কেন ৫ দিনের সিবিআই হেফাজত চিদাম্বরমের?

কেন ৫ দিনের সিবিআই হেফাজত চিদাম্বরমের?
photo: chidambaram

মূলত তদন্তে অসহযোগিতা, তথ্যপ্রমাণ লোপাট এবং পালিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: আইএনএক্স দুর্নীতি মামলায় ছাব্বিশে অগাস্ট পর্যন্ত সিবিআই হেফাজতে পি চিদম্বরম। বুধবার গ্রেফতারের পর আজই তাঁকে আদালকে পেশ করে সিবিআই। দিল্লিতে সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতে প্রায় দু’ঘণ্টার সওয়াল-জবাবের পর বিচারক অজয় কুমার কুহার প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীকে সিবিআই হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন।

দেশে ফের আর্থিক দু্র্নীতি মামলা।  গ্রেফতার আরও এক হাইপ্রোফাইল অভিযুক্ত। বুধবার চিদম্বরমকে গ্রেফতারের পর বৃহস্পতিবার দুপুরে বিশেষ আদালতে পেশ করে সিবিআই। পাঁচ দিনের জন্য প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীকে হেফাজতে চেয়ে আবেদন করা হয়। মূলত তদন্তে অসহযোগিতা, তথ্যপ্রমাণ লোপাট এবং পালিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা। আদালতে চিদম্বরমের বিরুদ্ধে এই তিনটি অভিযোগ দাখিল করে সিবিআই।বিচারক অজয় কুমার কুহারের এজলাসে প্রায় দু’ঘণ্টার সওয়াল-জবাব চলে।

সিবিআইয়ের তরফে সওয়াল করেন অতিরিক্ত সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতা। অভিযোগ করেন, তদন্তে সহযোগিতা করছেন না চিদম্বরম। জামিনের প্রশ্ন নেই। বরং সাক্ষী ও অভিযুক্তকে মুখোমুখি বসিয়ে জেরার প্রয়োজন। জবাবে চিদম্বরমের তরফে উঠে দাঁড়ান আইনজীবী অভিষেক মনু সিংভি। দাবি করেন, অভিযুক্ত ইন্দ্রাণী মুখোপাধ্যায়ের বয়ানের ভিত্তিতে এই মামলা সাজিয়েছে সিবিআই। এই মামলায় কেউ গ্রেফতার হননি। যা ঘটেছে তাই বলবেন চিদম্বরম। এরমধ্যেই নিজের হয়ে সওয়াল করার আবেদন করেন গ্রেফতার চিদম্বরম। আদালত তা খারিজ করে দেয়। এগিয়ে আসেন তাঁর আর এক আইনজীবী কপিল সিব্বল। পালটা অভিযোগ, জেরার নামে চিদম্বরমকে হেনস্থা করা হচ্ছে। সিব্বলের দাবি, মোট বারোটি প্রশ্নের ছ’টি উত্তর আগেই দেওয়া হয়ে গিয়েছে। অপরাধের দশ বছর পর এফআইআর করে, জেরার নামে গ্রেফতার করেছে সিবিআই।

এদিন সকালেই জেরায় সিবিআই চিদম্বরমের বিদেশে সম্পত্তি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিল। এদিন আদালতে চিদম্বরম দাবি করেন৷ পঞ্চাশ লক্ষ টাকা নিয়ে কোনও প্রশ্ন তাঁকে করা হয়নি। বিদেশি অ্যাকাউন্ট নিয়ে বারবার তাঁকে বিব্রত করা হয়েছে। তিনি জানিয়েছেন, এমন কোনও অ্যাকাউন্ট নেই। খানিক বিরতির পর এজলাসে ফিরে বিচারপতি অজয় কুমার কুহারের নির্দেশ, ছাব্বিশে অগাস্ট পর্যন্ত সিবিআই হেফাজতে পি চিদম্বরম।

আদালতের নির্দেশ, আটচল্লিশ ঘণ্টা অন্তর প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে। আধ ঘণ্টার জন্য পরিবারের লোক এবং আইনজীবীদের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন চিদম্বরম। অনুমতি ছিল চার কোটি বাষট্টি লক্ষ টাকার। অভিযোগ, দু’হাজার সাত সালে বেআইনি ভাবে আইএনএক্স মিডিয়ায় বিদেশি লগ্নি হয়েছিল তিনশো পাঁচ কোটি টাকা। আর সেই দুর্নীতি হয়েছিল তৎকালীন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরমের নজরদারিতে।

 

First published: 10:39:29 AM Aug 23, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर