Home /News /national /
‘গণতন্ত্র আজ বিপন্ন’, সাংবাদিক বৈঠক ডেকে বললেন সুপ্রিম কোর্টের ৪ বিচারপতি

‘গণতন্ত্র আজ বিপন্ন’, সাংবাদিক বৈঠক ডেকে বললেন সুপ্রিম কোর্টের ৪ বিচারপতি

Supreme Court Judges Against the CJI: Statements Made by Justice J Chelameswar

Supreme Court Judges Against the CJI: Statements Made by Justice J Chelameswar

‘গণতন্ত্র আজ বিপন্ন’, সাংবাদিক বৈঠক ডেকে বললেন সুপ্রিম কোর্টের ৪ বিচারপতি

  • Share this:

     #নয়াদিল্লি: দেশের ইতিহাসে নজিরবিহীন ঘটনা ৷ সাংবাদিক বৈঠক ডেকে সুপ্রিম কোর্টের চার প্রবীণ বিচারপতি বলেন, সু্প্রিম কোর্টে সব কিছু ঠিকঠাক চলছে না ৷ ভারতের মতো গণতান্ত্রিক দেশের পক্ষে যা বিপজ্জনক ৷

    শীর্ষ আদালতের প্রশাসনিক কাজকর্ম নিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন চার বিচারপতি। যা রীতিমতো নজিরবিহীন ৷ তাদের অভিযোগ, সুপ্রিমকোর্টের প্রশাসন ঠিকঠাক চলছে না। গত কয়েক মাস ধরে অনেক কিছুই ঘটছে যা অবাঞ্ছিত। গণতন্ত্র আজ বিপন্ন। মূলত মামলা বন্টন নিয়ে চার বিচারপতি ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন। এ প্রসঙ্গে সরাসরি প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রকে ব্যর্থ বলেই অভিহিত করেছেন তারা। তবে প্রধান বিচারপতিকে ভর্ৎসনা করা উচিত কিনা সেই প্রসঙ্গ দেশের ওপরই ছেড়ে দিয়েছেন ক্ষুব্ধ বিচারপতিরা।

    শুক্রবার বিচারপতি জে চেলামেশ্বর নিজের বাড়িতেই ডাকেন সাংবাদিক বৈঠক ৷ প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের পর তিনিই শীর্ষ আদালতের দ্বিতীয় প্রবীণ সাংবাদিক ৷ তাঁর সঙ্গেই সাংবাদিক বৈঠকে হাজির ছিলেন বিচারপতি কুরিয়েন জোসেফ, বিচারপতি রঞ্জন গগৈ ও বিচারপতি মদন লকুর ৷

    প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের কাজে অসন্তুষ্ট চেলামেশ্বর এদিন বলেন, ‘প্রধান বিচারপতিকে ইমপিচ করা উচিত? দেশের মানুষই তা ঠিক করবেন ৷ সুপ্রিম কোর্টের প্রশাসন ঠিকঠাক চলছে না ৷ অনেক কিছুই হচ্ছে যা প্রত্যাশার থেকে কম ৷ গত কয়েক মাস ধরেই এটা চলছে ৷ গণতন্ত্র আজ বিপন্ন ৷ উদ্বেগের কথা জানাতেই সাংবাদিক বৈঠক ৷’

    প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে সাংবাদিক বৈঠকে চার বিচারপতির মন্তব্যের পরেই আইনমন্ত্রীর রবিশংকর প্রসাদের সঙ্গে বৈঠক ডাকেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

    প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ডিসেম্বর মাসে মেডিকেল দুর্নীতি সংক্রান্ত একটি মামলার শুনানি নিয়ে চেলামেশ্বরের সঙ্গে প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের ঝামেলা বাধে ৷ লখনউয়ের মেডিকেল কলেজের ছাত্র ভর্তি নিয়ে দুর্নীতির মামলায় সামনে আসে ঘুষ নিয়ে ছাত্র ভর্তি করিয়েছে কলেজটি ৷ এরপর কলেজটিকে ব্ল্যাক লিস্ট করা হয় ৷ এই রায়ের উপর স্থগিতাদেশ চায় ওই কলেজটি ৷ এই মামলায় বিচারবিভাগের বিরুদ্ধেও দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগ ওঠে ৷ এই তথ্য সামনে আসতেই প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র ওই মামলা অন্য বেঞ্চে পাঠিয়ে দেন ৷ যার প্রতিবাদ করেছিলেন চেলামেশ্বর ৷ তবে সুপ্রিম কোর্টে কোনও মামলার শুনানি কার হাতে যাবে তার সম্পূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার রয়েছে শুধুমাত্র প্রধান বিচারপতির ৷

    First published:

    Tags: 4 senior SC Judges, Chief Justice of India, J chelameswar, Justice Madan B Lokur, Supreme Court

    পরবর্তী খবর