বাজেট ২০২১: সাবসিডিতে ক্যাপেক্সকে অগ্রাধিকার দিতে হবে, বলছেন বিশেষজ্ঞরা!

বাজেট ২০২১: সাবসিডিতে ক্যাপেক্সকে অগ্রাধিকার দিতে হবে, বলছেন বিশেষজ্ঞরা!
বাকি আর মাত্র দু'দিন। ১ ফেব্রুয়ারি, সোমবার ২০২১-২২ অর্থবর্ষের বাজেট পেশ হতে চলেছে।

বাকি আর মাত্র দু'দিন। ১ ফেব্রুয়ারি, সোমবার ২০২১-২২ অর্থবর্ষের বাজেট পেশ হতে চলেছে।

  • Share this:

#নয়া দিল্লি: বাকি আর মাত্র দু'দিন। ১ ফেব্রুয়ারি, সোমবার ২০২১-২২ অর্থবর্ষের বাজেট পেশ হতে চলেছে। কোন খাতে কত বরাদ্দ বাড়বে, কোথায় আয়করে ছাড় দেওয়া হবে, তা নিয়ে ইতিমধ্যেই নানা জল্পনা শুরু হয়েছে। আসন্ন বাজেটে একাধিক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যেতে পারে বলে আশাবাদী সমস্ত মহল। অন্যান্য বছর সরকারের ব্যয়ের খতিয়ান দেখলে দেখা যাবে সামাজিক বিভিন্ন প্রকল্প ও সাবসিডিকেই বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এ বছর প্যানডেমিকের জেরে তাতে পরিবর্তন আসতে পারে এবং মূল ব্যয়ের দিকেই লক্ষ্যমাত্রা স্থির করা হতে পারে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর ফলে সরকারকে সামাজিক খাতে ব্যয়ে ক্যাপেক্সকে অগ্রাধিকার দিতে হবে।

কেন্দ্রীয় বাজেটের আগে ক্যাপেক্স বিষয়টি নিয়ে খুবই চর্চা চলছে। এই নিয়ে অনেকেরই প্রত্যাশা রয়েছে। ক্যাপেক্সের ক্ষেত্রে বৃদ্ধির হার বাড়ানোর জন্য সওয়াল করছেন বিশেষজ্ঞরা। ক্যাপেক্স গ্রোথ রেটের প্রসঙ্গও উঠে আসছে। অনেকেই বলছেন, হয় সরকারের ট্যাক্স কমানো উচিৎ, না হলে ক্যাপেক্সের জন্য ইনসেনটিভস দিতে হবে। যদি এটি বাস্তবায়িত হয়, তা হলে দেশের মধ্যে আরও বেশি পরিমাণে বিনিয়োগ বাড়তে পারে।

সামাজিক খাতে ব্যয়ের ক্ষেত্রে এই ক্যাপেক্স বিষয়টিকেই অগ্রাধিকার দেওয়ার কথা বলছেন বিশেষজ্ঞরা। এ বিষয়ে house Bernstein (India) Pvt-সমীক্ষার পর বলছে, ক্যাপেক্সের ক্ষেত্রে বৃদ্ধির হার বাড়াতে হবে সরকারকে। বছরে অন্তত ৩০ শতাংশের কাছাকাছি নিয়ে যেতে হবে ক্যাপেক্স গ্রোথ রেটকে। সাবসিডির বিষয়গুলিও নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে।


এমনিতে মূল ব্যয়ের উপরে বিনিয়োগ করলে অর্থনীতি চাঙ্গা করতে তা প্রভাব ফেলে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যেতে পারে, পরিকাঠামোগত কাজে ও বিভিন্ন যৌথ প্রকল্পে যদি সরকার ব্যয়ের পরিমাণ বাড়ায়, তা হলে কর্ম সংস্থান বাড়বে ও বিক্রির হারও বাড়বে।

এবিষয়ে HSBC Securities and Capital Markets (India) Pvt. Ltd-এর অর্থনীতিবিদ বলেন, বিনিয়োগ একাই কোনও দেশের কর্মসংস্থান বাড়িয়ে দিতে পারে। কিন্তু যখন বেশি জনসংখ্যা থাকে এবং অর্থনৈতিক পরিস্থিতি খারাপ হয় দেশের, তখন তাড়াতাড়ি এভাবে কর্মসংস্থান বাড়া সম্ভব নয়। তাই এই ক্ষেত্রে পাবলিক ক্যাপেক্সকে গুরুত্ব দিতে হয়।

UTI Asset Management Co. ভেত্রি সুব্রহ্মন্যম এই বিষয়ে একটি আলোচনায় বলেন, আমি মনে করি এই ক্ষেত্রে সব চেয়ে বেশি ভালো হয়, যদি মানুষের হাতে টাকা তুলে দেওয়া হয়। বা তাদের পকেটে যদি অতিরিক্ত টাকা থাকে। কারণ পরোক্ষ কর কমিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এই পদ্ধতিটাই ২০০৯ সালে কাজ করে। তাই অর্থনৈতিক পরিস্থিতির হাল ফেরাতে এই পদ্ধতিই অনুসরণ করা যেতে পারে!

Published by:Piya Banerjee
First published:

লেটেস্ট খবর