উত্তর প্রদেশের ইফকো-ফুলপুর প্ল্যান্টে গ্যাস লিক হয়ে মর্মান্তিক মৃত্যু ২ কর্মীর, অসুস্থ ১৩

উত্তর প্রদেশের ইফকো-ফুলপুর প্ল্যান্টে গ্যাস লিক হয়ে মর্মান্তিক মৃত্যু ২ কর্মীর, অসুস্থ ১৩

মঙ্গলবার রাত ১১টা নাগাদ প্ল্যান্টের একটি ইউনিটে অ্যামোনিয়া গ্যাস লিক হয়।

মঙ্গলবার রাত ১১টা নাগাদ প্ল্যান্টের একটি ইউনিটে অ্যামোনিয়া গ্যাস লিক হয়।

  • Share this:

    #লখনউ: উত্তর প্রদেশে ইন্ডিয়ান ফার্মারস ফার্টিলাইজার কো-অপারেটিভ লিমিটেড (ইফকো) প্ল্যান্টে অ্যামোনিয়া গ্যাস লিক হয়ে মঙ্গলবার রাতে মৃত্যু হয়েছে দু’জন কর্মীর। আরও ১৩ জন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন এই গ্যাসের প্রভাবে। এর মধ্যে ৪ জন কর্মীর অবস্থা বেশ সঙ্কটজনক হয়ে পড়ায়, তাঁদের নিয়ে যাওয়া হয়েছিল সিটি হাসপাতালে। এখন তাঁরা সুস্থ আছেন।

    ইফকো প্ল্যান্টের জনসংযোগ বিভাগের প্রধান বিশ্বজিত শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, মঙ্গলবার রাত ১১টা নাগাদ প্ল্যান্টের একটি ইউনিটে অ্যামোনিয়া গ্যাস লিক হয়। তবে খুব তাড়াতাড়িই গ্যাস লিকেজ বন্ধ করে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। তথ্য বলছে, ইফকো প্ল্যান্টের যে ইউনিটে গ্যাস লিক হয়েছিল, সেটি প্রয়াগরাজ জেলায়, ট্রান্স-গঙ্গা প্রজেক্টের সঙ্গম শহর থেকে মাত্র ২৫ কিলোমিটার দূরে। এখানেই কোনও সমস্যা তৈরি হওয়ায়, গ্যাস লিক হয়েছিল।

    ভিপি সিং নামের, ৪৭ বছরের এক কর্মীর প্রথম গ্যাস লিকের বিষয়টা চোখে পড়ে। লিকেজ সারানোর চেষ্টা করতে গিয়ে তিনি অ্যামোনিয়া গ্যাসের সংস্পর্শেও আসেন। ভিপি সিং সমস্যায় পড়েছেন দেখে, অন্য এক কর্মী, ৫৭ বছরের অভয় নন্দন ছুটে আসেন সাহায্য করতে। অন্যান্য কর্মীরা তাঁদের ইউনিট থেকে বের করে আনেন। ততক্ষণে গ্যাস ছড়িয়ে গিয়েছে এবং আরও ১৩ জন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এরপর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সেখানে এসে পৌঁছন বিশেষজ্ঞরা।

    পুলিশ এবং জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে, ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছন পুলিশ সুপারিন্টেন্ডেন্ট ধবল জয়েসওয়াল এবং রামসাগর ও যুবরাজ সিং নামের আরও দু’জন অফিসার। এছাড়াও ছিলেন ইফকো ইউনিটের প্রধান মহম্মদ মাসুদ। তাঁরা সকলেই অসুস্থ কর্মীদের উদ্ধার কার্যে সহায়তা করেন। অসুস্থ কর্মীদের প্রথমে নিয়ে যাওয়া হয় ইফকো ক্যাম্পাসের হাসপাতালে এবং পরে তাঁদের স্থানান্তরিত করা হয় শহরের অন্য হাসপাতালে। তবে ভিপি সিং এবং অভয় নন্দন-কে বাঁচানো সম্ভব হয়নি।

    Published by:Antara Dey
    First published:

    লেটেস্ট খবর