corona virus btn
corona virus btn
Loading

গেরুয়া ঝড়েই মাতবে গুজরাত ও হিমাচল, নাকি পাশা উল্টে কামাল দেখাবে হাত?

গেরুয়া ঝড়েই মাতবে গুজরাত ও হিমাচল, নাকি পাশা উল্টে কামাল দেখাবে হাত?
Battle for Gujarat and Himachal Pradesh

গেরুয়া ঝড়েই মাতবে গুজরাত ও হিমাচল, নাকি পাশা উল্টে কামাল দেখাবে হাত?

  • Share this:

 #নয়াদিল্লি: হিমাচল প্রদেশ ও গুজরাত দুই রাজ্যই কি উড়বে গেরুয়া আবির? জানতে আর কয়েকঘণ্টার অপেক্ষা ৷ গুজরাত ও হিমাচল প্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনের ফলঘোষণা। খাতায়কলমে দুই রাজ্যের ফল হলেও, আসলে গোটা দেশের নজর মোদির রাজ্যে। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর এই প্রথম বিধানসভা ভোট মোদির রাজ্যে ৷ সেখানে বুথ ফেরত সমীক্ষায় সবকটি সংস্থাই বিজেপিকেই কমবেশি এগিয়ে রাখছে।

টুডেস চাণক্যের সমীক্ষায় বিজেপি ১৩৫ আসন পাবে বলে দাবি করা হচ্ছে। সংস্থার দাবি, কংগ্রেস পাবে ৪৭ আসন। রিপাবলিক টিভির সমীক্ষায় দাবি করা হয়েছে ১১৫ আসন পাবে বিজেপি। কংগ্রেস পেতে চলেছে ৬৫ আসন। অন্যান্যদের হাতে থাকবে ২ আসন। ইন্ডিয়া টুডের দাবি, বিজেপির দখলে থাকবে ৯৯ থেকে ১১৩ আসন। কংগ্রেস পেতে পারে ৬৮ থেকে ৮২ আসন। অন্যান্যদের দখলে থাকবে ৩ থেকে ১৫ আসন। টাইমস নাও জানিয়েছে, বিজেপি পেতে পারে ১০৯ আসন। কংগ্রেসের দখলে থাকবে ৭০ আসন ও অন্যান্যরা পেতে পারে ৩ আসন। সাহারা সময়ের দাবি, বিজেপি ১১০ থেকে ১২০ আসন পেতে পারে। কংগ্রেসের হাতে থাকবে ৬৫ থেকে ৭৫ আসন। অন্যান্যদের আসন সংখ্যা ৮ থেকে ১০-এর মধ্যে থাকবে। টিভি-৯-এর দাবি, বিজেপির আসন নেমে দাঁড়াবে ১০৮-এ। কংগ্রেস পেতে পারে ৭৪ আসন।

গুজরাতকে মডেল বলে দাবি করেই ২০১৪ সালে জাতীয় স্তরে মোদির উত্থান। কিন্তু, বিজেপির সেই গড়েই হানা দিয়েছে কংগ্রেস। পতিদার সম্প্রদায়ের ক্ষোভ, গ্রামে পানীয় জল, চিকিৎসা পরিষেবা, কর্মসংস্থানের অভাবের মতো জোরাল দাবি তুলে দিয়েছে হাতশিবির। রাহুলের হাতে হাত মিলিয়েছেন জিগ্নেশ মেবানি, অল্পেশ ঠাকুর বা হার্দিক প্যাটেলরা।

গুজরাতের ফলঘোষণার আগে ফের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছেন পাসপ্রধান হার্দিক। টুইটে লিখেছেন,

হার্দিকের বিস্ফোরক টুইট, ভোটে হারবে বিজেপি। তাই রবিবার রাতে ইভিএমে কারচুপি করতে পারে তারা। ইভিএমে জালিয়াতি না হলে বিজেপি মাত্র ৮২ আসন পাবে। আমেদাবাদের একটি সংস্থার ১৪০ সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়রকে ভাড়া করা হয়েছে। ৫ হাজার ইভিএম হ্যাক করার চেষ্টা করা হচ্ছে। বেশকিছু জায়গা, বিশেষ করে প্যাটেল ও আদিবাসী সম্প্রদায় প্রভাবিত এলাকার ইভিএমগুলি হ্যাকিং করার চেষ্টা হয়েছে।

হার্দিক যে হিসেব দিয়েছেন তা সত্যি হলে গুজরাতে সব বুথফেরত সমীক্ষাই ভুল প্রমাণিত হবে। হার্দিকের এই অভিযোগকে হাতিয়ার করেই নতুন করে শোরগোল ফেলে দিয়েছে কংগ্রেস। তবে অতীতেও দেখা গিয়েছে বুথ ফেরত সমীক্ষার ফল সম্পূর্ণ বদলে গিয়েছে বাস্তবে ৷ সেক্ষেত্রে ডুবতে বসা একটা দলের ক্ষেত্রে এটাই হয়ে ওঠবে টার্নিং পয়েন্ট ৷ তা যদি নাও হয় গতবারের থেকে বেশি সংখ্যক আসন দখল করতে পারলেও তা বাড়তি অক্সিজেন যোগাবে রাহুলের কংগ্রেসকে ৷

অন্যদিকে, হিমাচলের মুখ্যমন্ত্রী বীরভদ্র সিংহ সমীক্ষার ফলের সঙ্গে সহমত নন ৷ তাঁর দাবি, হিমাচল প্রদেশের ম্যাজিক ফিগার ৩৫-এর বেশি সংখ্যক আসন পেয়ে ক্ষমতায় থাকবে কংগ্রেসই ৷ অন্যদিকে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, সরকারের বিরুদ্ধে ওঠা দুর্নীতির অভিযোগ ও গুড়িয়াকাণ্ডের ফলে সরকার বিরোধী হাওয়াই বইছে হিমাচলে ৷ বুথ ফেরত সমীক্ষার ফলেও সরকারে দলবদলেরই ইঙ্গিত মিলেছে ৷ সেই বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী প্রেমকুমার ধুমল।

গত ৯ নভেম্বর ভোটগ্রহণ হয় হিমাচলে ৷ ২০১২ সালের ভোটে ৩৬ আসনে জিতে ক্ষমতায় এসেছিল কংগ্রেস, বিজেপি পেয়েছিল ২৬ আসন, অন্যান্যরা ৬ ৷

গুজরাত ও হিমাচলে জয় নিয়ে আত্মবিশ্বাসী বিজেপি। উত্তরপ্রদেশ ভোটের পর থেকেই ইভিএম কারচুপির অভিযোগ উঠতে থাকে। গুজরাত নির্বাচনে তা জোরাল হয়। ফল ঘোষণার আগেও তা থিতোয়নি। বরং তা নতুন করে বিতর্ক বাধাল।

First published: December 18, 2017, 7:57 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर