কী দুর্নীতিতে ফেঁসেছিলেন জয়ললিতা-শশীকলা ? ঠিক কী ঘটেছিল দেখে নিন

ঠিক কী মামলায় ফেঁসেছিলেন জয়ললিতা-শশীকাল?

ঠিক কী মামলায় ফেঁসেছিলেন জয়ললিতা-শশীকাল?

  • Share this:

    #চেন্নাই: তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন ভেঙে চুরমার ৷ শীর্ষ আদালতের নির্দেশে কুর্সি হাতছাড়া চিন্নাম্মার ৷ অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে মঙ্গলবার শশীকলাকে দোষী সাব্যস্থ করল সুপ্রিম কোর্ট ৷ দুর্নীতি মামলায় তাকে দোষী সাব্যস্থ করল শীর্ষ আদালত ৷ পাশাপাশি ৪ বছরের কারাদণ্ডের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ৷ অথার্ৎ মুখ্যমন্ত্রী হতে পারবেন না তিনি ৷ তামিলনাড়ুর রাজনীতিতে ফের পরিবর্তন হতে চলেছে ৷ গত কয়েকদিন ধরেই সরগরম তামিলনাড়ুর রাজনাতি ৷ কে হবে মুখ্যমন্ত্রী ৷ এই নিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরেই শশীকলা ও ও পনীরসেলভমের মধ্যে দড়ি টানাটানি চলছেই। এদিন শীর্ষ আদালতের রায় তা অনেকটাই পরিস্কার হয়ে গেল ৷ মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছে না শশীকলা ৷ তাকে গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট ৷ আগামী দ বছর কোনও নির্বাচনে লড়তে পারবেন না তিনি ৷ ঠিক কী মামলায় ফেঁসেছিলেন জয়ললিতা-শশীকাল?

    ১৯৯৬-- জয়ললিতা সহ তিনজনের বিরুদ্ধে প্রথম দুর্নীতির মামলা দায়ের সুব্রহ্মনিয়ম স্বামীর। ১৯৯১-১৯৯৬ সালে মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন ৬৬.৬৫ কোটি টাকার আয় বর্হিভূত সম্পত্তির অভিযোগ

    ৭ ডিসেম্বর, ১৯৯৬-- এই মামলায় গ্রেফতার হন জয়ললিতা

    ১৯৯৭-- চেন্নাই সেশন কোর্টে জয়ললিতা, শশীকলা নটরাজন সহ চারজনের বিরদ্ধে মামলার শুনানি শুরু হয়

    ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ --- স্পেশাল কোর্টে জয়ললিতা, শশীকলা সহ চারজনের চার বছরের জেল ও ১০০ কোটি টাকা জরিমানা

    ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৪-- জয়ললিতা, শশীকলা সহ চারজন কর্নাটক হাইকোর্টে এই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে জামিনের আবেদন করেন

    ৭ অক্টোবর, ২০১৪-- এই মামলার কোনও ভিত্তি নেই বলে জামিনের আবেদন নাকচ করে হাইকোর্ট

    ৯ অক্টোবর, ২০১৪--  এরপরে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেন জয়ললিতারা

    ১৭ অক্টোবর, ২০১৪-- সুপ্রিম কোর্ট জামিনের আবেদন মঞ্জুর করে

    ১৮ অক্টোবর, ২০১৪-- ২১ দিন জেলে থাকার পর ৩ মাসের জন্য জামিন পান জয়ললিতারা এবং কর্ণাটক হাইকোর্টকে ৩ মাসের মধ্যে শুনানি শেষ করতে বলে শীর্ষ আদালত

    ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৪-- আরও চার মাসের জন্য জামিনের মেয়াদ বাড়ানো হয়

    মে ১১, ২০১৫-- কর্ণাটক হাইকোর্টে নির্দোষ প্রমাণিত হয় জয়ললিতা এবং বাকি তিনজন

    জুন ২৩, ২০১৫-- কর্ণাটক সরকার ফের সুপ্রিম কোর্টে জয়ললিতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে

    ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০১৬-- এই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্টে চূড়ান্ত শুনানি শুরু হয়

    ডিসেম্বর ৫, ২০১৬-- দীর্ঘ অসুস্থতার পর চেন্নাইয়ে মৃত্যু হয় জয়ললিতার

    জয়ললিতার মৃত্যুর পর দলের পক্ষে থেকে ঘোষণা করা হয় আম্মার উত্তরাধিকার হবেন শশীকলা ৷ এতদিন পর্যন্ত দলে জয়ললতির ছোট বোন ‘চিন্নামা’ হিসেবে তার পরিচয় ছিল ৷ কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের মঙ্গলবার শশীকলাকে দোষী সাব্যস্থ করেছে ৷

    First published: