corona virus btn
corona virus btn
Loading

ভারতে পরিষেবা বন্ধ করতে চলেছে ভোডাফোন-আইডিয়া, শনিবারই হতে পারে বড় সিদ্ধান্ত, রিপোর্ট

ভারতে পরিষেবা বন্ধ করতে চলেছে ভোডাফোন-আইডিয়া, শনিবারই হতে পারে বড় সিদ্ধান্ত, রিপোর্ট

মাথায় হাত কোটি কোটি গ্রাহকের

  • Share this:

#নয়াদিল্লি:  সুপ্রিম কোর্টের শুক্রবারের আদেশের পর ভোডাফোন ও আইডিয়া এই দুই বড় টেলিকম কোম্পানি বিশাল বিপদের সম্মুখীন ৷ পরিস্থিতি এতটাই হাতে বাইরে যে এবার ভারতে পরিষেবার বন্ধের পথেই হাঁটবে এই দুই টেলিকম সংস্থা ৷ এমনিতেই অসম্ভব ঘাটতিতে চলছে এই দুই সংস্থা এরমধ্যে সর্বোচ্চ আদালত বকেয়া মেটানো নিয়ে যেভাবে ভর্ৎসনা করেছে তাতে এদের হাতে আর কোনও পথ খোলা নেই ৷ ২০১৯ -র ডিসেম্বর মাসেই আইডিয়ার চেয়ারম্যান কুমার মঙ্গলম বিড়লা জানিয়েছিলেন সরকার যদি কোনও সাহায্য না করে তাহলে কোম্পানি বন্ধ করে দিতে হবে ৷

ভোডাফোন ও আইডিয়া ৫৩ হাজার কোটি টাকার এজিআর (অ্যাডজাস্টেড গ্রস রেভিনিউ) বকেয়া রেখেছে ৷ কোম্পানির তৃতীয় কোয়ার্টার অর্থাৎ অক্টোবর -ডিসেম্বরে ৬৪৩৯ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে ৷ এটা লাগাতার ষষ্ঠবার যখন কোম্পানি এই পরিমাণ ক্ষতির মুখে পড়ল ৷ এই খবরের পরেই কোম্পানির শেয়ারেও ২০ শতাংশ পতন হয়েছে ৷

এবার কী হবে- বিএম পোর্টফোলিও-র রিসার্চ হেড বিবেক মিত্তল জানিয়েছেন ‘ভোডাফোন ও আইডিয়ার কাছে পয়সা নেই এই অবস্থায় ওরা এনসিএলটি-র দ্বারস্থ হতে পারেন ৷ কারণ ১৭ মার্চ মামলার পরের শুনানির আগে বকেয়া মেটাতে হবে ৷ যদি এরা মেনে নেয় এরা ব্যাঙ্করাপ্ট তাহলে টাকা চোকানো থেকে বেঁচে যেতে পারে ৷ তাহলে আর কোম্পানির বকেয়া দিতে হবে না ৷

বিষয়টি ঠিক কি  -অ্যাডজাস্টেড গ্রস রেভিনিউ মামলায় সুপ্রিম কোর্ট কোনও ছাড় দেওয়ার পক্ষপাতী নয় ৷ এই কোম্পানিগুলির জন্য সর্বোচ্চ আদালত একেবারে কড়া স্টান্স নিয়েছে ৷ ১৬ জানুয়ারি বিচারপতি অরুণ মিশ্র-র বেঞ্চ জানিয়েছে দূর সঞ্চার কোম্পানিগুলির জন্য অ্যাডজাস্টেড গ্রস রেভিনিউ চোকানোর নির্দেশ দিয়েছে ৷

সুপ্রিম কোর্টের কড়া বার্তাতেই বকেয়া টাকা উদ্ধারের জন্য চূড়ান্ত নির্দেশ দিল কেন্দ্রের টেলি যোগাযোগ মন্ত্রক৷ ভারতী এয়ারটেল, ভোডাফোনের মতো একাধিক সংস্থাকে শুক্রবার রাত ১১.৫৯ মিনিটের মধ্যে বকেয়া টাকা মিটিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷ উল্লেখ্য, ১৫টি সংস্থার থেকে সরকারের বকেয়া টাকার পরিমাণ মোট ১.৪৭ লক্ষ কোটি টাকা৷ যার মধ্যে ৯২,৬৪২ কোটি টাকা বয়েকা রয়েছে লাইসেন্স ফি হিসাবে৷ এছাড়া ৫৫,০৫৪ কোটি টাকা বাকি রয়েছে স্পেক্ট্রাম ইউসেজ চার্জ হিসাবে৷ যদিও শুক্রবার রাতের মধ্যে সরকারের তরফে কত টাকা চাওয়া হয়েছে, সেটা এখনও স্পষ্ট নয়৷

আরও পড়ুন - ওপেনিং স্লটে পৃথ্বীর সঙ্গে লড়াই, কখনও সুহানা-কখনও সারা, ভারতীয় ক্রিকেটের তরুণ তুর্কি শুভমান

শুক্রবার সন্ধ্যার পর থেকেই টেলি যোগাযোগ মন্ত্রকের তরফে সার্কেল বা জোন ভিত্তিক ডিমান্ড নোটিস পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ উত্তর প্রদেশ পশ্চিমের টেলিকম সার্কেলের জারি করা নোটিসেও একই নির্দেশ দেখা গিয়েছে৷ টেলিকম সংস্থার এক উচ্চপদস্থ কর্মী নাম না করে জানিয়েছেন, নোটিস এসেছে৷ সেখানে টেলিকম মন্ত্রক টাকা  জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে৷ আদালত এর আগে কেন্দ্রীয় টেলিকম মন্ত্রককে নির্দেশ দিয়েছিল, সংস্থাগুলি যাতে দ্রুত বকেয়া টাকা ফেরত দেয়, তার ব্যবস্থা করতে৷ একবারে অত পরিমাণ টাকা ফেরাতে না পারলেও একটা বড় অঙ্কের টাকা প্রথমে মিটিয়ে দিতে৷ এবং সেই সংস্থার ডিরেক্টর পদস্থ আধিকারিকদের এটা জানাতে যে কেন নির্দিষ্ট দিনের মধ্যে টাকা দিতে পারল না সংস্থাগুলি৷

Published by: Debalina Datta
First published: February 15, 2020, 1:28 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर