TMC in Tripura| ত্রিপুরায় ২১ জুলাই পালন নিয়ে কেন উৎসাহী তৃণমূল কংগ্রেস? 

মমতার নজর এবার ত্রিপুরায়।

TMC in Tripura| এবার ২১শে জুলাই ত্রিপুরাতেও পালন করা হচ্ছে, সূত্রের খবর তারই ব্লু প্রিন্ট তৈরিতে এই তলব।

  • Share this:

#কলকাতা: ত্রিপুরার রাজ্য নেতৃত্বকে ডাকা হল কলকাতায়। তলব পেয়ে কলকাতায় হাজির  ত্রিপুরা তৃনমূলের রাজ্য সভাপতি আশিস লাল সিং। ২১শে জুলাইয়ের আগেই শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে এক প্রস্থ বৈঠকও হয়ে গেল। এবার ২১শে জুলাই ত্রিপুরাতেও পালন করা হচ্ছে, সূত্রের খবর তারই ব্লু প্রিন্ট তৈরিতে এই তলব।

ত্রিপুরা রাজ্য তৃণমূল সভাপতি আশিস লাল সিং জানিয়েছেন, "রাজ্যে ৫ জায়গায় আমরা জায়েন্ট স্ক্রিন বসাচ্ছি। সেখানে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের বক্তব্যের লাইভ সম্প্রচার দেখানো হবে৷ আগরতলা দু'জায়গায়, ধর্মনগর- সহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গা ইতিমধ্যেই বাছাই করা হয়ে গিয়েছে। ২১ জুলাই সকাল থেকেই শুরু হয়ে যাবে সাইকেল র‍্যালি। এছাড়াও একাধিক কর্মসূচি নিয়েছে ত্রিপুরা তৃণমূল কংগ্রেস।"

কিন্তু ত্রিপুরায় ২১ জুলাই পালন নিয়ে তৃণমূল এত উৎসাহিত কেন? রাজনৈতিক মহলের মতে, ত্রিপুরাতেও বিজেপিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কড়া চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলে ২০২৪ এর লোকসভা ভোটের আগে জাতীয় স্তরে যে বার্তা যাবে তাতে বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির সুবিধা হবে। দ্বিতীয়ত, মমতা বন্দোপাধ্যায় যে একমাত্র বিজেপি বিরোধী মুখ সেটাও বুঝিয়ে দেওয়া যাবে। তাই ত্রিপুরায় এখন থেকেই সংগঠনের ঝাঁজ বাড়াতে চাইছে তৃণমূল কংগ্রেস।

পড়শি রাজ্যের তৃণমূল সভাপতি আশিস লাল সিং জানিয়েছেন, তৃণমূলের পতাকা নিয়ে সুধীররঞ্জন মজুমদার যা শুরু করেছিলেন। তা ধীরে ধীরে কয়েকজনের স্বার্থের কারণে পিছিয়ে যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যদিও চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন। ২০১৩ থেকে তার চেষ্টায় ভালো ফল হয়৷ কংগ্রেসের কিছু বিধায়কও যোগ দেন তৃণমূল কংগ্রেসে ৷ তবে যারা যোগ দিয়েছিলেন তাদের নিয়ে স্থানীয় মানুষের বেশ কিছু সমস্যা ছিল।কিন্তু বামেদের বিরুদ্ধে যে লড়াই জোড়া ফুল শুরু করেছিল তা ক্রমে পদ্ম ফুল হাতিয়ে নেয়। কারণ বিজেপি আদিবাসী ভোট ব্যাঙ্কে সেই সময় থেকে জোর দিতে শুরু করে।

ত্রিপুরায় ছড়ানো হচ্ছে এই পোস্টার। ত্রিপুরায় ছড়ানো হচ্ছে এই পোস্টার।

তারপর ভোটের আগে তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে চলে যান একাধিক নেতা৷ যার মধ্যে সুদীপ রায়বর্মণ-সহ বেশ কয়েকজন ছিলেন। আশিস বাবুর কথায়, এবার বাংলার ভোটের ফল দেখে ত্রিপুরার মানুষ উৎসাহিত। মানুষের চোখ ছিল, ২ মে পর থেকে ঘাস ফুল শিবিরের দিকে। আশিষ বাবুর হিসেবে, গত কয়েকদিনে ২৯০০০ মানুষ বিজেপি ও সিপিএম ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। ওখানের মানু্ষ মমতা বন্দোপাধ্যায়ের দিকে চাইছেন।

আশিষ বাবু জানাচ্ছেন, "আমরা দিদিকে ব্যতিব্যস্ত করিনা। কারণ আমাদের ওখানের নেতারা দিদিকে বারবার প্রতারিত করেছেন। দিদি রেল মন্ত্রকে থাকাকালীন একাধিক উপহার দিয়েছেন ত্রিপুরার জন্যে।" তবে মমতা বন্দোপাধ্যায় যে ত্রিপুরার মানুষের পাশে আছেন তা বোঝাতে, ২১ জুলাই এবার পালন করব। এবার ব্যাপক হবে৷ অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের কাছে এবার যাব। আশা করছি এবার মমতা-অভিষেক আসবে।"

তাঁর কথায়," ত্রিপুরাতে উন্নয়ন বলে কিছু নেই৷ আমি বিরোধী দল বলে বলছি না। বহু মানুষের চাকরি চলে গেছে। আমাদের অ্যাজেন্ডা, কর্মসংস্থান। বামেদের ওপর ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ বিজেপি এসেছিল। বিজেপির ওপর সেই ক্ষোভ দেখা যাচ্ছে। এটাকে সামনে রেখেই এগোচ্ছে ত্রিপুরায় তৃণমূল।"

Published by:Arka Deb
First published: