• হোম
  • »
  • খবর
  • »
  • দেশ
  • »
  • WHY DIFFERENT PRICES FOR BUYING COVID 19 VACCINE FOR CENTER AND STATE SUPREME COURT TO MODI GOVERNMENT AKD

Covid Vaccine Price: টিকার দামে কেন্দ্র রাজ্য বৈষম্য কেন, মোদি সরকারকে ভর্ৎসনা সুপ্রিম কোর্টের

Covid Vaccine Price: টিকার দামে কেন্দ্র রাজ্য বৈষম্য কেন, মোদি সরকারকে ভর্ৎসনা সুপ্রিম কোর্টের

টিকার দামে বৈষম্য নিয়ে মোদি সরকারকে ভর্ৎসনা শীর্ষ আদালতের।

শীর্ষ আদালত প্রশ্ন তুলছে, টিকার দাম থেকে শুরু করে রাজ্যগুলির আগে পরে টিকা পাওয়া অর্থাৎ অগ্রাধিকারের প্রশ্নে নীতির বৈষম্য নিয়ে।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: ১ মে থেকে শুরু হচ্ছে খোলাবাজারে আসছে করোনার টিকা। করোনার বেলাগাম দ্বিতীয় ঢেউয়ের মধ্যেই ১৮ উর্ধ্বরাও টিকা পাবেন এবার। কেন্দ্রের তুলনায় বেশি দামে টিকা কিনতে হবে রাজ্যগুলিকে। দেশকে করোনামুক্ত করতে নেমে মোদি সরকারের এ হেন নীতি নিয়ে প্রশ্ন তুলল সুপ্রিম কোর্ট। স্বতঃপ্রণোদিত মামলায় বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়ের নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চের প্রশ্ন, দেশকে করোনামুক্ত করতে নেমে সর্বত্র এত বৈষম্য কেন? শীর্ষ আদালত প্রশ্ন তুলছে, টিকার দাম থেকে শুরু করে রাজ্যগুলির আগে পরে টিকা পাওয়া অর্থাৎ অগ্রাধিকারের প্রশ্নে নীতির বৈষম্য নিয়ে।

    এ দিন আদালতের তরফে সরকারি পক্ষের কৌসুলিকে সরাসরি প্রশ্ন করা হয়, "কেন্দ্রের কাছ থেকে সংস্থাগুলি টিকা পিছু ১৫০ টাকা নিচ্ছে। তাহলে রাজ্যগুলির জন্য টিকার দাম ৩০০-৪০০ টাকা কেন? দাম দিয়ে টিকা যখন তখন এই নিয়ে কেন বৈষম্য থাকবে। কেন্দ্র কেন নিজেই একশো শতাংশ ভ্যাকসিন কিনে নিচ্ছে না?"

    এই প্রসঙ্গে কেন্দ্র মনে করিয়ে দিয়েছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অ্যাস্ট্রোজেনেকাও ভারতীয় টিকার চেয়ে কম দামে বিক্রি হয়েছে।

    প্রসঙ্গত রাজ্যগুলিকে টিকা দেবে ২ সংস্থা, ভারত বায়োটেক ও সিরাম ইন্সটিটিউট। রাজ্যগুলির জন্য ভারত বায়োটেকের পক্ষ থেকে কোভ্যাকসিন টিকার দাম প্রথমে ধার্য করা হয়েছিল ৬০০ টাকা , অন্য দিকে সিরাম ইন্সটিটিউটের ভ্যাকসিন কোভিশিল্ডের দাম রাজ্যগুলির জন্য বরাদ্দ ছিল ৪০০ টাকা। পরে নরেন্দ্র মোদির অনুরোধে কোভিশিল্ডের দাম রাজ্যের জন্য করা হয় ৩০০ টাকা। আর কোভ্যাকসিনের দাম করা হয় ৪০০ টাকা। যদিও বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে কোভিশিল্ড কিনতে হবে ৬০০ টাকায় আর কোভ্যাকসিন কিনতে হবে ১২০০ টাকায়। দাম ধার্য করার এই বৈষম্যমূলক নীতি নিয়েই প্রশ্ন তুলছে আদালত। যদিও কোনও সিদ্ধান্ত না নিয়ে কেন্দ্রকেই বিবেচনার ভার দিচ্ছে সর্বোচ্চ ন্যায়ালয়।

    প্রসঙ্গত ১ মে থেকে ১৮ ঊর্ধ্বরা ভ্যাকসিন পাবে। ১৮-৪৫ বছর বয়সিদের সংখ্যা কত, তা নিয়ে কেন সঠিক তথ্য নেই কেন্দ্রের কাছে, এই প্রশ্নও উঠে এসেছে এই দিন।

    Published by:Arka Deb
    First published: