আদৌ কি নিরাপদ ভারতীয় টিকা? কোভ্যাক্সিনে 'না' ছত্তিশগড়ের, সাফাই কেন্দ্রের

আদৌ কি নিরাপদ ভারতীয় টিকা? কোভ্যাক্সিনে 'না' ছত্তিশগড়ের, সাফাই কেন্দ্রের
কোভ্যাক্সিন নিয়ে কেন্দ্রের জবাব কী?

টিকাকরণের সময়সীমা এগিয়ে এনে অনেতেই এতে রাজনীতির গন্ধ পেয়েছিলেন। সেই পথেই কংগ্রেসের ছত্তিশগড় সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রীও হেঁটেছেন এবং কোভ্যাক্সিনের সরবরাহ বন্ধ করার অনুরোধ করেছিলেন।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন নিয়ে চিন্তায় ছত্তিশগড়ের স্বাস্থ্যমন্ত্রী টিএস সিং দেও। তাঁকে এবার আশ্বাস জানিয়ে চিঠি লিখলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডক্টর হর্ষবর্ধন। দেশীয় করোনা টিকা কোভ্যাক্সিন নিয়ে বিতর্ক প্রথম নয়। অনেকেরই অভিযোগ, ঠিক মতো ট্রায়াল হয়নি এই ভ্যাক্সিনের। টিকাকরণের সময়সীমা এগিয়ে এনে অনেতেই এতে রাজনীতির গন্ধ পেয়েছিলেন। সেই পথেই কংগ্রেসের ছত্তিশগড় সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রীও হেঁটেছেন এবং কোভ্যাক্সিনের সরবরাহ বন্ধ করার অনুরোধ করেছিলেন। যদিও এই কোভ্যাক্সিন সম্পূর্ণ নিরাপদ বলে দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন।

    চিঠির শুরুতেই হর্ষবর্ধন উল্লেখ করেন, কোভ্যাক্সিন সম্পূর্ণ নিরাপদ। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে সক্ষম। সারা দেশেই এর বিস্তৃত ব্যবহার করা দরকার। কার্যকারিতা শেষ হওয়ার দিনের উল্লেখ নিয়েও চিঠিতে লেখেন হর্ষবর্ধন। কোভ্যাক্সিন টিকার গায়ে সাঁটা লেবেলের একটি ছবি টুইটারে পোস্ট করে তিনি লেখেন, 'আপনার কার্যকারিতা শেষ হওয়ার দিন নিয়ে তোলা অভিযোগ ভিত্তিহীন। দেখুন, লেবেলেই তারিখের উল্লেখ স্পষ্ট'।

    রাজ্যে ভারত বায়োটেকের তৈরি কোভ্যাক্সিনের সরবরাহ বন্ধ করার আর্জি জানিয়ে দু'টি বিষয়ে অভিযোগ করেছিলেন টিএস সিং দেও। তাঁর অভিযোগ ছিল, 'টিকার তৃতীয় দফার ট্রায়াল হয়নি, তাই এতে ঝুঁকি রয়েছে। পাশাপাশি, এই টিকার গায়ে লেখা নেই ওষুধের কার্যকারিতা শেষ হওয়ার তারিখও।' টুইটারে সেই চিঠি প্রকাশ করেছিলেন ছত্তিশগড়ের স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তার পরেই তড়িঘড়ি এদিন নিজের উত্তরে সেই অভিযোগই উড়িয়ে দিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক।

    হর্ষবর্ধন পাল্টা কংগ্রেস শাসিত ছত্তিশগড়ে টিকা প্রদানের হার অত্যন্ত কম এবং তারা যে লক্ষ্যমাত্রা থেকে অনেকটাই পিছিয়ে রয়েছেন সেই অভিযোগ করেছেন। টুইটারে পোস্ট করা চিঠিতে লেখেন, 'ছত্তিশগড়ে মাত্র ৯.৫৫ শতাংশ প্রথম সারির করোনা যোদ্ধা টিকা পেয়েছেন। টিকাপ্রাপকের সংখ্যা ২ লক্ষ ৯ হাজার ৫১২। আপনাদের উচিত আরও বেশি সংখ্যায় প্রথম সারির করোনা যোদ্ধাদের টিকার আওতায় নিয়ে আসা, কারণ আপনার রাজ্যে যথেষ্ট পরিমাণ টিকা সরবরাহ করা হচ্ছে'।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published:

    লেটেস্ট খবর