সহবাসে নারীর সম্মতি প্রয়োজন, উত্তরপ্রদেশ পুলিশের ফিল্মি কায়দায় সতর্কবার্তা নজর কাড়ল নেটিজেনদের

মহিলাদের মতামত ও সম্মতির বিষয়টিকে সম্মান করতে হবে। সচেতন হতে হবে

মহিলাদের মতামত ও সম্মতির বিষয়টিকে সম্মান করতে হবে। সচেতন হতে হবে

  • Share this:

#লখনউ: প্রায়শই নানা সামাজিক বিষয়ের উপরে তৈরি সিনেমা দর্শকদের মন জিতে নেয়। দৈনন্দিন জীবনের একাধিক ঘটনাকে বড় পর্দায় তুলে ধরার মাধ্যমে মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করা হয়। বলিউডের দুই ছবির ক্লিপিং ব্যবহার করে খানিকটা সেই পথেই হাঁটল উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। সহবাসে মহিলাদের সম্মতির বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে সিনেমার ভিডিও ক্লিপগুলিকে এডিট করে একটু অন্যরকম ভাবে সতর্কবার্তা দেওয়া হল পুলিশ প্রশাসনের তরফে।

মহিলারা যখন না বলেন, তখন তার অর্থ 'না'-ই হয়, মনে পড়ে পিঙ্ক (Pink) ছবিরর সেই ডায়লগ? এখানে যেন সেই পারস্পরিক সম্মতি ও মহিলাদের সম্মানের বিষয়টি উঠে এসেছে। ভিডিওর প্রথমে দেখা যাচ্ছে, ডর (Darr) সিনেমার গানের একটি অংশ- তু হাঁ কর ইয়া না কর, তু হ্যায় মেরি কিরণ! পরের দৃশ্যে পিঙ্ক সিনেমার একটি ক্লিপ। কোর্টে দাঁড়িয়ে অমিতাভ বচ্চন (Amitabh Bachchan) বলছেন ‘No means no’। ভিডিও শেষে পুলিশের বার্তা- যখন কিরণ না বলে, তখন সেটা না! অর্থাৎ মহিলাদের মতামত ও সম্মতির বিষয়টিকে সম্মান করতে হবে। সচেতন হতে হবে। যাতে কোনও অপরাধ না ঘটে, সেই লক্ষ্যেই সকলকে এগোতে হবে।

প্রসঙ্গত, যশ চোপড়া পরিচালিত (Yash Chopra) ডর ১৯৯৩ সালে রিলিজ করে। সেই সময়ের বড় হিট ছিল ছবিটি। এক স্টকারকে কেন্দ্র করে এই সিনেমার গল্পটাও বেশ টানটান। রাহুল প্রথমে অদ্ভুত ভাবে কিরণের পিছু নেয় এবং পরের দিকে তাঁর হবু স্বামী সুনীলকে হত্যা করতে উদ্যত হয়। শাহরুখ খানের (Shah Rukh Khan) অভিনয় বেশ প্রশসিংত হয়েছিল। তবে পরের দিকে সিনেমাটি বেশ সমালোচিত হয়। এক স্টকারকে বড় করে দেখানো হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে। অন্য দিকে, একাধিক সামাজিক বিষয়কে প্রশ্নের মুখে দাঁড় করিয়ে দেয় অমিতাভ বচ্চন ও তাপসী পন্নু (Taapsee Pannu) অভিনীত সিনেমা পিঙ্ক (Pink)। ২০১৬ সালে মুক্তি পায় ছবিটি। এই দু'টি সিনেমার ছোট ক্লিপ কেটে এডিট করেই বানানো হয়েছে এই সচেতনতামূলক প্রচারের ভিডিও।

ফিল্মি কায়দায় জনসাধারণের কাছে এভাবে পৌঁছানোর জন্য উত্তরপ্রদেশ পুলিশের প্রশংসা করেছেন নেটিজেনরা। তাঁদের কথায়, সচেতন করার এই পদক্ষেপ সত্যিই অন্যরকম। এই ধরনের ভিডিও যে কোনও ধরনের মানুষজন দেখতে পছন্দ করেন। আর এর মধ্য দিয়ে তাঁরা সচেতনও হবেন। তবে অনেকের গলায় আফসোস স্পষ্ট- এক ব্যবহারকারী লিখেছেন, এই প্রচেষ্টা আগে দেখা গেলে রাজ্যের এমন পরিস্থিতি হত না!

উত্তরপ্রদেশ পুলিশের পোস্টটি কোট করে বিনয় বর্মা নামে এক ট্যুইটার ইউজার আবার অন্য কথা লিখেছেন। তাঁর জিজ্ঞাসা, রাজ্যে ক্রাইম রেট কত? ভারতের মধ্যে কি সব চেয়ে বেশি ক্রাইম রেট উত্তরপ্রদেশে? যাই হোক, পুলিশের এই অভিনব ও ইতিবাচক বার্তা কিছুটা হলেও আশার আলো দেখাবে।

কেউ লিখছেন- Keep it up। কেউ আবার অন্য কোনও বলিউড সিনেমার ভিডিও ক্লিপ এডিট করে কমেন্ট সেকশনে পোস্ট করেছেন।

সম্প্রতি আরও একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। উত্তরপ্রদেশ রাজ্য পুলিশের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে একটি নতুন ভিডিও পোস্ট করা হয়েছে। ১৯৭৫ সালের আইকনিক সিনেমা শোলের (Sholay) একটি ভিডিও ক্লিপিং এডিট করে জনগণকে সতর্ক করা হয়েছে। রাজ্য পুলিশের বার্তা, কেউ যেন রাস্তাঘাটে যত্রতত্র থুতু না ফেলে!

Published by:Ananya Chakraborty
First published: