Exclusive: ‘আলোচনার মাধ্যমেই সমাধান হলে ভাল হত’, রামমন্দির ইস্যুতে যোগী আদিত্যনাথের মন্তব্য

News18 নেটওয়ার্ক গ্রুপ এডিটর-ইন-চিফ রাহুল যোশীকে দেওয়া যোগী আদিত্যনাথের এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার পর্বেও উঠে আসে সেই অযোধ্যা মামলা ও রামমন্দির ইস্যু ৷

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 18, 2019 09:17 PM IST
Exclusive: ‘আলোচনার মাধ্যমেই সমাধান হলে ভাল হত’, রামমন্দির ইস্যুতে যোগী আদিত্যনাথের মন্তব্য
উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 18, 2019 09:17 PM IST

#নয়াদিল্লি: অযোধ্যায় রামমন্দির ইস্যু নিয়ে বরাবরই উৎসাহী বিজেপি ৷ নির্বাচনের আগেও তাদের এজেন্ডা ছিল ‘মন্দির হাম ওহি বানায়েঙ্গে’ ৷ বহুদিন ধরে আদালতে ঝুলে রয়েছে অযোধ্যা মামলা ৷ News18 নেটওয়ার্ক গ্রুপ এডিটর-ইন-চিফ রাহুল যোশীকে  দেওয়া যোগী আদিত্যনাথের এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার পর্বেও উঠে আসে সেই অযোধ্যা মামলা ও রামমন্দির ইস্যু ৷ উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী বলেন, মুসলিমদের তরফে মধ্যস্থতার মাধ্যমে এ সমস্যার সমাধান হলে বোধহয় ভাল হত ৷

News18 নেটওয়ার্ক গ্রুপ এডিটর-ইন-চিফ রাহুল যোশী প্রশ্ন করেন, অযোধ্যা মামলার রায় রামমন্দিরে বিরুদ্ধে গেলে তারপর বিজেপি কী করবে? উত্তরে যোগীজি বলেন, ‘সমস্ত তথ্য প্রমাণ ও দলিল দস্তাবেজের উপর ভিত্তি করেই রায় দেয় আদালত ৷ সুপ্রিম কোর্টের উপর পূর্ণ আস্থা আসে ৷ তবে মধ্যস্থতার মাধ্যমে সমাধান হয়ত অনেক সহজ হত ৷’

বুধবারই অযোধ্যা মামলায় শুনানির সময়সীমা বেঁধে দেয় সুপ্রিম কোর্ট। ১৮ অক্টোবরের মধ্যে শেষ করতে হবে শুনানি। প্রয়োজনে বাড়তি সময় শুনানি চলবে। এমনকি ছুটির দিনও বসতে পারে আদালত। নির্দেশ প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের ৷ পাশাপাশি মধ্যস্থতার প্রক্রিয়াও চালু থাকবে।

অযোধ্যা মামলায় প্রধান দুই পক্ষ সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড ও নির্মোহী আখড়া। দু’পক্ষকে নিয়ে আলোচনায় বসার জন্য সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তৈরি হয়েছিল তিন সদস্যের প্যানেল। মার্চ থেকে মধ্যস্থতা আলোচনা শুরু করেন সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন বিচারক এফএম কালিফুল্লা, আধ্যাত্মিক গুরু রবি শঙ্কর, ও প্রবীণ আইনজীবী শ্রীরাম পঞ্চুর প্যানেল। কিন্তু কোনও পক্ষই সহমত না হওয়ায় ৬ অগাস্ট থেকে রোজ শুনানি শুরু হয়। ১৯৯২-এর ৬ ডিসেম্বর বাবরি মসজিদ ধ্বংস হয়। তিন দশক ধরে চলা মামলায় কয়েকশো সাক্ষীর হদিশ নেই। মৃত্যু হয়েছে অনেকের। তবে এবার মামলা দ্রুত শেষ করতে উদ্যোগী শীর্ষ আদালত।

First published: 09:07:42 PM Sep 18, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर