'আপনাকে যে বললাম দিল্লিতে থাকতে,' অমিত শাহের সেই ধমক মনে পড়ে যোগী আদিত্যনাথের

১৮ মার্চ ঘোষণা করা হয়,যোগী আদিত্যনাথ উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী৷ ৬ মাসের মধ্যে গোরক্ষপুরের সাংসদ পদে ইস্তফা দেন তিনি৷ বিনা বিরোধিতায় উত্তরপ্রদেশ বিধানসভায় নির্বাচিত হলেন যোগী আদিত্যনাথ৷

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 19, 2019 12:33 PM IST
'আপনাকে যে বললাম দিল্লিতে থাকতে,' অমিত শাহের সেই ধমক মনে পড়ে যোগী আদিত্যনাথের
যোগী আদিত্যনাথ
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 19, 2019 12:33 PM IST

#লখনৌ: ২০১৭ সাল৷ বিধানসভা ভোটের শেষ দফা চলছে৷ ১১ মার্চ ভোটগণনা৷ তার ঠিক দু দিন আগে যোগী আদিত্যনাথ একটি ফোন পেলেন তত্‍কালীন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের থেকে৷ জানতে পারলেন, সাংসদের দলের সঙ্গে তাঁর বিদেশ সফর বাতিল করে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর অফিস৷ যোগী আদিত্যনাথ তখন গোরক্ষপুরের সাংসদ৷ এটাই ছিল, প্রথম ইঙ্গিত৷

News18 নেটওয়ার্কের এডিটর ইন চিফ রাহুল যোশীকে খোলামেলা সাক্ষাত্‍কারে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জানালেন, উত্তরপ্রদেশে বিজেপি-র বিপুল জয়ে পরে কী ভাবে তিনি উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হলেন৷ যোগী আদিত্যনাথের কথায়, 'আমি মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার দৌড়েই ছিলাম না৷ উত্তরপ্রদেশ নির্বাচনের সময় প্রচারে যেখানে আমায় দল পাঠিয়েছে, গিয়েছি৷ ২৫ ফেব্রুয়ারি, বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ ফোন করেন৷ বলেন, যোগীজি, সংসদীয় প্রতিনিধি দল পোর্ট লুইস যাচ্ছে, আপনারও যাওয়া উচিত৷ আমি ওঁকে বলি, আমার ওতো ইচ্ছে নেই কারণ ৬ মার্চ পর্যন্ত নির্বাচনের কাজে ব্যস্ত থাকবো৷ সুষমাজি বলেন, আপনাকে যেতেই হবে ৬ মার্চের পরে, আমরা চাই আপনি লিড করবেন৷ আমি বললাম, ৬ মার্চের আগে সময় হবে না৷ তারপর যেতে পারবো৷'

 

৮ মার্চ উত্তরপ্রদেশে ভোট শেষ হয়৷ ১১ মার্চ ভোটগণনা৷ যোগী আদিত্যনাথ জানালেন, '৮ মার্চ, আমি দিল্লি যাই৷ ততদিনে আমার পাসপোর্ট পাঠানো হয়ে গিয়েছে৷ ১০ মার্চ, আমি জানতে পারি, পিএমও আমার পাসপোর্ট ফিরিয়ে দিয়েছে৷ আমাকে যেতে হবে না৷ পরের দিন ভোট গণনা, আমি গোরক্ষপুরের বিমান ধরলাম৷ সুষমাজি আবার আমায় ফোন করলেন৷ জানালেন, পিএমও আমার পাসপোর্ট ফিরিয়ে দিয়েছে৷ ভোটগণনার দিন উত্তরপ্রদেশে থাকাটা আমার জরুরি৷ বিজেপি বিপুল ভোটে জিতল৷ ১৩ মার্চ হোলি ছিল, গোরক্ষপুরেই থাকলাম৷ হোলি মিটতেই দিল্লি গেলাম৷ ১৬ তারিখে সংসদীয় দলের বৈঠকে যোগ দিতে৷ দেখা করলাম অমিত শাহের সঙ্গে৷ নির্বাচন নিয়ে আমাদের মধ্যে সাধারণ কথাবার্তা হল৷ উনি আমাকে বললাম, দিল্লিতে থেকে যান, আপনার সঙ্গে কথা আছে৷'

তখনও যোগী আদিত্যনাথ জানেন না, তিনিই মুখ্যমন্ত্রী হতে চলেছেন৷ যোগী আদিত্যনাথ বলছেন, 'আমি ভাবলাম, নির্বাচন মিটে গেল, ফল প্রকাশ হয়ে গিয়েছে, আর কীই আলোচনা হতে পারে৷ ১৭ তারিখ, সংসদে আমার একটি প্রশ্নোত্তর পর্ব ছিল৷ ওটা সেরে দুপুরে বিমান ধরলাম গোরক্ষপুরের জন্য৷ ১৬ তারিখ সন্ধেয়, অমিত শাহের থেকে ফোন পেলাম, জিগ্গেস করলেন, আপনি কোথায় আছেন? আমি বললাম, আমি গোরক্ষপুরে৷ অমিত শাহ বললেন, কেন চলে গেলেন, আপনাকে দিল্লিতে থাকতে বললাম৷ আমি বললাম, দিল্লিতে কোনও কাজ নেই, তাই ফিরে এলাম৷ উনি বললেন, দিল্লি আসুন, আমাদের কথা আছে, খুব দরকারি৷'

কোনও ট্রেন বা বিমানের টিকিট না-পেয়ে পরের দিন ভোরেই চার্টার্ড বিমানে দিল্লি রওনা হলেন যোগী আদিত্যনাথ৷ 'অমিত শাহ বললেন, আমি কাল ভোরে আপনাকে চার্টার্ড প্লেন পাঠাচ্ছি৷ আপনি ওতেই দিল্লি আসুন, কাউকে কিছু জানাবেন না এ বিষয়ে৷ বেলা ১১টা নাগাদ দিল্লি পৌঁছলাম৷ অমিত শাহ বললেন, এই বিমানেই লখনৌ চলে যান, বিকেল ৪টেয় আপনাকে নির্বাচিত বিধায়কদের নেতা ঘোষণা করা হবে৷ আপনাকে কাল শপথগ্রহণ করতে হবে৷'

১৮ মার্চ ঘোষণা করা হয়,যোগী আদিত্যনাথ উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী৷ ৬ মাসের মধ্যে গোরক্ষপুরের সাংসদ পদে ইস্তফা দেন তিনি৷ বিনা বিরোধিতায় উত্তরপ্রদেশ বিধানসভায় নির্বাচিত হলেন যোগী আদিত্যনাথ৷

First published: 12:28:05 PM Sep 19, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर