১০ দিন পর পৌঁছে গেল ত্রাণ, ধর্ম নির্বিশেষে এক লাইনে দাঁড়িতে আর্ত দিল্লির মানুষ

১০ দিন পর পৌঁছে গেল ত্রাণ, ধর্ম নির্বিশেষে এক লাইনে দাঁড়িতে আর্ত দিল্লির মানুষ
People line up at an ambulance in Brahmpuri on Thursday.

একটু একটু পাল্টাচ্ছে দিল্লির চেহারা৷ রবিবার বা সোমবার দিল্লির ব্রহ্মপুরী এলাকার চেহারা একেবারেই অন্যরকম ছিল৷

  • Share this:

#নয়া দিল্লি: একটু একটু পাল্টাচ্ছে দিল্লির চেহারা৷ রবিবার বা সোমবার দিল্লির ব্রহ্মপুরী এলাকার চেহারা একেবারেই অন্যরকম ছিল৷ রাস্তার একধারে হিন্দুদের বাড়ি অন্যদিকে মুসলিমদের বাড়ি৷ ঘটনার পর থেকে দু’দিকের বাড়ির লোকেরাই ক্রমাগত একে অপরকে সন্দেহর চোখে দেখছিলেন৷ কিন্তু আজ হঠাৎ এলাকার চেহারাটা পাল্টে গেল৷

আক্রান্ত এলাকায় এতদিন সব কিছুই ছিল দুর্লভ৷ আজ দল বেঁধে এলেন গুরদ্বারের সদস্যরা৷ এলেন কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক৷ আর যন্ত্রণার জীবন থেকে মুক্তি পেতে সাধারণ মানুষ দরজা খুলে বেরিয়ে এলেন বাইরে৷ হিন্দু মুসলমান ভেদ ভুলে সবাই এগিয়ে এলেন সাহায্যের আশায়৷ কেউ হয়ত অসুস্থ, কেউ খাবারের আশায় এসে ভিড় করলেন৷

ইয়াসমিন আসিফ (৩৫) হিংসার সময় আটকে পড়েছিলেন আগুন মধ্যে৷ আগে থেকেই তাঁর শরীরে দানা বেঁধে ছিল নিঃশ্বাসের কষ্ট৷ সেদিন ধোঁয়ায়, আগুনে আরও শরীর খারাপ হয় তাঁর৷ এদিন অ্যাম্বুলেন্স দেখে চিকিৎসার আশায় এগিয়ে এলেন তিনি৷ ২৯ বছরের গজিন্দরও শেষ তিন দিন ধরে পায়ের যন্ত্রণায় কাতর৷ কিন্তু এমন ঝামেলা চলছিল যে বাইরে গিয়ে ডাক্তার দেখানোর কোনও সুযোগ পাননি৷ এদিন তিনিও এলেন ইয়াসমিনের পাশে৷ তিনি বললেন, ‘এতদিন পর আমি ওষুধ পেলাম৷ এখন আমিও ওঁদের সাহায্য করছি যাতে এই ত্রাণের কাজ ভাল ভাবে হয়৷’

এক শিখ ভাই হাতে হাতে তুলে দিচ্ছেন খাবার৷ তাঁরা জানালেন, ‘যাঁরা দিনমজুর, তাঁরা শেষ কয়েকদিন ধরে একটা টাকাও উপার্জন করতে পারেননি৷ তাঁদের বাড়িতে খাবার নেই৷ আমরা তাঁদের হাতে খাবার পৌঁছে দিচ্ছি৷’

শুধু অ্যাম্বুলেন্স নয়, খাবার ভর্তি ট্রাক এদিন পৌঁছে গিয়েছে গোন্দা, আম্বেদকর বস্তি, ব্রহ্মপুরী, শ্রীরাম কলোনিতে পৌঁছে গিয়েছে৷ দোরে দোরে গিয়ে তাঁরা জিজ্ঞাসা করছেন, ‘আপনাদের কী খাবার দরকার৷ বাড়িতে খাবারের অভাব থাকলে আমাদের বলুন, আমরা পৌঁছে দেব৷’ এমনিভাবে সকাল ৬ থেকে ৭০০ জনের মতো মানুষকে সাহায্য করেছে এই সাহায্যকারী দল৷ একজন চিকিৎসকও এই দলের সঙ্গে ঘুরছেন, চিকিৎসার কাজের জন্য৷

First published: February 28, 2020, 4:32 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर