হোম /খবর /উত্তর ২৪ পরগণা /
ওড়িশা থেকে বাংলায় ফিরল ৭ শ্রমিকের নিথর দেহ! কান্নায় ভেঙে পড়ল গ্রাম

North 24 Parganas News: ওড়িশা থেকে বাংলায় ফিরল ৭ শ্রমিকের নিথর দেহ! কান্নায় ভেঙে পড়ল গ্রাম

কান্নায় ভেঙে পড়ল গ্রাম

কান্নায় ভেঙে পড়ল গ্রাম

রাজ্য সরকার মৃতদের পরিবারে হাতে ২ লক্ষ টাকার চেক তুলে দেয়। পাশাপাশি আগামী দিনে সব রকম সাহায্য করার জন্য পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাসও দেয়।

  • Share this:

    বসিরহাট: ওড়িশা থেকে সাত মৃত শ্রমিকের দেহ ফিরল বসিরহাটের নেহালপুর গ্রামে। কান্নায় ভেঙে পড়ল গোটা গ্রাম। মৃতদের পরিবারকে  দু'লক্ষ টাকার চেক তুলে দেওয়া হল রাজ্য সরকারের উদ্যোগে।

    শনিবার বিকেল তিনটের সময় পোল্ট্রি ব্যবসায়ীরা একটি আইসার গাড়ি নিয়ে ওড়িশার দিকে রওনা হয়েছিলেন। মুরগির বাচ্চা আনতে। ভোর চারটে নাগাদ ওড়িশার জাজপুর জেলার ধর্মশালা থানার  চণ্ডীপুপ জাতীয় সড়ক রাস্তার ধারে গাড়ির মধ্যে চালক খালাসি-সহ ৭জন বিশ্রাম নিচ্ছিলেন। সেই সময় পিছন দিক থেকে একটি ডাম্পার সজোরে ধাক্কা মারে। স্থানীয় বাসিন্দারা দ্রুত সাত জনকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাঁদের মৃত বলে ঘোষণা করে চিকিৎসকেরা।

    কেউ স্বামী, কেউ আবার সন্তানকে হারিয়েছেন। মৃতের পরিবারের সদস্যদের সরকারের কাছে দাবি ছিল আর্থিক সাহায্য পাশাপাশি মৃতদেহকে রাজ্যে ফিরিয়ে আনার। সেই দাবি মতো মুখ্যমন্ত্রী মৃতদেহগুলি রাজ্যে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করেন। বনমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের তদারকিতে স্বাস্থ্য দফতরের চারটি অ্যাম্বুলেন্সে করে ওড়িশা থেকে কোলাঘাট হয়ে  মৃতদেহগুলি গ্রামে পৌঁছায়। রাজ্য সরকার মৃতদের পরিবারে হাতে ২ লক্ষ টাকার চেক তুলে দেয়। পাশাপাশি আগামী দিনে সব রকম সাহায্য করার জন্য পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাসও দেয়।

    মৃতের পরিবারের হাতে চেক তুলে দিয়ে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, "পোল্ট্রি কোম্পানি এর দায় এড়াতে পারে না। মুরগির বাচ্চা আনা নিয়ে ব্যবসায়ীদের মধ্যে প্রতিযোগিতা চলছে অর্থ মুনাফা অর্জন করার জন্য। তার জন্য নিরীহ ৭ টি প্রাণ চলে যাবে এটা হতে পারে না। জেলা পুলিশকে বলেছি এর তদন্ত হওয়া উচিত।" যে সাত জন মারা গিয়েছেন. একুশে জুলাইয়ের কথা উল্লেখ করে তাঁদের শহীদের আখ্যা দিয়েছেন মন্ত্রী।

    আরও পড়ুন: গোপাল-হৈমন্তীর ফ্ল্যাটের আবর্জনায় বিরাট সূত্র পেল সিবিআই! নিয়োগ দুর্নীতিতে বড় পর্দাফাঁস

    আরও পড়ুন: ট্রেনের গায়ে সাদা-হলুদ-সবুজ ডোরাকাটা দাগ দেখেন? মানে বুঝলে কত যে সুবিধা, ভাবতে পারবেন না!এ ছাড়া মৃতদের পরিবার  শিক্ষিত মহিলাদের  স্বনির্ভর গোষ্ঠী ও আশাকর্মীতে নিযুক্ত করার পরিকল্পনা আছে বলেও জানা গিয়েছে। মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনায় একই গ্রামের একই পাড়ায় ৭টি তরতাজা প্রাণ এর চলে গেল! বসিরহাট উত্তর বিধানসভার চেয়ারম্যান এটিএম আব্দুল্লাহ রনি বলেন, "গত দু'বছরে বসিরহাট ২ নম্বর ব্লকের নেহালপুর, নদিয়া, ধান্যকুড়িয়া সরদারপাড়া প্রায় ৫০জন মানুষকে হারাতে হয়েছে পোল্ট্রির গাড়িতে দুর্ঘটনার জেরে।"

    জুলফিকার মোল্যা

    First published:

    Tags: North 24 Parganas, North Bengal, Road Accident