পর্যটকদের গাড়িকে ধাওয়া মস্ত হাতির, শিহরণ জাগানো ভিডিও ভাইরাল!

পর্যটকদের গাড়িকে ধাওয়া মস্ত হাতির, শিহরণ জাগানো ভিডিও ভাইরাল!

পর্যটকদের গাড়িকে ধাওয়া মস্ত হাতির, শিহরণ জাগানো ভিডিও ভাইরাল!

বিশালাকার ওই প্রাণীটিকে দেখে উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন পর্যটকরা। সেই চিৎকার কানে যেতেই ঘুরে দাঁড়ায় ওই হাতি।

  • Share this:

#বেঙ্গালুরু: পর্যটকদের গাড়িকে ধাওয়া করল মস্ত হাতি। আত্মরাম খাঁচা ছাড়া হওয়ার মতো পরিস্থিতিতে ভয়ে কাঁটা হলেন মানবগোষ্ঠীর সদস্যেরা। চালকের নিদারুণ দক্ষতায় তখনকার মতো পরিস্থিতি সামাল দেওয়া গেলেও বড়সড় দুর্ঘটনা যে ঘটেই যেতে পারত, তা হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছেন পর্যটকদের ওই দল। ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

ইন্টারনেটে ভিডিওটি পোস্ট করেছেন আইএফএস (IFS) অফিসার সুশান্ত নন্দা। যেটি কর্নাটকের জঙ্গলে তোলা হয়েছে। দেখা যাচ্ছে যে ঘন বনের মধ্যে দিয়ে এগিয়ে চলেছে পর্যটকদের সাফারি গাড়ি। পথের মধ্যে এক মস্ত হাতিকে দেখে চালক গাড়ি থামিয়ে দেন। বিশালাকার ওই প্রাণীটিকে দেখে উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন পর্যটকরা। সেই চিৎকার কানে যেতেই ঘুরে দাঁড়ায় ওই হাতি। সেটি আচমকাই ওই গাড়ির দিকে তেড়ে আসে।

https://twitter.com/susantananda3/status/1371449406155751425

বিপদ বুঝে গতি বাড়িয়ে গাড়ি ছোটাতে থাকেন চালক। জেদি প্রাণীটি গাড়ির পিছনে ছুট লাগায়। অনেকটা পথ এভাবে কেটে যাওয়ার পর রণে ভঙ্গ দেয় হাতিটি। ঠিক তখনই গাড়ির চালক সামনে তাকিয়ে দেখেন যে সেখানে দাঁড়িয়ে আরও এক মস্ত প্রাণী। গাড়ির দিকে তাকিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা ওই হাতিটি অবশ্য আপাতনিরীহ। পর্যটকদের সাফারি যান দেখে সে নিজেই সামনের দিকে ছুটতে শুরু করে। ধীরে ধীরে গাড়ি এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকেন চালকও। খানিকটা যাওয়ার পর রাস্তার মাঝে দাঁড়িয়ে পড়ে ওই হাতি। কিছুক্ষণ ভাবনাচিন্তা করার পর হাতিটি দৌড়ে জঙ্গলের মধ্যে ঢুকে অদৃশ্য হয়ে যায়।

গায়ে শিহরণ জাগানো ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় সাড়া ফেলে দিয়েছে। নানা ধরনের প্রতিক্রিয়া পাওয়া গিয়েছে নেটিজেনদের তরফে। কারও মতে পর্যটকদের বন্য প্রাণীদের প্রতি আরও একটু সংবেদনশীল হওয়া প্রয়োজন। হাতিকে গাড়ি নিয়ে ধাওয়া করার বিষয়টি মেনে নিতে পারছেন না অনেকে। পর্যটকদের বন্য প্রাণীদের বাসস্থান ছাড়ার আবেদন জানানো হয়েছে। যাঁরা আবার এই ঘটনার ঘোর থেকে বেরোতে পারেননি। আবার কারও চোখেমুখে লেগে রয়েছে শিহরণ জাগানো পরিস্থিতি।

গাড়ির পিছনে হাতির ধাওয়া নিয়ে পশুপ্রেমীদের বক্তব্য, কেউ বাড়িতে অনধিকার প্রবেশ করতে গেলে, প্রতিরোধ গড়ে তোলা হয়। তেমনই পশুদের এলাকায় পর্যটকদের অনধিকার প্রবেশ সেখানকার পরিবেশ নষ্ট করে বলে মনে করছেন নেটিজেনদের একটা অংশ। অনেকের মতে, অবলা প্রাণীদের জঙ্গলে গাড়ি সাফারি বন্ধ করে দেওয়া উচিৎ। জঙ্গলের রাজ্যে শান্তি বজায় রাখা এবং পশুদের সেই পরিবেশে ছেড়ে দেওয়া মানুষের নৈতিক কর্তব্য বলে মনে করেন পশুপ্রেমীরা।

Published by:Raima Chakraborty
First published: