উত্তরপ্রদেশে ভাইকে ধর্ষণ দাদার, এক লক্ষ টাকা জরিমানা ও চারটে থাপ্পড়েই মিটল মামলা!

উত্তরপ্রদেশে ভাইকে ধর্ষণ দাদার, এক লক্ষ টাকা জরিমানা ও চারটে থাপ্পড়েই মিটল মামলা!
প্রতীকী চিত্র ।

৮ বছরের নাবালককে তার ১৬ বছরের তুতো-দাদা ও একই সঙ্গে প্রতিবেশী পাশের একটি ফাঁকা জমিতে নিয়ে যায়। সেখানেই তাকে ধর্ষণ করা হয়।

  • Share this:

    #উত্তরপ্রদেশ: ধর্ষণের নিরিখে গোটা বিশ্বে এক নম্বরে রয়েছে আমেরিকা। আমাদের দেশ এই তালিকায় চারে। ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরো অনুযায়ী, ২০১২ সালে ধর্ষণের অভিযোগ জমা পড়েছে ২৪ হাজার ৯২৩টি। ধর্ষণের শিকার হওয়া ১০০ জন নারীর মধ্যে ৯৮ জনই আত্মহত্যা করেন। প্রতি ২২ মিনিটে একটি করে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের হয় দেশের কোথাও না কোথাও! শুধু নারীই নন, ধর্ষণের শিকার হন পুরুষরাও।

    ধর্ষণ নিয়ে একাধিক সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান বা সচেতনতামূলক বার্তা দেওয়া হলেও এই পরিসংখ্যানে তার খুব একটা প্রভাব পড়েনি। ফলে উন্নাও থেকে দিল্লি, হাথরাস থেকে কামদুনি, এই ক'বছরে একাধিক ধর্ষণের ঘটনা দেখেছে দেশ।

    দেশের প্রতিটা গ্রামে, প্রতিটা শহরে, প্রতি কোণায় কত ধর্ষণ প্রতিদিন হচ্ছে, সেই হিসেব হয় তো অনেকের কাছেই নেই। সমাজে লজ্জার ভয়ে, মুখ দেখানোর ভয়ে এমন ধর্ষণের ঘটনা অনেকেই লুকিয়ে যান। যেমন লোকালেন উত্তরপ্রদেশের এই পরিবার। আর তাই হয় তো পঞ্চায়েতে ধর্ষণের মূল্য় দাঁড়াল ১ লক্ষ টাকা ও চারটে থাপ্পড়। ধর্ষিতর মানসিক পরিস্থিতি অর্থের আড়ালেই লুকিয়ে গেল। যা আবারও প্রশ্ন তুলে দিল, টাকা কি আদৌ ধর্ষণের ঘায়ে প্রলেপ লাগাতে পারে?


    ধর্ষণের খবরে মাঝেমধ্যেই শিরোনামে উঠে আসে উত্তরপ্রদেশ। উন্নাও, হাথরাসের পরে এবার বিজনোর! এই জেলার নেহতোর এলাকায় এক ৮ বছরের নাবালককে ধর্ষণ করে তার আত্মীয়। যা সমাজের ভয়ে লুকিয়ে ফেলে তার পরিবার। কিন্তু নাবালকের কান্নায় ও আশেপাশের কানাঘুষোতে পুরো বিষয়টি জানাজানি হয়ে যায়। তবে, পুলিশের কাছে ওই পরিবারের তরফে কোনও অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। ফলে, বিষয়টি পঞ্চায়েতই মিটিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে।

    ঘটনার সূত্রপাত কয়েক দিন আগে। ৮ বছরের নাবালককে তার ১৬ বছরের তুতো-দাদা ও একই সঙ্গে প্রতিবেশী পাশের একটি ফাঁকা জমিতে নিয়ে যায়। সেখানেই তাকে ধর্ষণ করা হয়। আশেপাশের লোকজন কান্নার আওয়াজ পেয়ে বাচ্চাটিকে উদ্ধার করে বাড়ি নিয়ে আসে। পরে ওই নাবালক পুরো বিষয়টি তার পরিবারকে জানায়। এবং শারীরিক ভাবে অসুস্থ থাকায় তাকে রবিবার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

    The Times of India-র রিপোর্ট অনুযায়ী, প্রথমে বিষয়টি কাউকে না জানালেও পরে জানাজানি হয়ে যায়। কিন্তু তার পরিবারের তরফে পুলিশে খবর দেওয়া হয় না। যার ফলে বিষয়টি স্থানীয় পঞ্চায়েত মিটিয়ে দেওয়া চেষ্টা করে। শাস্তি হিসেবে ওই কিশোরকে চারটে থাপ্পড় ও এক লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়। এবং বিষয়টি সেখানেই মিটে যায়।

    এই বিষয়ে নেহতোরের SHO জয় কুমার জানান, এই ঘটনাটি একই পরিবারের মধ্যে হয়েছে। আমরা ওই গ্রামে ওদের সঙ্গে গিয়ে কথা বলেছি। আমরা জানি না পঞ্চায়েত কী সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এটা আইনগত পদ্ধতি নয়।

    এই বিষয়ে স্থানীয় পুলিশ আধিকারিক জানিয়েছেন, ঘটনাটি খতিয়ে দেখবেন তিনি এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করবেন।

    Published by:Simli Raha
    First published: