• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • মেয়েটির ভার্জিনিটি টেস্ট করছেন গ্রামের মোড়লরা! বিতর্কিত প্রথার ভিডিও ভাইরাল

মেয়েটির ভার্জিনিটি টেস্ট করছেন গ্রামের মোড়লরা! বিতর্কিত প্রথার ভিডিও ভাইরাল

ছবিটি প্রতীকী ও সংগৃহীত

ছবিটি প্রতীকী ও সংগৃহীত

  • Share this:

    #পুনে: পঞ্চায়েতে মাথারা বসে আছেন৷ ভরা সভা৷ ছেলেটি ও মেয়েটি মাঝখানে৷ গোটা গ্রাম তাকিয়ে রয়েছে মেয়েটির দিকে৷ গ্রামের মোড়লের থেকেই উড়ে এল প্রশ্নটি, 'মেয়েটি পবিত্র? মেয়েটি তোমায় তৃপ্ত করতে পেরেছে?' ছেলেটি তিনবার বলল, সমাধা হ্যায়, সমাধান হ্যায়, সমাধান হ্যায়৷ সকলের মুখে হাসি ফুটল৷ পুনের প্রত্যন্ত গ্রামে এই ভার্জিনিটি টেস্টের ভিডিও ঘিরে তুমুল বিতর্ক শুরু হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়৷

    মহারাষ্ট্রের কঞ্জরভাট সম্প্রদায়ের মধ্যে এই ভাবেই নাকি একটি মেয়েরে ভার্জিনিটি টেস্ট হয় বিয়ের পর৷ ভিডিও-টিতে দেখা যাচ্ছে, গ্রামের বয়স্ক লোকরা মেয়েটির সামনেই ছেলেটিকে জিগ্গেস করছে, মেয়েটি সুখ ঠিকমতো দিতে পারছে কিনা৷ ছেলেটি হ্যাঁ বলতেই, ছেলেটির আত্মীয়-স্বজনরা গ্রামের মোড়লদের টাকা বিলোতে শুরু করলেন৷

    ছেলেটি আবার পুনের প্রাক্তন কংগ্রেস কর্পোরেটর, ব্যবসায়ী ও সমাজকর্মী সুনীল মালকের ছেলে৷ গত সপ্তাহেই তাঁর বিয়ে হয়েছে৷ মেয়েটিও উচ্চ বংশের৷ এ বিষয়ে সুনীল মালকের কথায়, 'আমার ছেলেকে জিগ্গেস করেছিল, বিয়ে করে সে তৃপ্ত কিনা৷ আমার ছেলে বলেছে, হ্যাঁ৷ এর মধ্যে খারাপ কিছু তো দেখছি না৷ একে ভার্জিনিটি টেস্ট বলা উচিত নয়৷ আমরা একটি সম্ভ্রান্ত পরিবার৷'

    মালকের দাবি, তাঁর শত্রুরাই বিষয়টিকে এই ভাবে দেখিয়ে তাঁর সম্মানহানী করছে৷ এই প্রথার বিরোধী সমাজকর্মী টাটা ইন্সস্টিটিউট অফ সোশ্যাল সায়েন্সের বিবেক তামাইচকরের কথায়, 'এটা সাড়ে ৪০০ বছরের পুরনো একটি প্রথা৷ বিয়ের রাতে যদি কোনও মেয়ের ভ্যাজাইনায় রক্তপাত না হয়, তখনই তাঁকে মারধর করা হয়৷ এমনকী বিবাহ বিচ্ছেদ পর্যন্ত গড়ায়৷'

    কঞ্জরভাট সম্প্রদায়ের বক্তব্য, এই প্রাচীন প্রথাকে অনেকেই ভুল ব্যাখ্যা করছে৷ সম্প্রদায়ের নেতা স্থানীয় বিষ্ণু ভাটের কথায়, 'আমাদের সম্প্রদায়কে হেয় দেখানোর জন্যই চক্রান্ত চলছে৷'

    First published: