মনের আনন্দে ফুচকা খেতে ব্যস্ত গাভী আর বাছুর, ভাইরাল ভিডিওতে মজে নেটিজেনরা

মনের আনন্দে ফুচকা খেতে ব্যস্ত গাভী আর বাছুর, ভাইরাল ভিডিও মন ভরিয়েছে নেটিজেনদের!

ফুচকা খেতে দেখা গিয়েছে একটি মা গরু ও তার সন্তানকে। দু'জনেরই ফুচকা প্রীতি কতটা তা ভিডিও দেখে যে কেউ বুঝে নিতে পারবে।

  • Share this:

#লখনউ: লকডাউন, কার্যত এই বিশেষ শব্দের প্রভাবে আমাদের জীবনে আমূল পরিবর্তন এসেছে। বদলেছে প্রতি দিনের জীবন। একটা নির্দিষ্ট সময়ের পর রাস্তা প্রায় জনমানবহীন হয়ে ওঠে। বিকেলের পরের বিভিন্ন জাঙ্ক ফুড এখন পাওয়া যায় না, যা কিনা আবালবৃদ্ধবনিতার প্রিয় খাবার। এর মধ্যে ফুচকা বহু মানুষের প্রিয় খাদ্য তালিকায় পড়ে। কিন্ত এখন আর ফুচকা যে শুধু মানুষের প্রিয় খাদ্য, তা হলফ করে বলা যাবে না। কারণ, সম্প্রতি একটি ভাইরাল ভিডিও যেমন নেটাগরিকদের আনন্দ দিয়েছে, তেমনই খাদ্যরসিক ব্যক্তিত্বের জীবনের রূপরেখা বদলে দিয়েছে। কারণ ফুচকা খেতে দেখা গিয়েছে একটি মা গরু ও তার সন্তানকে। দু'জনেরই ফুচকা প্রীতি কতটা তা ভিডিও দেখে যে কেউ বুঝে নিতে পারবে। ভিডিওটিতে দেখা গিয়েছে এক ফুচকা বিক্রেতা লাগাতার ফুচকা বানিয়ে এক ব্যক্তির প্লেটে দিয়ে চলেছেন। অন্য ব্যক্তি একটি করে টক জল ভরা ফুচকা নিয়ে মা গরু ও তার সন্তানকে খাইয়ে চলেছেন। দু'জনেই মনের আনন্দে সেটা খেয়েও চলেছে। দেখে মনে হচ্ছে দিনের সেরা পদ তারা পেয়েছে!

মজার সেই ভিডিও লিঙ্ক নিচে দেওয়া হল:

View this post on Instagram

A post shared by sree130920 (@sree130920)

ভিডিওটি লখনউ-এর (Lucknow) রেড হিল কনভেন্ট স্কুলের (Red Hill Convent School) কাছে ক্যামেরা বন্দি করা হয়েছিল, এই রাস্তাটি স্ট্রিট ফুডের জন্য বেশ বিখ্যাত। প্রায়শই রাস্তার গরুদের লোকজনকে লাঠি দিয়ে মারতে দেখা যায়, সেই জায়গায় গরুদের ফুচকা খাওয়ানোর এই ভিডিও অনেকেই পছন্দ করেছেন। ভিডিওটি Instagram-এ শেয়ার হতেই ৬ লক্ষের বেশি মানুষ দেখেছেন। ভিডিও ক্লিপটি ৬৭ হাজারের বেশি লাইক সংগ্রহ করেছে। কমেন্ট বক্সে মন্তব্যের বন্যা বয়ে গিয়েছে। একজন ইউজার কমেন্ট করে লিখেছেন এটি "দিনের সেরা ভিডিও"।

এই বছরের শুরুর দিকে, একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল। যেখানে একটি গরুকে ক্যাটওয়াক করতে দেখা গিয়েছিল। ভিডিওতে দেখা গিয়েছিল গরুটি একেবারে মডেলদের মতো করে ক্যাটওয়াক করছে। সেই ভিডিওটি ভীষণ ভাইরাল হয়েছিল।

এই সোশ্যাল মাধ্যমের জন্য ঘরবন্দি মানুষদের একটু হলেও সময় কাটছে। সারাদিনের কাজের মাঝে একটু আনন্দের রসদ পেয়ে যাচ্ছেন নেট নাগরিকরা।

Published by:Simli Raha
First published: