কৃষক আন্দোলন নিয়ে তৈরি বেশ কিছু গান সরকারের নির্দেশে মুছে দিল ইউটিউব

কৃষক আন্দোলন নিয়ে তৈরি বেশ কিছু গান সরকারের নির্দেশে মুছে দিল ইউটিউব
photo source/news live nation

কেন্দ্রের কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে অবিরত আন্দোলন করছেন কৃষকরা। এই আন্দোলনের পক্ষে-বিপক্ষে উভয়েই মতামত দিয়েছেন নেটিজেনরা। আবার এই আন্দোলনের সমর্থনে ইউটিউবে গানও বেঁধেছেন বহু মানুষ। তার মধ্যে থেকেই কয়েকটি পঞ্জাবি গান ডিলিট করে দিল ইউটিউব।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: দেশ জুড়ে আলোচনার কেন্দ্রে কৃষক আন্দোলন। কেন্দ্রের কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে অবিরত আন্দোলন করছেন কৃষকরা। এই আন্দোলনের পক্ষে-বিপক্ষে উভয়েই মতামত দিয়েছেন নেটিজেনরা। আবার এই আন্দোলনের সমর্থনে ইউটিউবে গানও বেঁধেছেন বহু মানুষ। তার মধ্যে থেকেই কয়েকটি পঞ্জাবি গান ডিলিট করে দিল ইউটিউব।

    জানা যাচ্ছে কেন্দ্রের নির্দেশেই কৃষক আন্দোলনের সমর্থনে কয়েকটি পঞ্জাবি গান ডিলিট করে দিল ইউটিউব। তার মধ্যে ছিল পঞ্জাবি শিল্পী কানওয়ার গ্রেওয়ালেরও একটি গান। সেই গানটি ডিলিট করে দেওয়ার পরে ইউটিউবের পক্ষ থেকে একটি বার্তা দেওয়া হচ্ছে। সেখানে লেখা, সরকার পক্ষ থেকে আইনি অভিযোগ আসার পরে দেশের ডোমেনে এই গানটি লভ্য নয়।

    তবে সেই গানগুলি আরও বিভিন্ন চ্যানেলে ইতিমধ্যেই আপলোড করা হয়েছে। গত সপ্তাহে তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রকের পক্ষ থেকে একটি নোটিশ দেওয়া হয় টুইটারকে। সেখানে ১৪০০টি টুইটার অ্যাকাউন্ট ডিলিট করতে বলা হয়। কেন্দ্রের তরফ থেকে দাবি করা হয়স সেগুলি খলিস্থানি ও পাকিস্তানিদের অ্যাকাউন্ট। তাদের অভিযোগ আন্দোলনকারীদের উসকানি দেওয়ার জন্য এই অ্যাকাউন্টগুলি ব্যবহার করা হচ্ছে।


    প্রসঙ্গত, নভেম্বর মাস থেকে কেন্দ্রের তিন কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করেন। তাঁদের দাবি এই তিন আইন প্রত্যাহার করতে হবে। এর পরে একাধিক বার বৈঠক হয় কৃষকদের সঙ্গে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের। কিন্তু কোনও সমাধান সূত্র পাওয়া যায়নি। আগামী ১৮ মাসের জন্য এই আইনগুলি স্থগিত রাখার প্রস্তাব দেয় কেন্দ্র। কিন্তু সেই প্রস্তাব মেনে নেননি কৃষকরা। তাঁদের দাবি এই আইন পাকাপাকি ভাবে বাতিল করতে হবে।

    সম্প্রতি কৃষক নেতা রাকেশ টিকাইট বলেছেন আগামী ২ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে আন্দোলন। সেই ২ অক্টোবরের মধ্যেই কেন্দ্রকে কৃষি আইন প্রত্যাহার করতে হবে। কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের উপরেই নির্ভর করছে, তার পরেও বিক্ষোভ চলবে কি না।

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published: