙ্কটের মধ্য পড়তে হয়েছিল।রাজ্য সরকার লকডাউনের মধ্যেই গ্রামের দূরদশাগ্রস্থ মানুষের কথা ভেবে ১০০ দিনের প্রকল্পের ছাড়পত্র দিয়েছে। এই ছাড়পত্র পাওয়ার পরই উত্তর দিনাজপুর জেলায়  গ্রামপঞ্চায়েত গুলি এই প্রকল্পের কাজ শুরু করে। তার মধ্যে উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ ব্লকের অনন্তপুর গ্রাম পঞ্চায়েত। এই পঞ্চায়েতের অধীনে দাসিয়া পাড়ায় পুকুর খনন করে গ্রামের মাটির রাস্তা কাজ শুরু  হয়েছে। অনন্তপুর গ্রামপঞ্চায়েতের ১৩ টি জায়গায় এই প্রকল্পের কাজ চলছে। দাসিয়া গ্রামে প্রতিদিন ২০ জন শ্রমিক কাজ করছেন। ১১ দিন চলবে এই কাজ । চরম আর্থিক সংকটের সময় ১০০ দিনের প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ায় তাদের মুখে হাসি ফুটেছে। প্রতিদিন ২০৪ টাকা হাজিরায় কাজ করছেন। সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে মুখে মাস্ক পড়ে শ্রমিকরা কাজ করছেন। জিতেন বৌশ্য নামে এক বাসিন্দা জানিয়েছেন, তাদের মূল পেশা ঢাক বাজানো। লকডাউনের কারণে সমস্ত কাজ বন্ধ হয়েছিল। ফলে তাদের সংসার চালানো কষ্টকর হয়ে পড়েছিল। গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে তাদের কাজ সুযোগ করে দেওয়ায় সন্তানদের মুখে অন্য তুলে দিতে পারবেন। পঞ্চায়েতের এই কাজে তারা ব্যপক উপকৃত হলেন।

    Published by:Akash Misra
    First published: